নিহত রফিক ইসলাম
নিহত রফিক ইসলাম

ঈশ্বরগঞ্জে চোর সন্দেহে যুবককে পিটিয়ে হত্যা

ঈশ্বরগঞ্জ (ময়মনসিংহ) সংবাদদাতা

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে গরুচোর সন্দেহে মো: রফিক ইসলাম (২৮) নামের এক বিদেশ ফেরত যুবককে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

মঙ্গলবার দিবাগত গভীর রাতে উপজেলার ভাষা গকুল নগর গ্রামে হত্যাকান্ডের ঘটনাটি ঘটে। আজ বুধবার সকালে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠিয়েছে। এ ঘটনায় একটি হত্যা মামলা হয়েছে।

জানা যায়, মঙ্গলবার দিবাগত রাত চারটার দিকে উপজেলার মাইজবাগ ইউনিয়নের ভাষা গকুল নগর গ্রামের জনৈক দামেশের বাড়িতে গরু চুরির ঘটনা ঘটে। গোয়াল ঘর থেকে গরু চুরি করে একটি কাভার্ড ভ্যানে উঠিয়ে নিয়ে যাওয়ার সময় প্রতিবেশী জাহাঙ্গীর নামে এক যুবক দেখে ফেলে চিৎকার করে। ওই সময় দ্রুত কাভার্ড ভ্যানটি পালিয়ে গেলেও দুইজন ভ্যানে উঠতে পারেনি।

পরে গ্রামবাসী ওই দুইজনকে ধাওয়া দিয়ে হাইডুলি বিলে গিয়ে এক যুবককে ধরে ফেলে অন্যজন পালিয়ে যায়। এ সময় উত্তেজিত গ্রামবাসী তাকে পিটিয়ে হত্যা করে।

খবর পেয়ে ওই বিল থেকে সকালে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। নিহত যুবক পাশের মগটুলা ইউনিয়নের নাউড়ি গ্রামের সৌদি প্রবাসী আবু ছিদ্দিকের ছেলে ও স্থানীয় মধুপুর বাজারের ইজারাদার ও চামড়া ব্যবসায়ী। গত দুই বছর আগে তিনি সিঙ্গাপুর থেকে দেশে এসে ব্যবসা শুরু করেন। তার ১০ মাসের একটি মেয়েশিশু রয়েছে।

ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (গৌরীপুর) সার্কেল।

নিহতের ছোট ভাই শফিক বলেন, পরিকল্পিতভাবে আমার ভাইকে হত্যা করা হয়েছে। আমার ভাই রফিক স্থানীয় বাজারের ইজারাদার ও ব্যবসায়ী। গত মঙ্গলবার বিকেলে প্রতিবেশী আবু তাহের, লিটন ও কলিম উদ্দিন মেম্বার বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায়। এরপর তার আর কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি। পরে আজ বুধবার তার লাশ পাওয়া যায় ভাষা গকুল নগর গ্রামের একটি বিলে। তার ধারণা তারাই পরিকল্পিতভাবে রফিককে হত্যা করেছে।

ঈশ্বরগঞ্জ থানার ওসি বদরুল আলম খান বলেন, এ ঘটনায় ভাষা গকুল নগর গ্রামের হোসেন মেম্বার বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। নিহতের নামে স্থানীয় বাজারে জায়গা দখলের অভিযোগে একটি মামলা আছে। তবে থানায় তার বিরুদ্ধে চুরির ঘটনায় কোনো মামলা নেই। তবে চুরি করতে এসে গনপিটুনিতেই রফিক নিহত হয়েছে বলে পুলিশের ধারণা। তদন্ত শেষে সঠিক কারণ জানা যাবে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.