ঢাকা, মঙ্গলবার,২১ নভেম্বর ২০১৭

ক্রিকেট

বোমা ফাটালেন ওয়াকার ইউনিস

নয়া দিগন্ত অনলাইন

১৪ নভেম্বর ২০১৭,মঙ্গলবার, ১১:৫৩ | আপডেট: ১৪ নভেম্বর ২০১৭,মঙ্গলবার, ১১:৫৯


প্রিন্ট
ওয়াকার ইউনিস

ওয়াকার ইউনিস

পাকিস্তান সুপার লীগ (পিএসএল) টি-২০ টুর্নামেন্টের আগে দেশটির সাবেক অধিনায়ক ওয়াকার ইউনিস বলেছেন, ক্রিকেটে এখনো ফিক্সিং হচ্ছে। ম্যাচ গড়াপেটা কমিয়ে আনতে সমন্বিত উদ্যোগের ওপরও জোর দেন তিনি।

পাকিস্তান দলের কোচের দায়িত্ব পালন করা ওয়াকার বলেন, স্পট ফিক্সিং পাকিস্তান ক্রিকেটের ইমেজকে দারুণভাবে ক্ষুন্ন করেছে।

পিএসএল ফ্র্যাঞ্চাইজি ইসলামাবাদ ইউনাইটেডের এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘ম্যাচ ফিক্সিংয়ের মূল অনেক গভীরে। এখনো সব পর্যায়ের ক্রিকেটে ফিক্সিং হচ্ছে। সুতরাং সমন্বিতভাবে এটা উৎখাতে আমাদের সমন্বিত উদ্যগ প্রয়োজন।’

পিএসএলের আসন্ন তৃতীয় আসরে ইউনাইটেডের ডিরেক্টর হিসেবে দায়িত্ব পালন করতে যাওয়া ওয়াকার ম্যাচ ফিক্সিংয়ের বিষয়ে নজর রাখবেন এবং তরুণ ক্রিকেটারদের মনিটরিং করবেন বলেও উল্লেখ করেন।

তিনি বলেন, ‘আমার প্রধান কাজ হবে মাঠে এবং মাঠের বাইরে খেলোয়াড়দের গাইড করা এবং এ সব নোংরা কাজ থেকে দূরে থেকে কিভাবে সুন্দর একটা ক্যারিয়ার গড়া যায় সে বিষয়ে তাদের বলা।’

অবসর নিচ্ছেন সাঈদ আজমল

সব ধরণের ক্রিকেট থেকে অবসর নিচ্ছেন পাকিস্তানি অফ স্পিনার সাঈদ আজমল। রাওয়ালপিন্ডিতে চলমান ন্যাশনাল টি-২০ টুর্নামেন্ট শেষে ক্রিকেট থেকে অবসর নেবেন বলে গতকাল ঘোষণা দিয়েছেন তারকা এ স্পিনার। উইজডেন ইন্ডিয়া পত্রিকায় প্রকাশিত এক রিপোর্টে আজ এ কথা বলা হয়েছে।

২০১৪ সালে বোলিং অ্যাকশন অবৈধ ঘোষিত হওয়ার পর বেশ হতাশ হয়ে পড়েন গত মাসে ৪০ বছরে পা রাখা আজমল। সাবেক স্পিন গ্রেট সাকলাইন মুশতাকের কাছে অ্যাকশন শুধরানো সত্ত্বেও আগের মতো উইকেট নিতে পারছেন না একসময়ে পাকিস্তানকে অনেক ম্যাচে জয় এনে দেয়া এ তারকা খেলোয়াড়। গতকাল ম্যাচের ইনিংস ব্রেক চলাকালে আজমল বলেন, ‘এই জাতীয় ইভেন্টই আমার শেষ টুর্নামেন্ট। আমি কোনো দলের বোঝা হয়ে থাকতে চাই না।’

শোধরানো বোলিং অ্যাকশন নিয়ে ২০১৫ বিশ্বকাপের পরপরই বাংলাদেশ সফরে দু’টি ওয়ানডে খেলেন আজমল। তবে মোটেই সাফল্য পাননি তিনি। দুই ম্যাচে তার বোলিং ফিগার ছিল যথাক্রমে ১০ ওভারে ৭৪ রানে উইকেট শূন্য এবং ৪৯ রানে ১ উইকেট। একই বছর পাকিস্তানের হয়ে নিজের শেষ টি-২০ ম্যাচে ঢাকায় ৩.২ ওভার ২৫ রানের বিনিময়েও উইকেট শূন্য।

পিএসএলে দল পেলেন না গেইল-বাটরা

পাকিস্তান সুপার লীগ (পিএসএল) টি-২০ ক্রিকেট টুর্নামেন্টে দল দল পেলেন না ক্যারিবীয় দানব ক্রিস গেইল। সংক্ষিপ্ত ভার্সনে বিশ্বের দুর্ধর্ষ ব্যাটসম্যান হওয়া সত্ত্বেও সাম্প্রতিক ফর্মের কারণে পিএসএলের কোনো ফ্র্যাঞ্চাইজিই গেইলকে দলে টানেনি।

টুর্নামেন্টের আসন্ন আসরের জন্য গত রোববার অনুষ্ঠিত খেলোয়াড় নিলামে ৩০৮ জন বিদেশি ও ১৯৩ জন দেশিসহ মোট ৫০১ জন ক্রিকেটারের তালিকায় থাকলেও তিনি অবিক্রিত থেকে গেছেন।

উইজডেন ইন্ডিয়ায় প্রকাশিত রিপোর্টে বলা হয়, টি-২০ ক্রিকেটে দশ হাজারের বেশি রানের মালিক হওয়া সত্ত্বেও দুর্বল ফর্ম ও পুরো টুর্নামেন্টে না পাওয়া গেইলকে দলে নেয়নি কোনো ফ্র্যাঞ্চাইজি।

গেইলের মতে কোনো দলে ঠাঁই পাননি ২০১০ সালে স্পট ফিক্সিংয়ের দায়ে নিষিদ্ধাদেশ কাটিয়ে ক্রিকেটে ফেরা পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক সালমান বাট ও পেসার মোহাম্মদ আসিফ।

পাকিস্তানের ঘরোয়া ক্রিকেটে সাম্প্রতিক সময়ে দারুণ ফর্মে থাকা বাট জাতীয় দলে ফেরার দ্বারপ্রান্তে থাকা সত্ত্বেও তাকে দলে নেয়া হয়নি।

ফর্মে না থাকা এবং পুরো টুর্নামেন্ট না পাওয়ার কারণেই গেইলকে দলে নেয়া হয়নি বলে জানিয়েছেন একটি ফ্র্যাঞ্চাইজির মালিক।

বাংলাদেশের চার খেলোয়াড় সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ও মোস্তাফিজুর রহমান দল পেয়েছেন।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫