ঢাকা, শনিবার,১৮ নভেম্বর ২০১৭

বিবিধ

যুক্তরাষ্ট্র-উত্তর কোরিয়া সম্পর্ক আবার উত্তপ্ত

নয়া দিগন্ত অনলাইন

১১ নভেম্বর ২০১৭,শনিবার, ১৮:০২


প্রিন্ট
যুক্তরাষ্ট্র-উত্তর কোরিয়া সম্পর্ক আবার উত্তপ্ত

যুক্তরাষ্ট্র-উত্তর কোরিয়া সম্পর্ক আবার উত্তপ্ত

যুক্তরাষ্ট্র ও উত্তর কোরিয়ার সম্পর্ক নিয়ে টানাপড়েন চলছে। যার সূত্রধরে চলছে পাল্টাপাল্টি হুমকি, যেকোনো সময় বেধে যেতে পারে যুদ্ধ। এ নিয়ে মহড়াও শুরু হয়ে গেছে।

এক দশকের মধ্যে প্রথমবারের মতো প্রশান্ত মহাসাগরে নামছে তিনটি মার্কিন এয়ারক্রাফট কেরিয়ার। বৃহস্পতিবার মার্কিন নেভির পক্ষ থেকে এই ঘোষণা করা হয়েছে। উত্তর কোরিয়াকে বার্তা দিয়ে একইসঙ্গে মহড়ায় নামবে ইউএসএস রোনাল্ড রেগান, ইউএসএস নিমিৎজ ও ইউএসএস থিয়োডোর রুজভেল্ট।

শনিবার থেকে শুরু হচ্ছে এই মহড়া। মার্কিন নেভির পক্ষ থেকে এমনটাই জানিয়েছেন, পেসিফিক ফ্লিটের কমান্ডার স্কট সুইফট। এর আগে গত বুধবার উত্তর কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট কিম জং উনকে বার্তা দিয়ে তিনি বলেন, তারা যেন যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে কোন পদক্ষেপ নেওয়ার চেষ্টা না করে। তাতে ভবিষ্যতে বিপদ বাড়তে পারে, এমন হুঁশিয়ারিও দেন ট্রাম্প। এয়ার ডিফেন্স, কমব্যাট ট্রেনিংয়ে ব্যবহার করা হবে এই রণতরীগুলো।

উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র ভূপাতিত করতে পারবে জাপান : ট্রাম্প

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, তাদের দেশ থেকে আনা সামরিক রসদ দিয়ে উত্তর কোরিয়ার ছোড়া ক্ষেপণাস্ত্র আকাশেই ধ্বংস করে ভূপাতিত করতে পারবে জাপান। একই সময়ে জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে বলেছেন, প্রয়োজন হলে তার দেশও ক্ষেপণাস্ত্র রুখে দিতে পারবে।

জাপানে ট্রাম্পের প্রথম রাষ্ট্রীয় সফরের শেষ পর্যায়ে গতকাল সোমবার দুই নেতা সাংবাদিকদের উদ্দেশে কথা বলার সময় উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র মোকাবেলায় তাদের সক্ষমতার তথ্য তুলে ধরেন। ১২ দিনের এশিয়া সফরের অংশ হিসেবে রোববার জাপানে পৌঁছান ট্রাম্প ও তার সফরসঙ্গীরা। সম্প্রতি জাপানের ভূসীমার ওপর দিয়ে দু’বার দূরপাল্লার বিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করেছে উত্তর কোরিয়া। পিয়ংইয়ংয়ের ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা ও পরমাণু কার্যক্রম নিয়ে উত্তেজনা বিরাজ করছে। এর আগে জাপানকে সাগরে ডুবিয়ে দেয়ার হুমকি দেয় দেশটি।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ট্রাম্প বলেন, প্রধানমন্ত্রী আবে যুক্তরাষ্ট্র থেকে বিপুল পরিমাণে সামরিক রসদ কিনতে যাচ্ছেন। উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র মোকাবেলার বিষয়ে তিনি বলেন, সামরিক রসদ কেনা শেষে আকাশেই ক্ষেপণাস্ত্র ধ্বংস করতে পারবে জাপান। এতে আমেরিকানদের চাকরির সুযোগ হবে আর জাপান পাবে নিরাপত্তা। উত্তর কোরিয়া ইস্যুতে বিবদমান উত্তেজনাকে ‘খুবই কঠিন’ উল্লেখ করে শিনজো আবে বলেন, তারা তাদের প্রতিরক্ষা সক্ষমতা গুণগত ও পরিমাণগত দিক থেকে বাড়ানোর কাজ শুরু করেছেন।

জাপান ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে বৈধ সহযোগিতার ভিত্তিতে ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা গড়ে তোলা হবে। ট্রাম্পের এ সফরে জাপান ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে কোনো চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে কি না, তা পরিষ্কার নয়। তবে দুই দেশের মধ্যে দীর্ঘ দিনের সামরিক সহযোগিতার সম্পর্ক রয়েছে। জাপানে বেশ কয়েকটি সামরিক ঘাঁটি রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের। গত সেপ্টেম্বরে এক টুইটে ট্রাম্প বলেছিলেন- জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়ার কাছে যুক্তরাষ্ট্রের সর্বাধুনিক সামরিক অস্ত্র বিক্রি সমর্থন করবেন তিনি। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর থেকে জাপানের স্থায়ী সেনাবাহিনী নেই।

উত্তর কোরিয়াকে মোকাবেলায় চীনের দ্রুত পদক্ষেপ চান ট্রাম্প

উত্তর কোরিয়ার পরমাণু হুমকি মোকাবেলায় দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ নিতে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। গতকাল বৃহস্পতিবার বেইজিংয়ে চীনের প্রেসিডেন্টের সাথে এক সাাতে তিনি এ আহ্বান জানান। তিনি সতর্ক করেন, ‘সময় দ্রুত চলে যাচ্ছে’।

ট্রাম্প বলেন, আমাদের খুব দ্রুত কিছু করা উচিত। আশা করছি, অন্য যেকোনো দেশের চেয়ে এ সমস্যার সমাধানে চীন দ্রুত ও আরো কার্যকরভাবে কাজ করবে। এশিয়া সফরের অংশ হিসেবে দণি কোরিয়া সফর শেষে গত বুধবার চীনে পৌঁছেছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। তবে দুই দেশের বাণিজ্য ঘাটতি বিষয়ে ট্রাম্প কিছুটা অপরিচিত সুরে কথা বলেছেন। যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে সুবিধা নেয়ার জন্য ‘চীনকে দায়ী করছি না’ বলে উল্লেখ করেন তিনি। কিন্তু এর আগে বহুবার বাণিজ্য ঘাটতির জন্য চীনের বিরুদ্ধে বিষোদগার করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের এই প্রেসিডেন্ট।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫