ঢাকা, শুক্রবার,২৪ নভেম্বর ২০১৭

প্রবাসের খবর

নিউ ইয়র্কে সাংবাদিক আড্ডা

নিউ ইয়র্ক থেকে সংবাদদাতা

২৪ অক্টোবর ২০১৭,মঙ্গলবার, ২১:২৯


প্রিন্ট

সাংবাদিক উৎপল রায় নিখোঁজের ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন নিউ ইয়র্ক প্রবাসী সাংবাদিকরা। পাশাপাশি আইসিটি অ্যাক্টের ৫৭ ধারা অবিলম্বে বন্ধের দাবি জানান তারা।

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও জাতীয় প্রেস ক্লাবের যুগ্ম-সম্পাদক ইলিয়াস খানে নিউ ইয়র্ক আগমন উপলক্ষে আয়োজিত ঢাকা-নিউ ইয়র্ক সাংবাদিক আড্ডায় এসব কথা বলেন নিউ ইয়র্ক বাংলাদেশে কর্মরত সাংবাদিকরা।

সোমবার সন্ধ্যায় নিউ ইয়র্কের জ্যাকসন হাইটসে আয়োজিত ওই আড্ডায় সভাপতিত্ব করেন সাপ্তাহিক ঠিকানার প্রধান সম্পাদক ফজলুর রহমান।

আড্ডার শুরুতে স্বাগত বক্তব্যে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক দফতর সম্পাদক ও দৈনিক নয়া দিগন্তের যুক্তরাষ্ট্র সংবাদদাতা ইমরান আনসারী, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য এম কে আনোয়ার ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম-এর সহধর্মীনি শিলা ইসলাম এর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেন। পাশাপাশি সাংবাদিক উৎপল রায়ের নিখোঁজে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেন।

পরে সাংবাদিক আড্ডায় যোগ দিয়ে আলোচনায় অংশ নেন জাতীয় প্রেস ক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক ইলিয়াস খান, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট ও প্রবীন সাংবাদিক মঞ্জুর আহম্মেদ, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মনোয়ারুল ইসলাম, মোহনা টেলিভিশনের সাবেক প্রধান বার্তা সম্পাদক সোহেল মাহমুদ, সাপ্তাহিক বর্ণমালার সম্পাদক মাহফুজুর রহমান, এনামুর রেজা দিপু, আবিদুর রহিম, যমুনা টেলিভিশনের যুক্তরাষ্ট্র সংবাদদাতা হাসানুজ্জামান সাকী, শাহেদ আলম, শামীম আল আমিন, মনিজা রহমান, টাইম টেলিভিশনের বিশেষ প্রতিনিধি শিবলী চৌধুরী কায়েস, নিউ ইয়র্ক বাংলাদেশ প্রেস ক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সালাউদ্দিন আহম্মেদ, ক্রিড়া ভাষ্যকার ও সাংবাদিক আলমগীর হোসেন, সাপ্তাহিক জন্মভূমির সম্পাদক রতন তালুকদার, তুহিন সানজিদ, আবদুর রহিম দিপু, রিমন ইসলাম, হাকিকুল ইসলাম খোকন, মঞ্জুর হোসেন প্রমূখ।

এসময় ইলিয়াস খান বলেন, সাংবাদিক উৎপল রায়ের নিখোঁজ হওয়ার ঘটনা সাংবাদিক সমাজকে উদ্বিগ্ন করে তুলেছে। তাকে অবিলম্বে খুঁজে বের করতে আইন শৃংখলা বাহিনীর প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

বাংলাদেশের গনমাধ্যমের পরিস্থিতি তুলে ধরতে গিয়ে তিনি আরো বলেন, হাজারো তরুণের স্বপ্ন ভঙ্গ করেছে দেশে চলমান হাজার হাজার মানহীন অনলাইন ও সংবাদপত্র। বাংলাদেশের বহু মেধাবি সাংবাদিকরা দেশে টিকতে না পেরে যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমিয়েছেন। যা বাংলাদেশের সংবাদমাধ্যমের জন্য বড় ধরণের হুমকি।

ফজলুর রহমান বলেন, আশির দশকের সাংবাদিকতায় এতো গ্লামার না থাকলেও পেশাদারিত্ব ছিল। এখন সাংবাদিকদের বেতন বেড়েছে কিন্তু মান কমেছে। রাজনৈতিক লেজুড়বৃত্তি সাংবাদিকতা পেশার অস্তিত্বকে চ্যালেঞ্জের মুখে ফেলেছে।

মঞ্জুর আহম্মেদ বলেন, সাংবাদিক সমাজের বিভক্তি বাংলাদেশের সংবাদমাধ্যমের মানকে দিনের পর ক্ষুণ্ণ করে যাচ্ছে।

মনোয়ারুল ইসলাম বলেন, প্রবাসে কিংবা দেশে সাংবাদিকদের ঐক্যবদ্ধতাই সংবাদ মাধ্যমকে সুসংহত করবে।

সোহেল মাহমুদ বলেন, বাংলাদেশে মেধাবী সাংবাদিকদের উঠতে দেয়া হয় না। অযোগ্য নেতৃত্বের আষ্টে পীষ্টে সাংবাদিক সমাজ আজ আবদ্ধ।

এসময় সাংবাদিকরা ঢাকা ও নিউ ইয়র্ক সাংবাদিকতার সুযোগ ও সীমাবদ্ধতা নিয়ে এক প্রাণবন্ত আলোচনায় মেতে উঠেন। পাশাপাশি জাতীয় প্রেস ক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক নির্বাচিত হওয়ায় সাংবাদিক নেতা ইলিয়াস খানকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেন নিউ ইয়র্কে কর্মরত সাংবাদিকরা।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫