ঢাকা, বুধবার,১৮ অক্টোবর ২০১৭

ঢাকা

নগরকান্দায় সাজেদার গাড়িবহরে হামলা : ওসিসহ আহত ১২

ফরিদপুর সংবাদদাতা

১৩ অক্টোবর ২০১৭,শুক্রবার, ১৮:৫৫ | আপডেট: ১৩ অক্টোবর ২০১৭,শুক্রবার, ১৯:১০


প্রিন্ট
নগরকান্দায় সাজেদার গাড়িবহরে হামলা

নগরকান্দায় সাজেদার গাড়িবহরে হামলা

ফরিদপুরের নগরকান্দায় সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীর গাড়িবহরে হামলা ও গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছে। এ সময় পুলিশের গাড়িসহ দুটি গাড়ি ভাঙচুর করা হয়েছে। ইটপাটকেল নিক্ষেপ করা হয়েছে সংসদ উপনেতার গাড়িতেও। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন নগরকান্দা থানার ওসি ও একজন পুলিশ কনস্টেবলসহ বেশ কয়েকজন।
আজ শুক্রবার দুপুরে ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের নগরকান্দা উপজেলাধীন তালমার মোড়ে এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ জানিয়েছে, বেলা আড়াইটার দিকে সাজেদা চৌধুরীর গাড়িবহর তালমার মোড় অতিক্রম করার সময় পেট্রল পাম্পের সামনে অবস্থানরত জামালের সমর্থকেরা গাড়িবহর লক্ষ্য করে ইট ছুড়তে শুরু করে। ইটের আঘাতে নগরকান্দা সার্কেল এএসপি মহিউদ্দিনের মাইক্রোবাসের কাঁচ ভেঙে যায়। এ ছাড়া সাজেদা চৌধুরী ও তার ছেলে আয়মন আকবর চৌধুরীর গাড়িতে ইট লাগে। তবে তাদের বড় ধরনের কোনো ক্ষতি হয়নি। ওই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের সময় ইটের আঘাতে আহত হন নগরকান্দার ওসি নাসিম। তাকে নগরকান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

সংসদ উপনেতা সাজেদা চৌধুরী বর্তমানে সালথার রসুলপুরে নিজ বাড়িতে অবস্থান করছেন। সেখানে গিয়ে তার সঙ্গে দেখা করেছেন ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার। দু’দিনের সফরে তিনি নিজ নির্বাচনী এলাকায় আসেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীর আগমনকে কেন্দ্র করে শুক্রবার দুপুর হতে নগরকান্দার তালমার মোড়ে দু’পক্ষ অবস্থান নিতে থাকে। এসময় সংসদ উপনেতার সমর্থকেরা তালমার মোড়ে লাগানো উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট জামাল হোসেন মিয়ার বিলবোর্ড ভাঙচুর করে। এতে জামাল হোসেনের সমর্থকেরা উত্তেজিত হয়ে উঠলে পুলিশ তাদের সেখান থেকে তাড়িয়ে দেয়। পুলিশের বাঁধার মুখে তারা পাশের পেট্রোল পাম্পে আশ্রয় নেয়। এরপর বেলা আড়াইটার দিকে সংসদ উপনেতার গাড়ি বহর ঘটনাস্থল অতিক্রম করার সময় সেখান থেকে ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও গোলাগুলির ঘটনা ঘটে।

নগরকান্দা উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন সম্পাদক অ্যাডভোকেট জামাল হোসেন মিয়া বলেন, সংসদ উপনেতার সমর্থকেরা তালমার মোড়ে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি সম্বলিত তার (জামাল হোসেনের) বিলবোর্ড ছিড়ে ফেললে দু’পক্ষের মধ্যে তর্কবিতর্ক চলছিল। এসময় সেখানে বাবলু চৌধুরী উপস্থিত হয়ে জানতে চান কি হয়েছে। তার কথায় সেখানে কেউ হয়তো উস্কানিমূলক কথা বলে। এর জের ধরে কিছু বুঝে ওঠার আগেই বাবলু চৌধুরী পিস্তল দিয়ে গুলি ছুড়েন। এসময় দু’পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়। এতে তার দলের ১০/১২ আহত হন বলে জামাল হোসেন জানান।

নগরকান্দা থানার ওসি এএফএম নাসিম অবশ্য বাবলু চৌধুরীর পিস্তল দিয়ে গুলি ছোঁড়ার কথা সঠিক নয় বলে জানিয়েছেন। ওসি বলেন, সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীর আগমনের আগে সেখানে বিলবোর্ড ছেঁড়াকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের মধ্যে তর্কাতর্কি হলে এক পক্ষকে সেখান থেকে হটিয়ে দেয়া হয়। এরপর তারা পাশের পেট্রোল পাম্পে আশ্রয় নেয়। বেলা আড়াইটার দিকে সংসদ উপনেতার গাড়ি বহর ঘটনাস্থল অতিক্রম করার সময় তারা ইটপাটকেল ছোঁড়ে। এসময় উত্তেজনা ছড়িয়ে পরলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে অানতে পুলিশ ১০/১২ রাউন্ড গুলি ছোঁড়ে। ওসি জানান, ঘটনার সময় সজোরে ছোঁড়া একটি ইট তার বুকে লাগলে তিনি আহত হন। অবশ্য এব্যাপারে সংসদ উপনেতার পুত্র আয়মন আকবর বাবলু চৌধুরীর বক্তব্য জানা যায়নি।

স্থানীয়রা আরো জানান, নগরকান্দা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীর ছেলে আয়মন আকবর চৌধুরীর সঙ্গে প্রতিপক্ষের দ্বন্দ্ব চলছিল। এর জের ধরে আয়মন আকবর বাবলু চৌধুরীকে এলাকায় অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে প্রতিপক্ষ। এনিয়ে দীর্ঘদিন ধরে নগরকান্দা ও সালথা উপজেলা নিয়ে গঠিত ফরিদপুর-২ আসনে আওয়ামী লীগের একাধিক গ্রুপের মধ্যে ব্যাপক উত্তেজনা বিরাজ করছে।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫