ঢাকা, মঙ্গলবার,২১ নভেম্বর ২০১৭

রংপুর

অভিযুক্ত টিটু রায় গ্রেফতার, ঘরে ফিরতে পাগলাপীরের লোকদের প্রতি আহ্বান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর

সরকার মাজহারুল মান্নান রংপুর অফিস

১৪ নভেম্বর ২০১৭,মঙ্গলবার, ১৮:৪২


প্রিন্ট
টিটু রায়

টিটু রায়

ফেসবুক পোস্টের জেরে রংপুরের পাগলাপীরের ঠাকুরটারীতে মুসল্লী-পুলিশ সংঘর্ষে গুলিতে হতাহত এবং হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িতে আগুন ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় গ্রেফতার আতঙ্কে থাকা ঘটনাস্থলের আশপাশের মানুষদের উদ্দেশ করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, সেদিনের ঘটনায় যারা আগুন দিয়েছে, ভাংচুর করেছে, তারা অপরাধী। আমি ঘোষণা দিচ্ছি, যারা নিরপরাধ তারা ঘরে ফিরে আসুন। কারো প্রতি কোনো অন্যায় করা হবে না। মঙ্গলবার ঘটনাস্থলে এক সম্প্রীতি সমাবেশে এই ঘোষণা দেন। এসময় তিনি নিশ্চিত করেন অভিযুক্ত টিটু রায়কে গ্রেফতার করা হয়েছে। সে প্রকৃত অপরাধী হলে তার সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে যা যা করা দরকার সব করা হবে।

বেলা আড়াইটায় পাগলাপীর হরকলি দ্বি-মুখি ফাজিল মাদরাসা মাঠে রংপুর জেলা পুলিশ প্রশাসন আয়োজিত সম্প্রীতি সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। পুলিশ সুপার মিজানুর রহমানের সভাপতিত্বে এসময় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী ড.বীরেন শিকদার, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণায়-সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি টিপু মুনশি, পুলিশের আইজি এ কে এম শহিদুল ইসলাম, রংপুর রেঞ্জ ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুক, রংপুর জেলা প্রশাসক ওয়াহিদুজ্জামান, জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মমতাজ উদ্দিন, সেক্রেটারী রেজাউল করিম, মহানগর সভাপতি সাফিউর রহমান সফি, সেক্রেটারী তুষার কান্তি মন্ডল, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান নাছিমা জামান ববি প্রমুখ।

এসময় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এ ঘটনায় যারা দোষী তারা যতই শক্তিশালী হোক না কেন তাকে আইনের আওতায় আনা হবে। টিটু রায়কে গ্রেফতার করা হয়েছে। সে যদি প্রকৃত অপরাধী হয়, ধর্ম অবমাননাকর পোস্ট দিয়ে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করার জন্য সে যদি এটা করে থাকে। তার সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করা হবে। আর যদি প্রমাণ হয় কেউ ষড়যন্ত্র করে তাকে ফাঁসিয়েছে। তাহলে সেটারও আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। আর যদি সেই ষড়যন্ত্র করে এই কাজটি করে থাকে। তাহলে সেটারও আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। নিরপরাধ কেউ এ ঘটনায় আইনের আওতায় আসবে না। এটা আমি ঘোষণা দিলাম।

সংঘর্ষ ও ভাংচুরের ঘটনার সাত দিন পর অভিযুক্ত যুবক টিটু রায়কে নীলফামারীর জলঢাকা থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তাকে নিবিড়ভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এর আগে তিনি ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, এ ঘটনায় পুলিশের কোনো গাফলতি ছিল না। তবুও বিষয়টি তদন্ত করা হবে। কোনো গাফলতি থাকলে তার ব্যবস্থা নেয়া হবে।

টিটু রায় গ্রেফতার : বুধবার ব্রিফিং দিবে পুলিশ
মঙ্গলবার টিটু রায়কে নীলফামারীর জলঢাকা থেকে গ্রেফতার করা হযেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। তবে তদন্তরত সংস্থাগুলোর সূত্রমতে টিটুকে আগেই গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় পুলিশ। বিষয়টির নিবিড় বিশ্লেষণ সাপেক্ষে এবং তাকে জিজ্ঞাসাবাদের মাধ্যমে ওই ঘটনার মধ্যে কোনো ষড়যন্ত্র কিংবা বিরোধী রাজনৈতিক জোটের কোনো পরিকল্পনা ছিল কিনা তা খতিয়ে দেখতে টিটু রায়কে জিজ্ঞাসাবাদে প্রাপ্ত তথ্য মিলিয়ে দেখছে আইনশৃংখলাবাহিনী। সে কারণে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নিজেই টিটু রায়ের গ্রেফতারের বিষয়টি সাংবাদিকদের জানান। আইডিটি যে টিটুরই তা শুধু মৌখিক স্বীকারোক্তি নয়, দালিলিকভাবে প্রমাণিত করতে টিটুর ফরেনসিক রিপোর্টের আসার অপেক্ষা করছে পুলিশ। সার্বিক বিষয় নিয়ে আজ পুলিশ কমিউনিটি হলে ব্রিফিং দিবে পুলিশ।
রংপুর পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান জানান, টিটু রায়কে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। সার্বিক বিষয়ে আজ পুলিশের পক্ষ থেকে ব্রিফিং করা হবে।

এদিকে তদন্ত সংস্থাগুলোর সূত্রমতে, ঘটনার সময় হিন্দু পল্লীর টিটুর বাড়িতে আগুন দেয়া হয় যখন তখন সেখানে কোনো বিক্ষোভকারী ছিল না। সেখানে ছিল পর্যাপ্ত পুলিশ প্রটেকশন। বিক্ষোভ যখন চলছিল রাস্তায়। তখন টিটোর বাড়িতে আগুন দেয়া হয়। পুলিশ উপস্থিত হয়ে আগুন নেভায়। সে সময় সেখানে কোন বিক্ষোভকারীকে দেখা যায় নি। কিছু লোকজন সেখানে থাকলেও তারা ছিলেন নিরব। এ বিষয়টি তারা গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করছে। আইন-শৃংখলা বাহিনী নিবিড় তদন্তের মাধ্যমে বের করতে চাইছে অভিযুক্ত টিটোর বাড়িতে কে আগুন দিয়েছে সে বিষয়টি।

নবী সা. ও কাবা শরীফ নিয়ে গ্রেফতার টিটু রায়ের ফেসবুক পোস্ট নিয়ে গত শুক্রবার জুমআর নামাজের পর পুলিশ মুসল্লি সংঘর্ষে হাবিবুর রহমান হাবিব নামের এক ফুটপাতের চায়ের দোকানের শ্রমিক নিহত হয়। এসময় দুর্বৃত্তরা হিন্দুদের ১১টি বাড়িঘরে হামলা করে আগুন দেয় এবং ভাংচুর চালায়। এ ঘটনায় পুলিশ অজ্ঞাত ৬ হাজার লোকের নামে দুটি মামলা করে। এ পর্যন্ত গ্রেফতার হয়েছে দেড় শতাধিক।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫