ঢাকা, বৃহস্পতিবার,২৩ নভেম্বর ২০১৭

ফুটবল

বিশ্বকাপ থেকে বাদ পড়লো যে দলগুলো

নয়া দিগন্ত অনলাইন

১৭ অক্টোবর ২০১৭,মঙ্গলবার, ১০:৩৯ | আপডেট: ১৭ অক্টোবর ২০১৭,মঙ্গলবার, ১০:৫২


প্রিন্ট
প্রিয় দল বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে পড়ায় মাথায় হাত সমর্থকের

প্রিয় দল বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে পড়ায় মাথায় হাত সমর্থকের

বিশ্বকাপের প্লে-অফে ইউরো অঞ্চলের ড্রয়ে শীর্ষ বাছাই হিসেবে অংশ নেবে ইতালি। সোমবার নতুন বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ের তালিকা প্রকাশ করেছে ফিফা। তালিকায় ইউরো অঞ্চলের চারটি শীর্ষ বাছাই হিসেবে ইতালি ছাড়াও আছে সুইজারল্যান্ড, ক্রেয়েশিয়া ও ডেনমার্ক। যারা আগামী মাসে বিশ্বকাপের প্লে অফ ম্যাচে অংশ নিবে।

দুই লেগের প্লে-অফে শীর্ষ দশ র‌্যাঙ্কিংয়ের বাইরের দল হিসেবে অংশ নেবে উত্তর আয়ারল্যান্ড, সুইডেন, আয়ারল্যান্ড প্রজাতন্ত্র এবং গ্রিস। আগামী ১ ডিসেম্বর মস্কোতে বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্বের ড্র আয়োজনের ক্ষেত্রেও কাজে লাগবে ফিফার এই নতুন র‌্যাঙ্কিং।

এর ফলে স্বাগতিক রাশিয়াসহ বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ও এক নম্বর র‌্যাঙ্কধারী জার্মানী, ব্রাজিল, পর্তুগাল, আর্জেন্টিনা, বেলজিয়াম, পোল্যান্ড ও ফ্রান্স শীর্ষ বাছাই হিসেবে গ্রুপে স্থান পাবে। স্পেন, ইংল্যান্ড ও উরুগুয়ের মতো শীর্ষ দেশগুলো এবারের বিশ্বকাপে শীর্ষ বাছাইয়ের তালিকা থেকে ছিটকে পড়েছে।

বর্তমান র‌্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষ দশের মধ্যে পেরু ও রয়েছে। তবে রাশিয়া বিশ্বকাপে অংশগ্রহণের সুযোগ নিশ্চিত করতে হলে পেরুকে প্লে-অফ ম্যাচ খেলে আসতে হবে নিউজিল্যান্ডের সাথে। রাশিয়া (৬৫তম) শীর্ষ ১০ দেশের বাইরে থাকলেও টুর্নামেন্টের আয়োজক হওয়ার কারণে স্বাগতিক হিসেবে ড্রয়ের শীর্ষে জায়গা পেয়েছে।

১৬ অক্টোবর পর্যন্ত ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষ ২০ দেশের তালিকা :
১. জার্মানী,
২. ব্রাজিল,
৩.পর্তুগাল,
৪. আর্জেন্টিনা,
৫. বেলজিয়াম,
৬. পোল্যান্ড,
৭. ফ্রান্স (+১),
৮. স্পেন (+৩),
৯. চিলি,
১০. পেরু (+২),
১১. সুইজারল্যান্ড (-৪),
১২. ইংল্যান্ড (+৩),
১৩. কলম্বিয়া (-৩),
১৪. ওয়েলস (-১),
১৫. ইতালী (+২),
১৬. মেক্সিকো (-২),
১৭. উরুগুয়ে (-১),
১৮. ক্রোয়েশিয়,
১৯. ডেনমার্ক (+৭),
২০. হল্যান্ড (+৯)।

অন্য নির্বাচিত দেশগুলো হচ্ছে:
২৩. নর্দান আয়ারল্যান্ড (-৩),
২৫. সুইডেন (-২),
২৬. আয়ারল্যান্ড প্রজাতন্ত্র (+৮),
৪৭. গ্রীস ,
৬৫. রাশিয়া (-১)।

বাছাইপর্বে সেরা কে, মেসি-রোনালদো নাকি নেইমার?
ফুটবল বিশ্বে বর্তমানে সেরা তিন খেলোয়াড় হলেন লিওনেল মেসি, ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো ও নেইমার। ক্লাব ফুটবলে এই তিনজনই এখন শীর্ষে। সদ্য শেষ হওয়া রাশিয়া বিশ্বকাপের বাছাই পর্বে নিজ দলের টিকেট নিশ্চিত করতে শতভাগ উজাড় করে দিয়েছেন তারা।

সবার আগে বিশ্বকাপের টিকেট পেয়েছে ব্রাজিল। তবে মেসি-রোনালদোদের দিতে হয়েছে কঠিন পরীক্ষা। অপেক্ষা করতে হয়েছে শেষ ম্যাচ পর্যন্ত। আর্জেন্টিনা ও পর্তুগালকে বিশ্বকাপে নিতে ঘাম ঝরাতে হয়েছে মেসি ও রোনালদোকে।

মেসির হ্যাটট্রিকে ইকুয়েডরকে ৩-১ হারায় আর্জেন্টিনা। একই দিনে সুইজারল্যান্ডকে ২-০ গোলে হারিয়ে বিশ্বকাপ নিশ্চিত করে পতুর্গাল।

বিশ্বকাপে বাছাই পর্বে লাতিন আমেরিকা অঞ্চলে ১৮টি ম্যাচ খেলে মেসির আর্জেন্টিনা। দলের হয়ে সবগুলো ম্যাচ খেললেও লিওনেল মেসি ম্যান অব দ্যা ম্যাচ নির্বাচিত হয়েছেন পাঁচ ম্যাচ। বাছাই পর্বে তার রেটিং পয়েন্ট ৮.৩৪।

অপরদিকে ইউরোপের গ্রুপ পর্বে ১০টি বাছাই পর্বের ম্যাচ খেলে পর্তুগাল। যার মধ্যে ছয় ম্যাচই ম্যান অব দ্য ম্যাচ নির্বাচিত হন রোনালদো। তার রেটিং পয়েন্ট ৮.৭৬।

তবে এদের চেয়ে এগিয়ে পিএসজির নতুন ট্রার্ম নেইমার। বাছাই পর্বের ১৭ ম্যাচে সাতবার ম্যান অব দ্য ম্যাচ নির্বাচিত হন নেইমার। তার রেটিং পয়েন্ট ৮.৮১।

বাছাইপর্বে সেরা পাঁচ :
খেলোয়াড়-------------------ম্যান অব দ্য ম্যাচ------------রেটিং পয়েন্ট
১. নেইমার ------------------ ৭ -------------------------- ৮.৮১
২. ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো---- ৬ -------------------------- ৮.৭৬
৩. রবার্ট লেয়ানডস্কি-----------৭ ------------------------- ৮.৬৪
৪. ইডেন হেজার্ড ------------- ৩ ------------------------- ৮.৬৩
৫. লিওনেল মেসি------------- ৫ ------------------------- ৮.৩৪

ফুটবলের কাছে মেসি-রোনালদোর একটি বিশ্বকাপ পাওনা
লিওনেল মেসি এবং ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো দু'জনই সর্বকালের সেরা ফুটবলারদের অন্যতম। দু'জনের দলই রাশিয়া বিশ্বকাপের টিকিট পেয়েছে। তবে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর পর্তুগাল বেশ সাচ্ছন্দেই বিশ্বকাপে জায়গা করে নিয়েছে। সেই তুলানয় আর্জেন্টিনার অবস্থা ছিল নাজুক। বাছাই পর্বের শেষ ম্যচে ইকুডেরের সাথে না জিততে পারলে বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে পড়তো মেসির দল। সাথে নিজের ক্যারিয়ারেরও ইতি টানতে হতো অনেকটা না অন্যভাবে।

তবে তাদের দু'জনের ক্যারিয়ারেরই যে খুব বেশি সময় নেই সেটা আঁচ পাওয়া যাচ্ছে। রাশিয়া বিশ্বকাপই হয়তো এই দুই নক্ষত্রের শেষ বিশ্বকাপ হতে চলেছে। কারণ আগামী বছরে ৩১-এ পা দেবেন মেসি। অন্যদিকে রোনালদোর বয়স হবে ৩৩। তাই অনেকেই ধারনা করছেন এই দুই মহাতারকা আগামী বিশ্বকাপের পরই ক্যারিয়ারে ইতি টানতে যাচ্ছেন। তাই মেসি কিংবা রোনালদো, দু'জনের ভক্ত-সমর্থকরাই চান বিশ্বকাপ হাতে নিয়ে তাদের ক্যারিয়ারের উপসংহারটা স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকুক।

যেমন- ইকুয়েডরের সাথে ম্যাচ জেতার পর আর্জেন্টাইন কোচ হোর্হে সাম্পাওলি বলেছেন, “বিশ্বকাপ জেতাতেই হবে, আর্জেন্টিনার কাছে এমন কোনো দায় নেই। বরং ফুটবলের কাছে মেসির একটি বিশ্বকাপ পাওনা। সে ইতিহাসের সেরা খেলোয়াড়।”

অন্যদিকে স্প্যানিশ পত্রিকা ‘মার্কা’একটি মতামত প্রকাশ করেছে। যার শিরোনাম, “ফুটবলের কাছে রোনালদোর একটি বিশ্বকাপ পাওনা’।

মতামতটির লেখক হুয়ানমা রদ্রিগেজ দাবি করেছেন, গণমাধ্যম যেভাবেই রোনালদোকে দেখাক, তার আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে শুধুই ফুটবল। যিনি নিজের অর্জনে সন্তুষ্ট না হয়ে সব সময় চেষ্টা করেন আরো একটু ভালো খেলার জন্য। তর্কাতীতভাবেই রোনালদো সর্বকালের সেরা চারজন ফুটবলারদের একজন। তাই ফুটবলের কাছে রোনালদোরই একটি বিশ্বকাপ পাওনা রয়েছে।

রদ্রিগেজ আরো বলেছেন, বিশ্বের অন্যান্য সব তারকাই জাতীয় দলে পর্যাপ্ত সমর্থন পান। কিন্তু এক রোনালদো বাদে পুরো পুর্তুগিজ দলই গড়-পড়তা। অন্য তারকাদের যেখানে সমালোচনা সইতে হয়, সেখানে রোনালদোকে নিয়ে গোটা পর্তুগাল মেতে থাকে। যদি এই সাধরণ দল নিয়ে রোনালদো বিশ্বকাপ জয় করেন, তাহলে তিনি ফুটবল ইতিহাসে অনন্য উদাহরণ হয়েই থাকবেন। এমনিতেও তার কাছে ফুটবলের অনেক দেনা রয়েছে। ফুটবলের উচিত এই দেনা দ্রুত পরিশোধ করে দেয়া।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫