ঢাকা, সোমবার,১১ ডিসেম্বর ২০১৭

মধ্যপ্রাচ্য

সাইবার হামলায় বিপর্যস্ত সৌদি আরব

এএফপি

২২ নভেম্বর ২০১৭,বুধবার, ০৫:৫৬ | আপডেট: ২২ নভেম্বর ২০১৭,বুধবার, ০৬:৩১


প্রিন্ট
সৌদি আরবে প্রজণ্ড সাইবার হামলা

সৌদি আরবে প্রজণ্ড সাইবার হামলা

সৌদি আরবের সরকারি কম্পিউটারগুলো সাইবার হামলার শিকার হয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির কর্তৃপক্ষ। সৌদি সরকারের জাতীয় সাইবার নিরাপত্তা কেন্দ্র জানায়, পাওয়ারশেল ম্যালওয়ার দিয়ে এ হামলা চালানো হয়। তবে কারা এ হামলা চালিয়েছে কিংবা কাদের লক্ষ্য করে হামলা চালানো হয় সে বিষয়ে বিস্তারিত জানানো হয়নি।


এক বিবৃতিতে সংস্থাটি জানায়, ‘সৌদি আরবকে লক্ষ্য করে চালানো একটি অ্যাডভান্স পার্সিসটেন্ট থ্রেট (এপিটি) শনাক্ত করতে সক্ষম হয়েছে সাইবার নিরাপত্তা কেন্দ্র। মূলত ই-মেইল সংগ্রহ করার চেষ্টা করেছিল হ্যাকাররা।’ সৌদি আরবে প্রায়ই এমন সাইবার হামলা হয়ে থাকে। সর্বশেষ ২০১২ সালে শ্যামুন নামে একটি ম্যালওয়ারের হামলার ঘটনা অনেক আলোড়ন তুলেছিল। মার্কিন গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের ধারণা সৌদি আরবের প্রতিদ্বন্দ্বী ইরান এ হামলা চালিয়ে থাকতে পারে।

তবে এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে ইরান। এর মধ্যে এমন সাইবার হামলার শিকার হওয়ায় ধারণা করা হচ্ছিল। এটি ইরান-সৌদি ছায়াযুদ্ধেরই অংশ বলে মনে করা হচ্ছে।


ঋণ পাচ্ছে না প্রিন্স ওয়ালিদের কোম্পানি
রয়টার্স জানায়, সৌদি আরবভিত্তিক শীর্ষস্থানীয় আন্তর্জাতিক বিনিয়োগকারী কোম্পানি কিংডম হোল্ডিংসের নতুন বিনিয়োগের জন্য ঋণ গ্রহণের পরিকল্পনা থমকে গেছে। সৌদি আরবে সাম্প্রতিক দুর্নীতিবিরোধী অভিযানে কোম্পানিটির মালিক প্রিন্স আলওয়ালিদ বিন তালাল আটক হওয়ার কারণে এমন পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে।

চারটি ব্যাংক সূত্রে এ খবর জানা গেছে। কিংডম হোল্ডিংসের ঋণের জন্য ব্যাংকের দ্বারস্থ হয়েছিল; কিন্তু সেই আর্থিক পরিকল্পনাটি এখন স্থগিত করা হয়েছে। সূত্র জানিয়েছে, আটক সৌদি প্রিন্সের কোম্পানিকে ঋণ দেয়া হলে প্রতিক্রিয়া হতে পারে বলে ঋণদাতাদের মধ্যে উদ্বেগ রয়েছে। আর সে কারণে তারা ঋণ দিতে আগ্রহী নন।

কিংডম হোল্ডিংসের ঋণ গ্রহণের সিদ্ধান্ত স্থগিত করার মধ্য দিয়ে বোঝা যায় সৌদি আরবের নতুন ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ডের গতি ধীর হয়ে পড়েছে। এ ব্যাপারে জানতে চাওয়া হলে কিংডম হোল্ডিংসের প্রধান আর্থিক কর্মকর্তা মোহাম্মদ ফাহমি দাবি করেছেন, তার কোম্পানি কোনো ব্যাংকের কাছ থেকে ঋণের আনুষ্ঠানিক প্রতিশ্রুতি চায়নি। কোনো আর্থিক চুক্তির শর্তও কখনো চূড়ান্ত হয়নি।

বিভেদ সৃষ্টি থেকে বিরত থাকতে সৌদির প্রতি কাতারের আহ্বান

সিএনএন
মধ্যপ্রাচ্যে চলমান অস্থিরতায় আধিপত্য বিস্তারে সৌদি আরবকে সব অনৈক্য বন্ধ করার আহ্বান জানিয়েছে কাতার। দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুর রহমান আলে সানি বলেন, ‘ক্ষমতার খেলায় সবরকমের অনৈক্য বন্ধ করুন।’

ওয়াশিংটনে সেন্টার ফর ন্যাশনাল ইন্টারেস্টে এ কথা বলেন আলে সানি। তিনি বলেন, এই ক্ষমতাধর দেশগুলো তাদের আধিপত্য বিস্তারে ওঠেপড়ে লেগেছে। ফলে মানবিক পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে, যোগযোগ বন্ধ হয়ে গেছে, ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ব্যবসা।’

গত ৫ জুন সন্ত্রাসবাদে সমর্থনের অভিযোগ এনে কাতারের সাথে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করে সৌদি আরব, বাহরাইন, কাতার, মিসরসহ কয়েকটি দেশ। সৌদি প্রতিদ্বন্দ্বী ইরানের সাথে সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ আনা হয় তাদের বিরুদ্ধে। বলা হয় সন্ত্রাসবাদে সমর্থন দিচ্ছে কাতার। তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছে দেশটি। এরপরও থেমে থাকেনি সৌদি আরব। গত দুই সপ্তাহ ধরে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে চলছে ছায়াযুদ্ধ। আধিপত্য বিস্তারের খেলায় মেতেছে মধ্যপ্রাচ্যের দুই শক্তি। ১৯৭৯ সালের বিপ্লবের পর থেকেই ইরানকে প্রতিপক্ষ হিসেবে বিবেচনা করে আসছে সৌদি আরব। সৌদি আরবের আশঙ্কা, ইরান তাদের চ্যালেঞ্জ জানাতে পারে।

ইরাকযুদ্ধ ও আরব বসন্তের সুযোগ নিয়ে বাড়াতে পারে আঞ্চলিক প্রভাব। বাগদাদ, দামেস্ক, সানা ও বৈরুতের ধারাবাহিকতায় তেহরান মধ্যপ্রাচ্যের বাদবাকি দেশগুলোকে নিজেদের কব্জায় নিতে পারে বলেও আশঙ্কা রয়েছে সৌদি আরবের। এই বাস্তবতায় মধ্যপ্রাচ্যে নিজেদের কর্তৃত্ব নিরঙ্কুশ করার লড়াইয়ে নেমেছে তারা। দেশের অভ্যন্তরে দুর্নীতিবিরোধী লড়াইয়ের নামে আর ইরান ঘনিষ্ঠ ইয়েমেন-লেবাননের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণার অভিযোগ তুলে তেহরানবিরোধী ছায়াযুদ্ধ শুরু করে সৌদি আরব।

‘ক্ষমতাধর রাষ্ট্রগুলোর’ উদ্দেশ্য নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন কাতারি পররাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি ইয়েমেনে অবরোধ ও লেবাননের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপের জন্য সৌদি সরকারের সমালোচনা করেন। তিনি বলেন, এই ক্ষমতাধর রাষ্ট্রগুলোর আধিপত্য বিস্তারের খেলায় অন্য সরকারগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে, আতঙ্কিত হচ্ছে জনগণ।

ফ্রান্স থেকে মিসর গেলেন হারিরি

এপি
ফ্রান্স থেকে মিসর গেলেন লেবাননের প্রধানমন্ত্রী সাদ হারিরি। মঙ্গলবার তিনি প্যারিস ত্যাগ করেন। তবে আজ বুধবার তিনি মিসর থেকে লেবানন পৌঁছবেন।


পদত্যাগকে কেন্দ্র করে লেবাননে রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা থাকলেও হারিরিকে মঙ্গলবার বেশ স্বাভাবিক দেখা গেছে। শনিবার তিনি সৌদি আরব থেকে ফ্রান্সের প্যারিসে নিজ বাড়িতে পৌঁছেন। প্যারিস পৌঁছে তিনি ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁর সাথে সাক্ষাৎ করেন। মঙ্গলবার কায়রো যান হারিরি। সেখানে তিনি আরব লিগের সম্মেলনে যোগ দেনে।

আঞ্চলিক উত্তেজনা কমাতে আরব লিগ বৈঠকে বসেছে। বুধবার তিনি লেবানন পৌঁছে নিজের অবস্থান জানাবেন। রিয়াদ সফরকালে ৪ নভেম্বর হারিরি পদত্যাগের ঘোষণা দিলে সৌদি আরব ও লেবাননের মধ্যে টানাপড়েন শুরু হয়।

ফ্রান্স থেকে মিসর গেলেন লেবাননের প্রধানমন্ত্রী সাদ হারিরি। মঙ্গলবার তিনি প্যারিস ত্যাগ করেন। তবে আজ বুধবার তিনি মিসর থেকে লেবানন পৌঁছবেন।
পদত্যাগকে কেন্দ্র করে লেবাননে রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা থাকলেও হারিরিকে মঙ্গলবার বেশ স্বাভাবিক দেখা গেছে। শনিবার তিনি সৌদি আরব থেকে ফ্রান্সের প্যারিসে নিজ বাড়িতে পৌঁছেন। প্যারিস পৌঁছে তিনি ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁর সাথে সাক্ষাৎ করেন। মঙ্গলবার কায়রো যান হারিরি। সেখানে তিনি আরব লিগের সম্মেলনে যোগ দেনে। আঞ্চলিক উত্তেজনা কমাতে আরব লিগ বৈঠকে বসেছে। বুধবার তিনি লেবানন পৌঁছে নিজের অবস্থান জানাবেন। রিয়াদ সফরকালে ৪ নভেম্বর হারিরি পদত্যাগের ঘোষণা দিলে সৌদি আরব ও লেবাননের মধ্যে টানাপড়েন শুরু হয়।

 

  • সর্বশেষ
  • পঠিত

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫