ঢাকা, রবিবার,১৭ ডিসেম্বর ২০১৭

অপরাধ

পুরনো গাড়ির বিরুদ্ধে ডিএসসিসির অভিযান

নিজস্ব প্রতিবেদক

১৯ নভেম্বর ২০১৭,রবিবার, ২০:৫৬


প্রিন্ট

বিশ বছরের বেশি পুরনো এবং মেয়াদোত্তীর্ণ গাড়ির বিরুদ্ধে আবারো অভিযান শুরু করেছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি)।

আজ রোববার বেলা ১২টা থেকে অভিযান শুরু হয়।

তিন ভাগে বিভক্ত হয়ে এ অভিযান চলে বিকেল ৪টা পর্যন্ত।

অভিযানের প্রথম দিনেই ৬৬টি মামলা, একলাখ ২৭ হাজার ৬০০ টাকা জরিমানা, দুটি গাড়ি ডাম্পিং ও ১৪টি গাড়ির কাগজপত্র জব্দ করা হয়।

নগরীর যানজট ও যাত্রীদের দুর্ভোগ কমাতে গত মার্চে ব্যাপক অভিযান চালিয়েছিল ডিএসসিসি। তখন পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হলেও কিছুদিন না যেতেই আবারো একই অবস্থায় ফিরে এসেছে। ফলে আজ থেকে মেয়াদোত্তীর্ণ গাড়ির বিরুদ্ধে আবারো অভিযান শুরু করেছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি)। এতে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন সংস্থা (বিআরটিএ) ও ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) সহযোগিতা করছে।

নগরীর গোলাপশাহ মাজার ও খিলগাঁও খিদমাহ মেডিকেল সেন্টার সংলগ্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করেন বিআরটিএ এর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মুনিবুর রহমান ও মাজহারুল ইসলাম।

এছাড়া মতিঝিল সিটি সেন্টার এলাকায় অভিযান পরিচালনা করেন ডিএসসিসির নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইলিয়াস মিয়া।
ডিএসসিসি জানিয়েছে, অতিরিক্ত যাত্রী নেয়া, বাসের আসন নোংরা-ভাঙাচোরা থাকা এবং ভাড়ার তালিকা, রুট পারমিট, রেজিস্ট্রেশন, ট্যাক্স টোকেন না থাকাসহ বিভিন্ন অপরাধে ৬৬টি মামলা ও জরিমানা করা হয়। এছাড়া ২০ বছরের পুরানো গাড়ি হওয়ায় দুটি গাড়িকে ডাম্পিংয়ে পাঠানো হয়েছে। আগামী ১৪ কর্মদিবস পর্যন্ত ভ্রাম্যমাণ আদালতের এ অভিযান চলবে বলে জানানো হয়।

এ বিষয়ে অভিযানের প্রধান সমন্বয়ক ও ডিএসসিসির প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা কামরুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, লাইসেন্সবিহীন গণপরিবহন চালক, পুরোনো ও মেয়াদোত্তীর্ণ যানবাহনের জন্য প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটছে। এতে নাগরিকদের জীবন হুমকির মুখে পড়েছে। এ ছাড়া যত্রতত্র যানবাহন পার্ক করায় শহরে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। গণপরিবহন ব্যবস্থায় সুষ্ঠু শৃঙ্খলা না আসা পর্যন্ত এ অভিযান চলবে। তিনি বলেন, ড্রাইভিং লাইসেন্স ও বিআরটিএর আইন অনুযায়ী নূন্যতম শিক্ষাগত যোগ্যতা না থাকলে গণপরিবহন চালকদের আইনের আওতায় আনা হবে। পরিবহনশ্রমিকদের পক্ষ হয়ে কেউ বাধা দিলে তাঁকে ছাড় দেয়া হবে না।

কামরুল ইসলাম আরো বলেন, পরিবহন শ্রমিকদের নূন্যতম শিক্ষাগত যোগ্যতা না থাকায় তারা বেপরোয়াভাবে গাড়ি চালান। এতে প্রতিদিনই গণহারে মানুষকে প্রাণ দিতে হয়। এছাড়া তারা যাত্রীদের সাথে ভালো ব্যবহারও করে না। এসব অনিয়ম বন্ধে সবার আগে পরিবহনমালিকদের সচেতন হতে হবে।

এর আগে গত ৫ মার্চ থেকে প্রথম দফায় অভিযান পরিচালনা করেছিল সংস্থাগুলো। সে সময় টানা এক মাসের অভিযানে ৭২ চালককে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ ছাড়া এক হাজার ১৮৮টি মামলা, ২৬ লাখ এক হাজার ৫০ টাকা জরিমানা ও ৬৫টি বাস-মিনিবাস ডাম্পিংয়ে পাঠানো হয়।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫