স্মার্টবোমা কিনছে তুরস্ক
স্মার্টবোমা কিনছে তুরস্ক

স্মার্টবোমা কিনছে তুরস্ক

নয়া দিগন্ত অনলাইন

দেশের সামরিক শক্তি বৃদ্ধি করতে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে প্রায় ৭০ কোটি ডলারের স্মার্টবোমা ক্রয়ের চুক্তি করছে তুরস্ক।  তুরস্ক যেসব বোমা যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে ক্রয় করবে তার মধ্যে বিএলইউ-১০৯ বাঙ্কার বিধ্বংসী বোমাও থাকবে।

এই প্রথম এই জাতীয় বোমা তুরস্কের কাছে বিক্রি করছে যুক্তরাষ্ট্র। বিএলইউ-১০৯ বোমায় ট্রাইটোনাল নামে পরিচিত প্রায় সাড়ে পাঁচশ পাউন্ড বিস্ফোরক থাকে। ভূগর্ভে আঘাত হানা না পর্যন্ত এই বোমা বিস্ফোরিত হয় না। ইরাক এবং আফগানিস্তানে এই বোমা ব্যবহার করেছে যুক্তরাষ্ট্র।

কাতারকে তুরস্কের সামরিক সমর্থন

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগান পারস্য উপসাগরীয় দেশ কাতারকে সামরিক সমর্থন দেয়া অব্যাহত রাখবেন বলে প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছেন। বুধবার দোহায় কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আলে সানির সাথে বৈঠকে এ প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন।

বৈঠকে এরদোগান বলেন, ২০২২ সালের ফুটবল বিশ্বকাপ আয়োজনের জন্য যে মেগা প্রকল্প হাতে নিয়েছে দোহা তা বাস্তবায়নে বেসরকারি খাত থেকে সহায়তা দিতেও প্রস্তুত রয়েছে আংকারা। তিনি কাতারকে সবেেত্র বিশেষ করে শিল্প ও সামরিক খাতে সহায়তা অব্যাহত রাখার ঘোষণা দেন। সৌদিসহ কয়েকটি আরব রাষ্ট্রের সাথে যখন কাতারের চরম কূটনৈতিক অচলাবস্থা চলছে তখন কাতারকে এসব সহায়তা অব্যাহত রাখার প্রতিশ্রুতি দিলো তুরস্ক।

কাতারের সরকারি বার্তা সংস্থা জানিয়েছে, এরদোগান ও শেখ তামিমের মধ্যে অর্থনৈতিক পর্যটন ও গবেষণা সহায়তার জন্য কয়েকটি চুক্তি সই হয়েছে। কাতার সফরের আগে এরদোগান কুয়েত সফর করেন। সৌদি আরবসহ কয়েকটি আরব দেশের সাথে কাতারের মারাত্মক কূটনৈতিক সঙ্কট শুরুর পর এ নিয়ে তিনি দ্বিতীয়বার দোহা সফরে গেলেন।

মঙ্গলবার এরদোগান কাতারের রাজধানী দোহায় পৌঁছান এবং কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আলে সানির সাথে আলোচনা করেন। মাস খানেক আগে কাতারের আমির আংকারা সফর করেছিলেন এবং সে সময় দুই নেতার মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক হয়। কাতার সফরের সময় এরদোগান তুর্কি-কাতার সুপ্রিম স্ট্র্যাটেজিক কমিটির তৃতীয় বৈঠকে যোগ দেন। বৈঠকটি বুধবার অনুষ্ঠিত হয়।

ইরান-তুরস্ক-রাশিয়ার ঐক্য

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বলেছেন, ইরান ও তুরস্কের সঙ্গে তার দেশের সহযোগিতা দ্রুততম সময়ের মধ্যে সিরিয়া সংকটের সমাধান এনে দিয়েছে। রাশিয়ার সোচি শহরে সোমবার তুর্কি প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগানের সঙ্গে এক বৈঠকে এ মন্তব্য করেন পুতিন।

তিনি বলেন, ‘আমি সন্তোষের সঙ্গে বলতে চাই আস্তানা শান্তি প্রক্রিয়ায় নিশ্চয়তাকারী তিন দেশ রাশিয়া, ইরান ও তুরস্কের মধ্যেকার সহযোগিতা সিরিয়া সংকট সমাধানে বাস্তব ফল এনে দিয়েছে।’ তেহরান ও আঙ্কারার সঙ্গে মস্কো এই সহযোগিতা চালিয়ে যাবে বলে পুতিন প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।
বৈঠকে দুই নেতা দীর্ঘমেয়াদে সিরিয়ায় স্বাভাবিক অবস্থা ফিরিয়ে আনতে এবং একটি রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা সৃষ্টি করার লক্ষ্যে প্রচেষ্টা জোরদার করতে একমত হন।

রুশ প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘সিরিয়ায় সহিংসতা উল্লেখযোগ্য মাত্রায় কমে এসেছে। এখন জাতিসংঘের তত্ত্ববধানে সিরিয়ার বিভিন্ন দল ও পক্ষের মধ্যে সংলাপ চালিয়ে নেয়ারও উপযুক্ত পরিবেশ তৈরি হয়েছে।’

ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে বৈঠকে তুর্কি প্রেসিডেন্ট এরদোগান বলেন, সিরিয়াসহ মধ্যপ্রাচ্যে চলমান সহিসতা কমিয়ে আনতে আস্তানায় অনুষ্ঠিত শান্তি বৈঠকগুলো ভূমিকা রেখেছে। এখন সিরিয়ায় রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠায় মনযোগী হতে হবে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

কাজাখস্তানের রাজধানী আস্তানায় এ পর্যন্ত সিরিয়া বিষয়ক সাত দফা বৈঠক হয়েছে। এসব বৈঠকে সিরিয়ার সরকার এবং সশস্ত্র বিদ্রোহী গ্রুপগুলো অংশ নিয়েছে। আর এসব বৈঠকের ফলাফল বাস্তবায়নের নিশ্চয়তা দিয়েছে ইরান, রাশিয়া ও তুরস্ক।

আস্তানা বৈঠকের উল্লেখযোগ্য ফলাফল ছিল সিরিয়ার ইদলিব, উত্তর হোমস এবং পূর্ব ও দক্ষিণ ঘৌতা এলাকাকে নিয়ে একটি নিরাপদ অঞ্চল ঘোষণা করা। ওই ঘোষণার পর সিরিয়ায় বিদেশি মদদে চাপিয়ে দেয়া সহিংসতা অনেকাংশে কমে যায়।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.