ঢাকা, রবিবার,১৯ নভেম্বর ২০১৭

শেষের পাতা

বৃষ্টিতে সারা দেশে জীবনযাত্রা অচল

নয়া দিগন্ত ডেস্ক

২১ অক্টোবর ২০১৭,শনিবার, ০০:০০ | আপডেট: ২১ অক্টোবর ২০১৭,শনিবার, ০১:৫৬


প্রিন্ট
গতকাল দিনভর বৃষ্টিতে তলিয়ে যায় রাজধানীর বেশির ভাগ রাস্তা। বঙ্গভবনের সামনের রাস্তার চিত্র : মোহাম্মদ শরীফ

গতকাল দিনভর বৃষ্টিতে তলিয়ে যায় রাজধানীর বেশির ভাগ রাস্তা। বঙ্গভবনের সামনের রাস্তার চিত্র : মোহাম্মদ শরীফ

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট নি¤œচাপে গত দু’দিন ধরে মুষলধারে বৃষ্টির কারণে সারা দেশে জীবনযাত্রা অচল হয়ে পড়েছে। বৃষ্টি ও জোয়ারের পানির তোড়ে বরগুনার ছয়টি উপজেলার ১৯টি পয়েন্টের বেড়িবাঁধ ভেঙে গেছে। বৃষ্টিতে তলিয়ে যাওয়ায় কোথাও কোথাও সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। ক্ষতি হয়েছে উঠতি ফসলের। অনেক মৎস্যঘেরের মাছ ভেসে গেছে।
রাজশাহী ব্যুরো জানায়, রাজশাহীতে গতকাল দিনভর বৃষ্টি হয়েছে। বঙ্গোপসাগরে নি¤œচাপে সারা দেশের মতো রাজশাহীতেও এই বৃষ্টি হয়। এ দিন সরকারি ছুটির দিন হলেও দৈনন্দিন ও স্বাভাবিক জীবনযাত্রায় নানা বিড়ম্বনা দেখা দেয়। চরম ভোগান্তিতে পড়েন সাধারণ মানুষ।
সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত রাজশাহী নগরী ও জেলার বিভিন্ন উপজেলায় কখনো গুঁড়িগুঁড়ি, আবার কখনো মুষলধারে বৃষ্টি হয়। সারাদিন সূর্যের দেখা মেলেনি। এতে বিশেষ করে খেটে খাওয়া দিনমজুর ও নি¤œবিত্ত মানুষের দুর্ভোগ বৃদ্ধি পায়। তারা কাজের সন্ধানে বাইরে বের হতে পারেননি। এ দিকে টানা বৃষ্টিতে ক্ষতির মুখে পড়েছে এ অঞ্চলের শীতকালীন সবজির আবাদ। নগরীর নি¤œাঞ্চলে এরই মধ্যে বৃষ্টির পানি জমে গেছে। অনেক স্থানে পয়ঃনিষ্কাশন ড্রেনের পানি উপচে পড়েছে। দিনভর টানা বৃষ্টিতে নগরীর বিপণিবিতানগুলোর বেশির ভাগই প্রায় ক্রেতাশূন্য হয়ে পড়ে। ফুটপাথের দোকানগুলোর বেশির ভাগই ছিল বন্ধ।
রাজশাহী আবহাওয়া অফিস দুপুরে জানায়, নি¤œচাপের প্রভাবে এই বৃষ্টিপাত শুরু হয়েছে। শুক্রবার সারাদিনই বৃষ্টি হবে। তবে শনিবার বৃষ্টিপাত কমে আসতে পারে। শুক্রবার সকাল সোয়া ৭টা থেকে বৃষ্টিপাত শুরু হয়। বেলা ২টা পর্যন্ত ২৭ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়। তবে বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকলে এর পরিমাণ আরো বাড়বে।
নোয়াখালী সংবাদদাতা জানান, নোয়াখালীতে টানা ভারী বর্ষণে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। তার পাশাপাশি মানুষের স্বাভাবিক জীবন যাত্রা ব্যাহত হচ্ছে চরমভাবে। হাতিয়ার সাথে জেলা সদরের একমাত্র নদী পথে যাতায়াত সি-ট্রাক বন্ধ রয়েছে। বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট নি¤œচাপে গতকাল শুক্রবার ভোর থেকে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত জেলা সদর, বেগমগঞ্জ, সোনাইমুড়ী, চাটখিল, সেনবাগ, কোম্পানীগঞ্জ, কবিরহাট সুবর্ণচর ও হাতিয়া উপজেলায় প্রথমে হালকা, মাঝারি পরে বিকেল থেকে শুরু হয় টানা ভারী বর্ষণ। এতে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয় এবং জলাবদ্ধতা দেখা দেয়। টানা ভারী বর্ষণে মানুষের জীবনযাত্রা ব্যাহত হয় এবং খেটে খাওয়া মানুষ কাজ না করতে পেরে দুর্ভোগের শিকার হন। এ দিকে বৈরী আবহাওয়া ও নদী উত্তাল থাকায় জেলা সদরের সাথে হাতিয়ার সি-ট্রাক, লঞ্চ চলাচল গতকাল সকাল থেকে বন্ধ রয়েছে। এতে এ রুটে যাতায়াতকারী শত শত মানুষ চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন।
বরিশাল ব্যুরো জানায়, বরিশাল নগরীসহ জেলার প্রতিটি উপজেলায় বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকে শুক্রবার দিনভর বৃষ্টিপাতে জনজীবনে চরম দুর্ভোগ দেখা দিয়েছে। গভীর সমুদ্রে নিম্নচাপ সৃষ্টি হওয়ায় বিভাগের সর্বত্র কখনো টানা আবার কখনো থেমে থেমে বৃষ্টিপাত হচ্ছে। পানি বৃদ্ধি পেয়েছে নদীগুলোতে।
বিআইডব্লিউটির নৌনিরাপত্তা ও নিরাপত্তা বিভাগের উপপরিচালক আজমল হুদা মিঠু জানান, নদী বন্দরগুলোতে ২ নম্বর সতর্ক সঙ্কেত থাকায় ও পরবর্তী নির্দেশ না আসা পর্যন্ত যথারীতি লঞ্চ চলাচল করবে। এ ব্যাপারে আবহাওয়া অফিসের পর্যবেক্ষক মো: আনিচুর রহমান জানান, গভির সমুদ্রবন্দরে নিম্নচাপ সৃষ্টি হওয়ায় বরিশাল নদী বন্দরকে ২ নম্বর সতর্ক সঙ্কেত ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে ৩ নম্বর সতর্ক সঙ্কেত দেখাতে বলা হয়েছে। ২৪ ঘণ্টায় বরিশাল আবহাওয়া অফিস ৬৭ মিলি বৃষ্টিপাত রেকর্ড করেছে।
বরগুনা সংবাদদাতা জানান, বিরামহীন বৃষ্টি ও নদীর উত্তাল জোয়ারের পানিতে বরগুনার উপকূলের প্রধান তিনটি নদী পায়রা, বিষখালী ও বলেশ্বরের পানির তোড়ে ও তিন দিনের টানা বৃষ্টিতে ভেঙে গেছে জেলার ছয় উপজেলা পাথরঘাটা, আমতলী, তালতলী, বেতাগী, বরগুনা ও বামনার ১৯টি পয়েন্টের বেড়িবাঁধ। ফলে মানবেতর জীবনযাপন করছে এসব বেড়িবাঁধ এলাকায় বসবাসরত লোকজন।
জানা গেছে, বৃষ্টির পানি উজানে যখন নামতে শুরু করে তখন ভাটি অঞ্চলের মানুষ ভাসছে জোয়ারের পানিতে। একদিকে প্রবল বেগে ধেয়ে আসছে স্রোত, অন্য দিকে জোয়ারের চাপ; এ কারণেই নতুন করে ভেঙে গেছে জেলার ১৯টি পয়েন্টের প্রায় ৮ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ। এখনো পানিবন্দী রয়েছেন জেলার অর্ধশতাধিক গ্রামের মানুষ।
পানির নিচে তলিয়ে যাওয়া বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখো গেছে, সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত রয়েছে বরগুনার বালিয়াতলী, পাথরঘাটার জীনতলা, তালতলীর তেঁতুলবাড়িয়া গ্রামের মানুষ। এসব এলাকার মানুষের ঠাঁই এখন ভাঙা বেড়িবাঁধের ওপর। তলিয়ে গেছে বসতভিটা, ভেসে গেছে পুকুরের মাছ, নষ্ট হয়েছে ক্ষেতের ফসল।
পিরোজপুর সংবাদদাতা জানান, দু’দিন ধরে মুষলধারে উপকূলীয় অঞ্চলে বৃষ্টির ফলে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। বৃষ্টির কারণে বৃহস্পতিবার এ অঞ্চলের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি ছিল কম। হাটবাজারে ক্রেতা-বিক্রেতাদেরও উপস্থিতি অন্যান্য সময়ের তুলনায় কম ছিল। সরকারি-বেসরকারি অফিস-আদালতে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উপস্থিতি স্বাভাবিক হলেও জনসাধারণের হাজিরা অনেকাংশে কমছিল। গতকাল শুক্রবার দুপুরে হঠাৎ জোয়ারের পানি স্বাভাবিকের চেয়ে তিন-চার ফুট বেশি হওয়ায় পিরোজপুরসহ উপকূলের নি¤œাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। নিচু এলাকার কাঁচা রাস্তাঘাট তলিয়ে যাওয়ায় গ্রামাঞ্চরের মানুষের চলাচলে বিঘœ সৃষ্টি হচ্ছে। অনেকের পুকুর ও ঘেরের মাছ ভেসে যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে।
গলাচিপা (পটুয়াখালী) সংবাদদাতা জানান, গলাচিপায় দুই দিন যাবৎ থেমে থেমে বৃষ্টি ও ঝড়ো হাওয়ার কারণে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। বৃষ্টি ও জোয়ারের পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় গ্যাংওয়ে তলিয়ে গলাচিপা-পটুয়াখালী সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে তিন-চার ফুট পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় উপজেলার বেড়িবাঁধবিহীন চর আগুনমুখা, চর বাংলাসহ ২০টিরও বেশি চর পানির নিচে তলিয়ে গেছে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের ৫৫/২ পোল্ডারের ভাঙনকবলিত বদনাতলি, চর কাজল ও চর বিশ^াসে জোয়ারের পানিতে এক হাজার একর জমির বীজতলা তলিয়ে উঠতি ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। বৈরী আবহাওয়ার কারণে অভ্যন্তরীণ নৌযোগাযোগ বন্ধ রয়েছে।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫