ঢাকা, শনিবার,১৬ ডিসেম্বর ২০১৭

রংপুর

রসিক নির্বাচন : আপিলে জয় বিএনপি-মনোনীত প্রার্থীর

সরকার মাজহারুল মান্নান রংপুর অফিস

৩০ নভেম্বর ২০১৭,বৃহস্পতিবার, ১৭:৫০


প্রিন্ট
রসিক নির্বাচন : আপিলে জয় বিএনপি-মনোনীত প্রার্থীর

রসিক নির্বাচন : আপিলে জয় বিএনপি-মনোনীত প্রার্থীর

আগামী ২১ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিতব্য রংপুর সিটি কর্পোরেশনে নির্বাচনে লড়াইয়ের জন্য মনোনয়ন যাছাই-বাছাইয়ে টিকে গেলেও সোনালী ব্যাংকের আপিল শুনানিতে আইনি লড়াইয়ে অবশেষে প্রার্থিতা নিশ্চিত হলো বিএনপি-মনোনীত প্রার্থী কাওছার জামান বাবলার। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রংপুর বিভাগীয় কমিশনার কাজী হাসান আহমেদ শুনানি শেষে তার প্রার্থিতা বৈধ হওয়ার আদেশ দেন। এরমাধ্যমে এ নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থিতা থাকল। অন্যদিকে আপিলকারী অন্য ৬ স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী এবং ২ সংরক্ষিত ও ৫ সাধারণ কাউন্সিলর প্রাথীর মনোনয়ন অবৈধ ঘোষণা করা হয়েছে ওই আদালতে।

রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তার সহায়ক কর্মকর্তা আবু সাঈম জানান, গত ২৫ ও ২৬ তারিখে মনোনয়নপত্র যাছাই বাছাইয়ে বিএনপি প্রার্থী কাওছার জামান বাবলার মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা করেছিলাম আমরা। কিন্তু গত মঙ্গলবার সোনালী ব্যাংক মতিঝিল ফরেন এক্সচেঞ্জ শাখার জেনারেল ম্যানেজারের নেতৃত্বে টিম ঢাকা থেকে রংপুর এসে বাবলার বিরুদ্ধে ঋণ খেলাপির অভিযোগ এনে মনোনয়নপত্র বাতিল চেয়ে আপিল কর্তৃপক্ষ রংপুর বিভাগীয় কমিশনারের কাছে আপিল করেন। ওই আপিলের বাদি ছিলেন সোনালী ব্যাংকের সহকারী ম্যানেজার ইয়াসিন আলী।

বৃহস্পতিবার শুনানি শেষে আপিল কর্তৃপক্ষ বিভাগীয় কমিশনার বাবলার মনোনয়নের বিষয়ে স্থানীয় সরকার (সিটি করপোরেশন নির্বাচন) ২০১০,-এর ১৪ বিধি অনুসারে নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্তকে বহাল রেখেছেন।

এদিকে বেলা সাড়ে তিনটার দিকে বিভাগীয় কমিশনারের আপিল কক্ষে সুপ্রীম কোর্ট বার এসোসিয়েশনের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার বদরুদ্দোজা বাদলের নেতৃত্বে একটি আইনজীবি প্যানেল বাবলার বিষয়ে আপিল শুনানিতে অংশ নেন।

এসময় ব্যারিস্টার বদরুদ্দোজা আপিল কর্তৃপক্ষকে বলেন, সোনালী ব্যাংকের ঋণ খেলাফীর বিষয়ে বাবলার বিরুদ্ধে যে আবেদন করা হয়েছে, তা সঠিক নয়। কারন গত ২২ নভেম্বর বাবলা বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ সিআইবি রিপোর্টের প্রত্যয়ন পত্র দিয়েই মনোনয়ন জমা দিয়েছিলেন। যাছাই বাছাইয়ে ওই মনোনয়ন বৈধ করেছে নির্বাচন কমিশন। এখন তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ সত্য নয়।

এ ব্যাপারে আপিল কর্তৃপক্ষের কাছে কাগজপত্র ও আইনি ব্যাখ্যা দেন বাবলার আইনজীবি। অন্যদিকে আপিলকারী সোনালী ব্যাংকের পক্ষে আইনজীবি ছিলেন উৎপল আদনান। তাদের কাছ থেকে শুনানী শেষে বিভাগীয় কমিশনার বিএনপি প্রার্থী কাওছার জামান বাবলার মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা করেন।

মনোনয়ন বৈধ ঘোষণার পর কাওছার জামান বাবলা সাংবাদিকদের জানান, আমার প্রার্থিতা নিয়ে ষড়যন্ত্র জল্পনা কল্পনা চলছিল। আল্লাহর রহমতে সেই ষড়যন্ত্র নস্যাত হয়েছে। আমি প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছি। এটা এই নির্বাচনে ধানের শীষের প্রাথমিক বিজয়। আশাকরি চূড়ান্ত বিজয়ও ধানের শীষেরই হবে।

এদিকে রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তার সহায়ক কর্মকর্তা আবু সাঈম আওর জানান, মনোনয়ন যাচাই বাছাইয়ে বাতিল হওয়া মেয়র পদের প্রার্থী এ কে এম আব্দুর রউফ মানিক, সুইটি আনজুম, আব্দুল মজিদ বীর প্রতীক, নাজমুল ইসলাম নাজু, শাকিল রায়হান ও মেহেদী হাসান বনির আপিলও খারিজ করে দিয়েছে আপিল কর্তৃপক্ষ বিভাগীয় কমিশনার।

এছাড়া সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ৪ নং ওয়ার্ডের মোমেনা খাতুন ও ৬ নং ওয়ার্ডের রজফুা খাতুন এবং সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৩ নং ওয়ার্ডের গোলাম মোস্তফা, ২৬ নং ওয়ার্ডের শেখ শাহজাহান আলম ও ১৭ নং ওয়ার্ডের নূর আলমের মনোনয়ন বৈধ করেছে আপিল কর্তৃপক্ষ। এছাড়াও শুনানিতে ২৬ নং ওয়ার্ডের নুরুল হক মিলন, ১২ নং ওয়ার্ডের রবিউল আবেদীন রতন, ৪ নং ওয়ার্ডের আবু সাইদ, ৬ নং ওয়ার্ডের আব্দুর রউফ ডাবলু, ৪ নং ওয়ার্ডের আবু সাঈদ, ৮ নং ওয়ার্ডের বেলাল হোসেন ও নুরুল হক মিলন এবং সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ৩ নং মহিলা ওয়ার্ডের মাজেদা খাতুন ও সামসুন্নাহারের প্রার্থিতা বাতিল সংক্রান্ত নির্বাচন কমিশনের দেয়া আদেশ বহাল রেখেছে আপিল কর্তৃপক্ষ।

বিভাগীয় কমিশনারের কাছে আপিল শুনানির পর এখন রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বচানে মেয়র পদে জাথীয় পার্টির মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা, আওয়ামীলীগের সরফুদ্দীন আহম্মেদ ঝন্টু, বিএনপির কাওছার জামান বাবলা, বাসদের আব্দুল কুদ্দুস, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের গোলাম মোস্তফা বাবু, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির সেলিক আখতার এবং জাতীয় পার্টির বিদ্রোহী প্রার্থী সাবেক প্রেসিডেন্ট হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের ভাতিজা সাবেক এমপি হোসেন মকবুল শাহরিয়ার আসিফ মাঠে থাকলেন। এছাড়াও ১১ টি সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদের জন্য ৬৩ জন এবং ৩৩ টি সাধারণ কাউন্সিলর পদের ২১৮ জন প্রার্থী মাঠে থাকলেন।

রংপুর সিটি কর্পোরেশনে নির্বাচনে লড়াইয়ের জন্য মনোনয়ন দাখিলকারীদের মধ্যে মেয়র পদে ১৩ জন, মহিলা কাউন্সিলর পদে ৬৭ জন এবং সাধারণ কাউন্সিলর পদে ২২৬ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন। প্রার্থিরা মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহার করতে পারবেন ৩ ডিসেম্বর এবং প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হবে ৪ ডিসেম্বর । মোট ১৯৬ টি ভোটকেন্দ্রের ১ হাজার ১৭৭টি ভোটকক্ষে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এবার এখানে ৩ লাখ ৮৮ হাজার ৪২১ ভোটারের মধ্যে রয়েছেন পুরুষ ১ লাখ ৯৬ হাজার ৬৫৯ এবং নারী ১ লাখ ৯১ হাজার ৭৬২ জন। ২০১২ সালের ২০ ডিসেম্বর প্রথমবারের মতো রংপুর সিটি করপোরেশনে ভোট হয়েছিল।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫