ঢাকা, বৃহস্পতিবার,২৩ নভেম্বর ২০১৭

রাজনীতি

অবিলম্বে মুক্তি দাবি

জামায়াতের আমির মকবুল আহমাদ গুরুতর অসুস্থ

২০ অক্টোবর ২০১৭,শুক্রবার, ২০:৪১


প্রিন্ট

জামায়াতে ইসলামীর আমির মকবুল আহমাদসহ গ্রেফতারকৃত সব নেতা-কর্মীর নিঃশর্ত মুক্তি এবং মকবুল আহমাদের সুচিকিৎসার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আহবান জানিয়ে জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত আমির ও সাবেক এমপি অধ্যাপক মুজিবুর রহমান এক বিবৃতিতে বলেন, মকবুল আহমাদের বয়স প্রায় ৮০ বছর। তিনি ডায়াবেটিক, উচ্চ রক্তচাপ, হৃদরোগসহ বার্ধক্যজনিত নানা জটিল রোগে আক্রান্ত। তিনি মেরুদণ্ডের ব্যথার কারণে সোজা হয়ে বসতে ও শুতে পারেন না। তার শারীরিক অবস্থার ক্রমেই অবনতি ঘটছে। বিশেষ করে ৯ অক্টোবর তাকে গ্রেফতার করার পর আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তাকে আটকে রেখে পরদিন বিকেলে আদালতে উপস্থাপন এবং ১০ দিনের বিরতিহীন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের নামে নানাভাবে হয়রানি করছে। রিমান্ডে থাকায় তিনি গুরুতরভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। তার ডায়াবেটিক, উচ্চ রক্তচাপ এবং মেরুদণ্ডের ব্যথা বেড়ে যাওয়ার আশংকায় তার পরিবারের পক্ষ থেকে উৎকণ্ঠা প্রকাশ করা হয়েছে। তিনি নিয়মিতভাবে থেরাপি নিতেন। এখন থ্যারাপি নেয়ার ব্যবস্থা না থাকায় তার স্বাস্থ্যগত অবস্থার মারাত্মক অবনতি হতে পারে বলেও পরিবারের পক্ষ থেকে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়েছে।

তিনি বলেন, একজন বয়োবৃদ্ধ অসুস্থ মানুষকে আটক করে এবং রিমান্ডে নিয়ে সরকার তার মৌলিক মানবিক অধিকার লংঘন করেছে। চিকিৎসার যথাযথ ব্যবস্থা থেকে বঞ্চিত করে সরকার তার সাংবিধানিক অধিকারের প্রতি অবজ্ঞা প্রদর্শন করেছে। যেকোনো নাগরিকের চিকিৎসার সুব্যবস্থা প্রাপ্তি তার সাংবিধানিক ও নাগরিক অধিকার।

ছাত্রী সংস্থার নেতাকর্মী গ্রেফতারের প্রতিবাদ: গত ১৮ অক্টোবর সন্ধ্যায় ঢাকা মহানগরীর কদমতলী থানার ধনিয়ার নূরপুর থেকে ইসলামী ছাত্রী সংস্থার ২১ জন নেত্রীস্থানীয় কর্মীকে ও চাঁদপুর জেলার কচুয়া উপজেলা থেকে গত ১৯ অক্টোবর দুইজন কর্মীকে গ্রেফতার করার ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মাওলানা রফিকুল ইসলাম খান এক বিবৃতিতে বলেন, পুলিশের অন্যায়ভাবে গ্রেফতারের মধ্য দিয়ে সরকারের ইসলামী বিরোধী ফ্যাসিবাদী চরিত্র অত্যন্ত নগ্নভাবে প্রকাশিত হয়েছে। ইসলামী ছাত্রী সংস্থার কর্মীরা ছাত্রীদের মধ্যে ইসলামের দাওয়াত প্রদান করে। তারা ছাত্রীদের ইসলামের জ্ঞান অর্জন করে তার আলোকে চরিত্র গঠনে তাদের উদ্বুদ্ধ করে। বিনা কারণে ইসলামী ছাত্রী সংস্থার নেত্রীস্থানীয় কর্মীগণকে গ্রেফতার করে সরকার ছাত্রীদের মৌলিক অধিকার ক্ষুণ্ণ করেছে। শুধু তাই নয়, ধনিয়া থেকে গ্রেফতারকৃত ২১ জন নেত্রীস্থানীয় কর্মীকে এক দিনের রিমান্ডে নিয়ে তাদের কষ্ট দিয়ে পুলিশ মানবাধিকার লংঘন করেছে। ইসলামী দাওয়াতী কাজ করার কারণে তাদেরকে গ্রেফতার করে সরকার প্রমাণ করেছে, ইসলামী দাওয়াতী কাজ চলুক, এটা তারা চায় না। সরকার ইসলামী ছাত্রী সংস্থার দাওয়াতী কাজে বাধা দিয়ে দেশের ছাত্রী সমাজকে অনৈতিকতা ও জাহিলিয়াতের অন্ধকারে ঠেলে দিতে চায়। ধর্মভীরু পর্দানশীন ও চরিত্রবান ছাত্রীদের অন্যায়ভাবে গ্রেফতার এবং হয়রানীর বিরুদ্ধে প্রতিবাদে সোচ্চার হওয়ার জন্য তিনি দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানান এবং অবিলম্বে আটককৃতদের মুক্তির দাবি জানান। বিজ্ঞপ্তি।

 

 

অন্যান্য সংবাদ

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫