ঢাকা, শনিবার,১৬ ডিসেম্বর ২০১৭

অপরাধ

সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ

বসের অনৈতিক কর্মকাণ্ড দেখে ফেলায় হত্যা করা হয় সোহাগকে

নিজস্ব প্রতিবেদক

১৫ নভেম্বর ২০১৭,বুধবার, ১৯:৪৯


প্রিন্ট

বসের অনৈতিক কর্মকাণ্ড দেখে ফেলায় ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী দিয়ে হত্যা করা হয় কলেজ ছাত্র সোহাগকে। এরপর লাশ বালুচাপা দিয়ে গুম করার চেষ্টা করা হয়। কিন্তু রাতে বৃষ্টি হওয়ায় পানিতে বালু ভেসে গিয়ে লাশের পা জেগে ওঠে। এরপরই প্রতিবেশীরা বুঝতে পারে সোহাগকে হত্যা করে বালুচাপা দেয়া হয়েছে।

আজ বুধবার দুপুরে বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এমন অভিযোগ করেন নিহত সোহাগের পরিবার।

লিখিত বক্তব্যে সোহাগের বাবা মোশাররফ হোসেন বলেন, ঢাকার অদুরে দক্ষিণ-কেরানীগঞ্জের রাজাবাড়ি গ্রামের এইচএসসি’র ছাত্র সোহাগ স্থানীয় জাকির হোসেনের একটি প্রোজেক্টে দেখা-শুনার চাকরি করতো। গত কয়েক মাস আগে ওই প্রজেক্টের একটি রুমে বিবাহিত জাকির হোসেন স্থানীয় একটি মেয়েকে নিয়ে অনৈতিক কাজে লিপ্ত হয়। যা দেখে ফেলে সোহাগ। এ ঘটনা কাউকে বললে সোহাগকে মেরে ফেলা হবে বলে হুমকি দেয় জাকির। কিন্তু সোহাগ ভয়ে তার কয়েকজন বন্ধুর কাছে বিষয়টি শেয়ার করে। তারা সোহাগকে চাকরি ছেড়ে দিতে পরামর্শ দেয়। এক পর্যায়ে জাকিরের ভয়ে সোহাগ চাকরি ছেড়ে দেয়। জাকির ধারনা করে সোহাগ তার অনৈতিক কর্মকাণ্ডের কথা ফাঁস করে দিতে পারে। গত ৩ জুলাই রাত সাড়ে ৮টার দিকে জাকির সোহাগকে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে যায়। এরপর বিল্লালসহ ৫/৬ জনের হাতে তুলে দেয়।

মোশাররফ আরো বলেন, সন্ত্রাসীরা সোহাগকে নির্মমভাবে হত্যা করে ওই রাতেই লাশ জাকিরের বাড়ির পেছনে পুকুরপাড়ে বালু চাপা দেয়। কিন্তু ওই রাতে প্রচুর বৃষ্টি হওয়ায় বালু সরে গিয়ে সোহাগের পা জেগে ওঠে। ওই দৃশ্য দেখে ফেলেন কয়েকজন প্রতিবেশী। পরে হত্যাকারীরা লাশ আড়াল করতে না পেরে সোহাগের পরিবারের কাউকে না জানিয়ে নিজেরাই লাশ মর্গে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় থানায় মামলা করতে গেলে পুলিশ মামলা গ্রহণ করেনি। পরে আদালতের নির্দেশে পুলিশ দুই আসামিকে গ্রেফতার করলেও তারা জামিনে বেরিয়ে আসে।

তিনি আরো বলেন, ঘটনার পর থেকে মামলা তুলে নিতে হুমকি দিয়ে আসছে সন্ত্রাসীরা। কিন্তু মামলা তুলে না নেয়ায় তারা উল্টো নিহত জাকিরের বাবা ও চার চাচাসহ অন্যদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করে হয়রানি করছে। বর্তমানে সোহাগ হত্যা মামলাটি পিবিআই তদন্ত করলেও আসামিরা সেখানে প্রভাব বিস্তারের পায়তারা করছে। এ অবস্থায় সোহাগ হত্যাকাণ্ড সুষ্ঠু তদন্ত করে দৃষ্টামূলক বিচারের জন্য প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, আইজিপিসহ সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহবান জানানো হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন, সোহাগের মা লায়লা বেগম, চাচা আমিন মিয়া, খোরশেদ মিয়া, মোর্শেদ মিয়া, চঞ্চল ও মামা শাকিল।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫