ঢাকা, শুক্রবার,১৫ ডিসেম্বর ২০১৭

নারী

রিসিপশনে সুন্দরী নারী!  

আ মি ও ব ল তে চা ই

২০ নভেম্বর ২০১৭,সোমবার, ০০:০০


প্রিন্ট

বর্তমানে অফিস, হোটেল, ডায়াগনস্টিক সেন্টারসহ বিভিন্ন ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের রিসিপশনে নিয়োগ দেয়ার সময় সুন্দরী নারীদের অগ্রাধিকার দেয়া হয়। কিন্তু কেন? এতে কি নারীদের অবমাননা করা হচ্ছে না? মানে নারীর সৌন্দর্যকে কি ব্যবসায় বাড়ানোর কাজে বা মক্কেলদের আকর্ষণ করার জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে না?
মানুষের জীবন-মরণের যুদ্ধক্ষেত্র প্রাইভেট হাসপাতাল বা ক্লিনিকের রিসিপশনেও সুন্দরী নারী দেখা যায়। এর উদ্দেশ্য মানুষ এখন বুঝে! সুন্দরী নারী রিসিপশনে চাকরি করা অপরাধ নয়। তবে এটা অপরাধের মধ্যে পড়ে যখন নিয়োগের ক্ষেত্রে যোগ্যতাকে প্রাধান্য না দিয়ে রূপকে প্রাধান্য দেয়া হয়। আর সেটার পেছনে যদি সেবার বদলে ব্যবসায়িক মনোভাব থাকে। মানুষ সুন্দরের পুজারি ঠিক আছে। এসব প্রতিষ্ঠানে মালিকপক্ষের মনোভাব থাকে কর্মচারীর সৌন্দর্যকে ব্যবসার স্বার্থে ব্যবহার করা। তবে অনেকেই বারবার সে প্রতিষ্ঠানে মেয়েটিকে দেখার জন্য হলেও আসবে। এই যদি হয় মানসিকতা তাহলে একজন নারী যদি সুন্দর হয় তাহলে তার জন্য কাজ করা সত্যিই দুঃসাধ্য। প্রতিষ্ঠানের নি¤œ শ্রেণী থেকে উচ্চ শ্রেণী সবাই তার সাথে ভাব করার সুযোগ খোঁজে। এটাই বাস্তবতা। এভাবে নারীর সৌন্দর্যকে মুনাফার উদ্দেশ্যে চিন্তা করা নৈতিক অপরাধ।
নারীকে নারী নয় মানুষ হিসেবে দেখতে হবে। তার মর্যাদা সুন্দরের জন্য নয়, যোগ্যতায়। যত দিন না আমাদের দেশে এ মানসিকতার বিকাশ হবে তত দিন নারী হয়রানি থামবে না। তারা অফিসে, রাস্তায় নানা ধরনের হয়রানির শিকার হতেই থাকবে। তাই আসুন নিজেদের মানসিকতা বদলাই। নারীকে দেই তার প্রাপ্য মর্যাদা।

কাজী সুলতানুল আরেফিন
পূর্ব শিলুয়া, ছাগলনাইয়া, ফেনী

 

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫