ঢাকা, শনিবার,১৬ ডিসেম্বর ২০১৭

সিলেট

নাটোরে নিখোঁজ ধর্মযাজক সিলেটে উদ্ধার

সিলেট ব্যুরো ও নাটোর সংবাদদাতা

০১ ডিসেম্বর ২০১৭,শুক্রবার, ১৮:৪৭ | আপডেট: ০১ ডিসেম্বর ২০১৭,শুক্রবার, ২১:০৩


প্রিন্ট
ফাদার ওয়াল্টার উইলিয়াম রোজারিও

ফাদার ওয়াল্টার উইলিয়াম রোজারিও

নাটোরের বড়াইগ্রামের জোনাইল সেন্ট লুইস উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও জোনাইল ধর্মপল্লীর সহকারী পাল-পুরোহিত ফাদার ওয়াল্টার উইলিয়াম রোজারিওকে (৪১) সিলেট থেকে উদ্ধার করা হয়েছে।

আজ শুক্রবার দুপুরে দক্ষিণ সুরমার কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল এলাকা থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়।

একটি সূত্র জানায়, পুলিশ সদর দপ্তর ও নাটোর জেলা পুলিশ যৌথভাবে অভিযান চালিয়ে উইলিয়াম রোজারিওকে উদ্ধার করে। তিনি দক্ষিণ সুরমা বাস টার্মিনাল থেকে শ্যামলী পরিবহনের একটি বাসে অন্য কোথাও যাচ্ছিলেন। সিলেট মহানগর পুলিশের কমিশনার গোলাম কিবরিয়া নাটোরের নিখোঁজ ফাদারকে উদ্ধার করার বিষযটি নিশ্চিত করে জানান, তাকে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

সিলেট দক্ষিণ সুরমা থানা পুলিশের ওসি খায়রুল ফজল মোবাইলে জানান, আজ বিকেল চারটার দিকে ফাদার ওয়াল্টার উইলিয়াম রোজারিওকে সিলেটের দক্ষিণ সুরমার কদমতলী বাস টার্মিনাল এলাকার শ্যামলী বাস কাউন্টার থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। তিনি সুস্থ আছেন, বর্তমানে তিনি দক্ষিণ সুরমা থানায় পুলিশ হেফাজতে আছেন।

ফাদার ওয়াল্টারের বড়ভাই গ্রামীণ ফোনের উর্ধতন কর্মকর্তা অমল রোজারিও জানান, দুবেলা ৩টার দিকে একটি অপরিচিত মোবাইল নাম্বার থেকে তার নিখোঁজ হওয়া ভাই ফাদার ওয়াল্টার ফোন করে প্রথমে কান্নাকাটি করে। পরে সে জানায়, অপহরণকারীদের কাছে থেকে পালিয়ে এসে সিলেটের কদমতলী বাসস্ট্যান্ডের শ্যামলী কাউন্টারে আশ্রয় নিয়েছে। পরবর্তীতে বড় ভাই অমল রোজারিও শ্যামলী কাউন্টারের মাস্টারকে ফোনে জানান তার ভাই অপহৃত হয়েছিল। তিনি ভাইয়ের নিরাপত্তা চেয়ে দ্রুত পুলিশ হেফাজতে দেয়ার জন্য কাউন্টার মাস্টারকে অনুরোধ করেন। পরবর্তীতে দক্ষিণ সুরমা থানার পুলিশ ফাদার ওয়াল্টারকে নিরাপদ হেফাজতে নিয়ে নেন।

নাটোর ডিবি পুলিশের ওসি আব্দুল হাই বিষয়টির সত্যতা স্বীকার করে জানান, ঢাকা থেকে গোয়েন্দা পুলিশের একটি বিশেষ টিম সংবাদ পাওয়া মাত্র তাকে আনতে সিলেটের উদ্দেশে রওনা হয়েছে। পাশাপাশি নাটোর থেকে একটি টিম নিয়ে আমি ঢাকায় যাচ্ছি।

নাটোরের পুলিশ সুপার বিপ্লব বিজয় তালুকদার জানান, উদ্ধারকৃত ফাদার ওয়াল্টার উইলিয়াম রোজারিওকে নাটোরে আনার পর তার নিখোঁজের রহস্য উদঘাটন হবে। পরে এ ব্যাপারে বিস্তারিত জানানো হবে।

এদিকে, তার উদ্ধারের সংবাদে স্বজন ও উপজেলার চারটি ধর্মপল্লীসহ উপজেলার সাধারণ মানুষের মাঝে স্বস্তি ফিরে এসেছে। বিকেল ৫টার দিকে বনপাড়া মিশন পাড়ায় বাড়িতে ফাদার ওয়াল্টারের গিয়ে দেখা গেছে, পরিবারের সবাই টিভির সামনে বসে আছেন।

এ সময় ফাদার ওয়াল্টারের মা পাত্রিশিয়া গমেজ জানান, টিভির খবরে দেখেছি ছেলে উদ্ধার হয়েছে। তিনি দ্রুত তার সন্তানকে তার কাছে নিয়ে আসার অনুরোধ জানান।

উল্লেখ্য, গত ২৬ নভেম্বর বিকেল ৪টার দিকে নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলার বনপাড়া মিশন মার্কেট থেকে জোনাইল ধর্মপল্লীর উদ্দেশ্যে রওনা দেয়ার পর থেকে ফাদার ওয়াল্টার উইলিয়াম রোজারিও নিখোঁজ ছিলেন। পরদিন দুপুরে তার নিখোঁজ হওয়ার সংবাদ থানা পুলিশ ও প্রশাসনকে জানালে তাকে উদ্ধারে ব্যাপক তৎপরতা শুরু হয়েছে। এ ব্যাপারে বড়াইগ্রাম থানায় জিডি করা হয়েছে। গত কয়েকদিন ধরে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর প্রায় ১০টি টিম তাকে উদ্ধারে ব্যাপক তৎপরতা চালিয়ে অবশেষে সিলেট থেকে তাকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে। পাল-পুরোহিত ওয়াল্টার বনপাড়া পৌর শহরের মিশন পাড়া এলাকার মৃত সিলভেস্টার রোজারিও’র পুত্র। একই মহল্লায় প্রায় এক বছর আগে উগ্রবাদী হামলায় ব্যবসায়ী সুনীল গোমেজ খুন হন।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫