ঢাকা, মঙ্গলবার,১২ ডিসেম্বর ২০১৭

রাজশাহী

বগুড়ায় ২৪ কোটি টাকার সরকারি সম্পত্তি দখল

বগুড়া অফিস

১৩ অক্টোবর ২০১৭,শুক্রবার, ১৮:০৭


প্রিন্ট
বগুড়ায় ২৪ কোটি টাকার সরকারি সম্পত্তি দখল

বগুড়ায় ২৪ কোটি টাকার সরকারি সম্পত্তি দখল

বগুড়া শহরের জিরো পয়েন্ট সাতমাথায় সরকারি ২৪ শতক সম্পত্তি ক্ষমতাসীন দলের ছত্রছায়ায় রাতের আঁধারে দখল করেছে প্রভাবশালী মহল। সেখানে কার্যালয় রয়েছে রুপালী ব্যাংক বগুড়া জোন, আ স আব্দুর রবের নেতৃত্বাধীন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জেএসডি) বগুড়া জেলা ও শহর শাখা , জাতীয়তাবাদী যুবদল বগুড়া শহর কমিটি, এলজি বাটার ফ্লাই শো রুম, ফার্মেসী দোকান ও ক্ষুদ্র কাপড় ব্যবসায়ী হাকর্স সমিতি।

এই সম্পত্তির বাজার দাম আানুমানিক ২৪ কোটি টাকা বলে জানা গেছে। এ ঘটনার পর সেখানে তীব্র উত্তেজনা বিরাজ করছে। তবে সরকারী প্রশাসনের কোন পদক্ষেপ নেই।  বৃহস্পতিবার গভীর রাতে ওই জায়গাটি লোহার পাত দিয়ে ঘিরে দেয়ার পর সেখানে মারোয়ারাী ধর্মশালা কমিটি বগুড়ার নামে একটি সাইন বোর্ড ঝুলানো হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ১৯৪৭ সালে ভারত ও পাকিস্তান বিভক্তির পর বগুড়া শহরের জিরো পয়েন্ট সাতমাথার উত্তরপাশে কবি নজরুল ইসলাম সড়ক সংলগ্ন প্রায় ২৮ শতক জায়গার উপর নির্মিত ধর্মশালা ভবনটি ছেড়ে যান মারোয়ারীরা। এরপর ওই ভবনসহ জায়গাটি সরকারি সম্পত্তি হিসেবে জেলা প্রশাসনের ভাড়াটিয়া হিসেবে বিভিন্ন সংগঠন ও প্রতিষ্ঠান ব্যবহার করে আসছে।

সর্বশেষ ২০০৩ সালে কবি নজরুল ইসলাম সড়ক সম্প্রসারনের কারণে ভবনের সামনের অংশ ভেঙ্গে ফেলা হয়। তখন ওই ভবন ব্যবহারকারী বগুড়া প্রেসক্লাব, জাতীয় মহিলা সংস্থা, রোটারী ক্লাবসহ কয়েকটি সংগঠন ভবনটি ছেড়ে যায়। এরপর সেখানকার খালি জায়গাটি বগুড়া শহর ক্ষুদ্র কাপড় ব্যবসায়ী হকার্স সমিতির সদস্যরা ব্যবসায় করে আসছেন।

এ অবস্থায় গত ৮ অক্টোবর হঠাৎ করে বগুড়া প্রেসক্লাবে মারোয়ারী ধর্মশালা কমিটি বগুড়ার নামে এক সংবাদ সম্মেলনে ওই স্থানে বহুতল ভবন নির্মানের ঘোষণা দেয়া হয়। কমিটির পক্ষে সভাপতি কল্যাণ প্রসাদ পোদ্দার ও সাধারণ সম্পাদক অশোক কুমার আগরওয়ালা ঘোষণা দেন, আমরা একটি ডেভেলপারের সাথে চুক্তি করেছি সেখানে বহুতল ভবন বিশিষ্ট ধর্মশালা কমপ্লেক্স নির্মাণ করতে যাচ্ছি। কারন ১৯৮২ সালে আদালত একটি রায় আমাদের পক্ষে দিয়েছে যা আজো বলবৎ রয়েছে।

এদিকে ১০ অক্টোবর বগুড়া প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে বগুড়া শহর ক্ষুদ্র কাপড় ব্যবসায়ী হকার্স সমিতি অভিযোগ করেছে, তাদের সদস্যদের ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান থেকে জোর পূর্বক উচ্ছেদ করে সেখানে ক্ষমতাসীন দলের প্রভাবশালী একটি অংশের সহায়তায় অবৈধভাবে বহুতল ভবন নির্মানের ঘোষনা দিয়েছে মারোয়ারী ধর্মশালা কমিটি। উচ্ছেদের জন্য কতিপয় সন্ত্রাসী হকারদের ওপর লেলিয়ে দিয়ে মারপিট ও হুমকি দেয়া হয়েছে। তারা এ ব্যাপারে প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করেন।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ক্ষুদ্র কাপড় ব্যবসায়ী, জেএসডি, যুবদল, ওষুধের দোকান, এলজি বাটারফ্লাই ও রুপালী ব্যাংকের দখলীয় প্রায় ২৪ শতক সম্পত্তির পক্ষে তাদের কোন বৈধ কাগজপত্র নেই। বর্তমানে বগুড়া জেলা অর্পিত সম্পত্তি প্রত্যার্পন ট্র্যাব্যুনালে একটি মামলা বিচারাধীন রয়েছে।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫