আশুলিয়ায় ডিবি পুলিশ পরিচয়ে শিশু অপহরণ, স্বামী-স্ত্রী আটক

আশুলিয়া (ঢাকা) সংবাদদাতা

শিল্পাঞ্চল আশুলিয়ায় ডিবি মহিলা পুলিশ পরিচয়ে শিশু সাজ্জাদুর রহমান (৪) সাকিবকে অপহরণ করে সরিয়ে রেখে ভাড়াকরা কক্ষ ছেড়ে দিতে গেলে আটক হয়েছে অপহরণকারি দলের এক নারী ও তার স্বামী। পরে অপহৃত শিশুটিকে প্রায় দুই কিলোমিটার দূরে একটি বাড়ি থেকে উদ্ধার করেছে এলাকাবাসী। আটককৃতদের থানায় সোপর্দ ও শিশুটিকে উদ্ধার করে থানায় আনা হয়েছে।

আজ বুধবার সকাল সাড়ে ১০টায় আশুলিয়ার চাকলগ্রাম এলাকার আনোয়ার হোসেনের বাড়িতে অপহরণের এ ঘটনা ঘটে।

আটককৃতরা হলো- গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়া বাঁশবাড়ি এলাকার ফরিদ মোল্লার মেয়ে ডিবি মহিলা পুলিশ পরিচয়দানকারি পিয়া আক্তার (২২) ও তার স্বামী মাগুরা জেলার সালিথা থানাধীন শতখালি গ্রামের খলিলুর রহমানের ছেলে আলী হোসেন (২৭)।

তারা আশুলিয়ার চাকলগ্রাম এলাকার আনোয়ার হোসেনের বাড়ির ভাড়াটিয়া। আলী হোসেন রাজমিস্ত্রির কাজ করেন।

এ ব্যাপারে অপহৃত শিশুর পিতা আনোয়ার হোসেন বলেন, দুই মাস আগে আলী হোসেন ও তার স্ত্রী পিয়া তার বাড়ির একটি কক্ষ ভাড়া নেন। সে সময় স্ত্রী পিয়া নিজেকে ডিবি মহিলা পুলিশ হিসেবে পরিচয় দেন। একটি ঘটনায় তিন মাস ধরে তিনি সাময়িক বরখাস্ত রয়েছেন বলে জানান। স্বামী আলী হোসেন এলাকায় রাজমিস্ত্রির কাজ করেন। অপহরণের ঘটনার দু’দিন আগে তারা ঘর ছেড়ে দেয়ার কথা বলেন। বুধবার তাদের চলে যাওয়ার কথা ছিল।

আনোয়ার হোসেন বলেন, আজ সকাল সাড়ে ১০টায় তার চার বছরের শিশু পুত্র সাজ্জাদুর রহমান সাকিব আল আমিন, ওয়াসিম ও মাহিনুরসহ ৪/৫ টি শিশুর সাথে খেলা করছিল। এসময় ডিবি পুলিশ পরিচয়দানকারি পিয়া সাকিব ও আল আমিনকে প্রলোভন দেখিয়ে বাড়ির বাহিরে নিয়ে যান। পথিমধ্যে আল আমিন ছুটে দৌঁড়ে চলে আসে। একপর্যায়ে সাকিবকে প্রায় দুই কিলোমিটার দূরে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের নিকটবর্তী কোহিনুর গেট সংলগ্ন স্টার্লিং গার্মেন্টসের পাশে আনজুয়ারা বেগম নামে এক পোশাককর্মীর ভাড়া বাসায় নিয়ে যান। সেখানে পিয়া সাকিবকে রেখে চাকলগ্রামের আনোয়ার হোসেনের ভাড়া বাসায় যান। বাসা ছেড়ে দিয়ে চলে যাওয়ার সময় বাড়ির মালিক আনোয়ারের স্ত্রী সুইটি বেগম সাকিবকে পাওয়া যাচ্ছে না বলে জানান। তখন বেলা ১১টা। পরিবারের সদস্যরা সাকিবের খোঁজে বের হয়ে ওর খেলার সাথীদের জিজ্ঞাসাবাদ করলে তারা জানায়, সাকিব তার পুলিশ আন্টির সাথে গেছে। আল আমিন জানায়, সে গেলেও পথিমধ্যে চলে আসে। তখন পিয়া ও তার স্বামীকে আটক করা হয়।

ওদিকে সাকিব আনজুয়ারার বাসায় কান্নাকাটি শুরু করলে এলাকার লোকজন একটি ছেলে শিশু পাওয়া গেছে বলে মাইকিং করেন। এসময় কিছু লোক সাকিবদের বাড়িতে গিয়ে হাজির হন। সেখানে ডিবি পরিচয়দানকারি পিয়া ও তার স্বামী আলী হোসেনকে উত্তম মধ্যম দিয়ে থানায় সোপর্দ করে এবং শিশুটিকে থানায় নেয়া হয়।

এ ব্যাপারে আশুলিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল আউয়াল বলেন, যেহেতু অপহরণকারীরা মারধরের শিকার হয়েছে তাই তাদেরকে গণস্বাস্থ্য সমাজ ভিত্তিক হাসপাতালে চিকিৎসার জন্যে পাঠানো হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে মামলা গ্রহণের প্রস্তুতি চলছে বলে তিনি জানান।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.