ঢাকা, সোমবার,২২ জানুয়ারি ২০১৮

নিত্যদিন

মাতানা

০২ ডিসেম্বর ২০১৭,শনিবার, ০০:০০


প্রিন্ট

আজ তোমরা জানবে মাতানা সম্পর্কে। এই হ্রদের আয়তন মাত্র ১৬৪ দশমিক ১ বর্গকিলোমিটার। কিন্তু এর সৌন্দর্যের বিশালতা? অনন্ত দিগন্ত, যার হিসাব মেলা ভার।
লিখেছেন মুহাম্মদ রোকনুদ্দৌলাহ্

মাতানা হ্রদ। হ্রদটির ভিন্ন নাম মাতানো। সৌন্দর্য আর রহস্যময়তা রয়েছে এতে। এটি ইন্দোনেশিয়ার সবচেয়ে গভীর হ্রদ। গভীরতা প্রায় ৬০০ মিটার।
গভীরতায় বিশ্বের অষ্টম স্থানের অধিকারী হ্রদটির অবস্থান দক্ষিণ সুলাউইসিতে। হ্রদের ধারের ছোট্ট শহর সরোওয়াকা।
প্রাকৃতিক এই হ্রদের মাছ, প্রাণী আর জলজ গাছ একে করেছে সমৃদ্ধ। হ্রদটির নীল পানির স্বচ্ছতায় যেন প্রাণের স্পন্দন। এতই স্বচ্ছ এ পানি যে, কোনো কোনো জায়গায় হ্রদের তলা দেখা যায়। সেই সাথে মাছ ও প্রাণী।
ঘিরে থাকা আকর্ষণীয় ভূ-দৃশ্য আর বনভূমি হ্রদটিকে করেছে বিশ্বের সুন্দরতম জায়গাগুলোর একটি। তাই অনেক ইন্দোনেশিয়ানের হৃদয়ে বিশেষ নামÑ মাতানো হ্রদ। ইন্দোনেশীয় ভাষায় একে বলে দানাউ মাতানো।
সৌন্দর্যময়ী মাতানো যেন সব সময় এর পানিতে অবগাহন করতে আহ্বান জানায়। সাঁতার না জানলেই বিপদ! এর পানিতে নামতে ইচ্ছে করবেই যে! এ হ্রদে সাঁতার কাটা কিংবা ভিজে যাওয়া স্মরণীয় মুহূর্ত হতে পারে। এখানকার বিড়ালাকৃতির দ্বীপে হাঁটা কিংবা একে কেন্দ্র করে সাঁতরে চলা রোমাঞ্চকর।
হ্রদের আয়তন মাত্র ১৬৪ দশমিক ১ বর্গকিলোমিটার। কিন্তু এর সৌন্দর্যের বিশালতা? অনন্ত দিগন্ত, যার হিসাব মেলা ভার। হ্রদের পানি নির্গমন পথ পেনেত নদীর নৈসর্গিক শোভাও অনবদ্য। ওয়েবসাইট অবলম্বনে

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫