ঢাকা, বৃহস্পতিবার,২৩ নভেম্বর ২০১৭

ঘটনা-দুর্ঘটনা

মুগদার খালে নিখোঁজের ৭ দিন পর শিশু হৃদয়ের লাশ উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক

২১ অক্টোবর ২০১৭,শনিবার, ২১:০৪


প্রিন্ট
হৃদয়ের উদ্ধার তৎপরতা (ফাইল ফটো)

হৃদয়ের উদ্ধার তৎপরতা (ফাইল ফটো)

রাজধানীর মুগদা এলাকার মাণ্ডা খালে পড়ে নিখোঁজের সাত দিন পর শিশু হৃদয়ের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

আজ শনিবার বেলা ২টার দিকে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরিরা হৃদয়ের লাশ উদ্ধার করেন।

এদিকে, এ ঘটনায় শিশুটির মা রুজিনা আক্তার বাদী হয়ে দায়িত্ব অবহেলার অভিযোগ এনে বাড়িওয়ালা, দারোয়ান, মুগদা জোনের ওয়াসার দুই ইঞ্জিনিয়ার ও স্থানীয় চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন।

ফায়ার সার্ভিসের উপপরিচালক দেবাশিষ বর্ধন জানান, যে স্থানে শিশুটি নিখোঁজ হয়েছিলো সে স্থানে থেকে ১০ হাত দূরে তার লাশের সন্ধান পায় ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল। পরে লাশটি থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়। খালটিতে প্রচুর ময়লা থাকায় স্বাভাবিকভাবে কাজ করা যায়নি। ময়লা সরিয়ে কাজ করতে বেগ পেতে হয়েছে। এ কারণে একটু দেরি হয়েছে।

মুগদা থানা পুলিশ জানায়, লাশ উদ্ধারের পর তার সুরতহাল প্রতিবেদন শেষে আজ বিকেলেই ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষে লাশ মৃতের পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

মুগদা থানার ওসি এনামুল হক জানান, শিশুটির মাসহ অনেকেই বস্তি থেকে মেইন রাস্তায় যাওয়ার ওই সাঁকোটি মেরামত করার কথা বাড়িওয়ালাকে বলেছিলেন। কিন্তু বাড়িওয়ালারা কোনো কর্ণপাত করেনি। এ ঘটনায় ‘দায়িত্ব অবেহলাজনিত’ কারণ দেখিয়ে গত শুক্রবার শিশুটির মা ছয়জনকে আসামি করে মামলা করেছেন।

আসামিরা হলেন- দুই বাড়িওয়ালা, মুগদা জোনের ওয়াসার দুই ইঞ্জিনিয়ার, স্থানীয় চেয়ারম্যান আলমাস হোসেন ও একজন বাড়ির দারোয়ান।

ওসি বলেন, মূলত সংশ্লিষ্টদের অবহেলার কারণেই ওই সাঁকোটি ভাঙাচুরা ছিল এবং খালে প্রচুর ময়লা জমেছিল।

তিনি বলেন, মামলাটি তদন্ত চলছে। তদন্ত শেষে আইনী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

জানা গেছে, শিশুটির বাবার নাম কামাল। তিনি বেকার। স্থানীয়রা তাকে টোকাই হিসেবে চেনে। ওই খাল পাড়ের বস্তিতে বাবা-মায়ের সাথে থাকত শিশু হৃদয়।

গত রোববার মদিনাবাগে বাঁশের সাঁকো পার হতে গিয়ে খালে পড়ে যায় হৃদয়। এরপর ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল, সিটি করপোরেশনের কর্মী ও স্থানীয়রা নিয়মিত অভিযান চালালেও শিশুটির কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি। অবশেষে সাত দিন পর আজ শিশুটির লাশ উদ্ধার করা হলো।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫