নারীর প্রতি সহিংসতার সব অভিযোগ লিপিবদ্ধ হয় না : তথ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক

তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, নারীর প্রতি সহিংসতার সব অভিযোগ লিপিবদ্ধ হয় না। সামাজিক মর্যাদাসহ নানা কারণে এই অবদমন রুখতে গণমাধ্যমকে আরো এগিয়ে আসতে হবে।

আজ সোমবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে ইউএসএইড-ডিএফআইডি’র সহায়তা পাথফাইন্ডার ইন্টারন্যাশনাল আয়োজিত ‘নারীর প্রতি সহিংসতা রোধে গণমাধ্যম ও আমাদের দায়বদ্ধতা’ সংলাপে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তথ্যমন্ত্রী এ আহ্বান জানান।

‘নারীর প্রতি সহিংসতার সব অভিযোগ লিপিবদ্ধ হয় না বিধায় এবিষয়ে স্পষ্ট ভাষণ অত্যন্ত জরুরি’ উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘গণমাধ্যমে নারীর অংশগ্রহণ বেড়েছে। প্রত্যেক গণমাধ্যম কার্যালয়ে নিরাপদ অভিযোগ বক্স রাখার বিকল্প নেই।’

হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘নারীর প্রতি শারীরিক, মানসিক, আর্থিক ও যৌন নির্যাতনরোধে ব্যাপক সচেতনতা তৈরি করতে পারে গণমাধ্যমই। সেইসাথে সব রাজনৈতিক দলের সভাগুলোতেও এবিষয়টি নিয়ে আলোচনা প্রয়োজন।’

তথ্যমন্ত্রী এসময় বাল্যবিবাহসহ নারী অধিকার ক্ষুণ্ণকারী সব প্রথার বিরুদ্ধে সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি সংস্থা ও গণমাধ্যমকে কাজ করার উদাত্ত আহ্বান জানান।

আয়োজক সংস্থার সিনিয়র কান্ট্রি ডিরেক্টর ড. হালিদা হানুম আখতারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন দৈনিক ভোরের কাগজের সম্পাদক শ্যামল দত্ত।

তথ্যমন্ত্রীর শোক
এদিকে ভারতের সাবেক তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী প্রিয়রঞ্জন দাশমুন্সির মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু।

২০০৮ সাল থেকে দীর্ঘ নয় বছর কোমায় থাকায় প্রিয়রঞ্জনকে ৭২ বছর বয়সে সোমবার দুপুরে দিল্লীর একটি হাসপাতালে ডাক্তাররা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

তথ্যমন্ত্রী তার শোকবার্তায় বলেন, ‘১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে যুবনেতা হিসেবে প্রিয়রঞ্জন দাশ মুন্সির ভূমিকা অবিস্মরণীয়। তার মৃত্যুতে বাংলাদেশ একজন প্রকৃত বন্ধু হারালো।’

হাসানুল হক ইনু প্রয়াতের আত্মার শান্তি কামনা করেন ও শোকাহত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.