ঢাকা মেডিক্যাল থেকে শিশু চুরি, নারায়ণগঞ্জে উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের নতুন ভবন থেকে চুরি হওয়া শিশু জিমকে নারায়ণগঞ্জ থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার বিকেলে তাকে ফতুল্লা থানা এলাকার একটি মার্কেট থেকে উদ্ধার করা হয়।

ফতুল্লা থানার ডিউটি অফিসার এসআই রোখসানা আক্তার জানান, শাহবাগ থানা পুলিশের সহযোগিতায় ফতুল্লা থানা পুলিশের এসআই সাইফুল হকের নেতৃত্বে একটি টিম শিশু জিমকে উদ্ধার করেছে। এ ঘটনায় দুইজনকে আটক করা হয়েছে। রাতে এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মাসের ওই শিশুটি ফতুল্লা থানায় রয়েছে। এই ঘটনায় হাসপাতালের পক্ষ থেকে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

জিমের মা সুমাইয়া জানান, তার স্বামী জুয়েল ডায়াবেটিস ও কিডনি রোগে আক্রান্ত হয়ে গত ৩১ অক্টোবর ঢামেক হাসপাতালের ৭০১ নম্বর ওয়ার্ডের ৪০ নম্বর বেডে ভর্তি হন। এরপর থেকে অ্যাটেনডেন্ট হিসেবে শিশুসহ তিনি স্বামীর সঙ্গে রয়েছেন। গত সোমবার পাশের ৪১ নম্বর বেডটি খালি থাকায় শিশুকন্যাকে নিয়ে ঘুমিয়ে পড়েন সুমাইয়া। রাত সাড়ে ১২টার দিকে হঠাৎ ঘুম ভাঙলে দেখেন তার মেয়ে কোলে নেই। তখনই কান্নাকাটি শুরু করেন তিনি। পরে অন্যান্য রোগী, রোগীর স্বজন ও হাসপাতালের কর্মকর্তা-কর্মচারীরাও ছুটে আসেন। তবে অনেক খোঁজাখুঁজি করেও জিমকে কোথাও পাওয়া যাচ্ছিল না।

নতুন ভবনে কর্মরত কয়েকজন কর্মচারী জানান, ঢামেক হাসপাতালের প্রত্যেকটি গেট দিয়ে প্রতিদিন কতজন শিশু বাইরে যায় এবং কতজন ভেতরে প্রবেশ করে তার হিসাব আনসার সদস্যদের কাছে লিপিবদ্ধ করতে হয়। তরপরও ওয়ার্ড থেকে শিশু চুরি হওয়াটা বেশ রহস্যজনক। বিষয়টি নিয়ে ঢামেক হাসপাতালে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

এদিকে শিশু চুরি যাওয়ার ঘটনায় মনোয়ারা বেগম নামে একজন মহিলাকে আটক করা হয়েছে। আটক মনোয়ারা বেগম দাবি করেছেন, ‘ওই শিশুর মা বাচ্চাটিকে তাদের কাছে ১০ হাজার টাকায় বিক্রি করে দিয়েছেন। হাসপাতালের ভিডিও ফুটেজ দেখলেই বিষয়টি পরিষ্কার হবে।’

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.