ঢাকা, বুধবার,১৮ অক্টোবর ২০১৭

রংপুর

সৈয়দপুরে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ত্রাণ লুটের মামলা

সৈয়দপুর (নীলফামারী) সংবাদদাতা

১৩ অক্টোবর ২০১৭,শুক্রবার, ১৬:২৯


প্রিন্ট

নীলফামারীর সৈয়দপুরে বন্যাদুর্গতের জন্য বাংলাদেশ রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির ত্রাণ লুটের অভিযোগে ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্যসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা হয়েছে। গত ৮ অক্টোবর সোসাইটির নীলফামারী জেলা শাখার বন্ধুত্ব বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ইফতেখার আহমেদ উদাস নিজে বাদী হয়ে সৈয়দপুর থানায় মামলাটি দায়ের করেন।

মামলায় উল্লেখিত আসামিরা হলেন, সৈয়দপুর উপজেলার কাশিরাম বেলপুকুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি এনামুল হক চৌধুরী, ওই ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য এছাউল হক এবং ইউপি সদস্যের দুই পুত্র মুন্না ও আউয়াল। এছাড়া মামলায় অজ্ঞাত আরো ২২-২৩ জনকে আসামি করা হয়েছে।

মামলার বাদী ইফতেখার আহমেদ উদাস এ প্রতিবেদককে জানান, গত ২ অক্টোবর সৈয়দপুর উপজেলার কাশিরাম বেলপুকুর ইউনিয়নের অচিনার ডাঙ্গা নামক স্থানে ওই ইউনিয়নের নির্দিষ্ট তিনশ’ পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণের উদ্যোগ নেয়া হয়। নীলফামারী জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা জয়নাল আবেদীনের উপস্থিতিতে রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির ১২জন স্বেচ্ছাসেবক ত্রাণ বিতরনে অংশ নেয়। ত্রাণ বিতরণ চলাকালে ইউপি সদস্য এছাউল হক জোরপূর্বক তালিকাবহির্ভূত পরিবারের জন্য ত্রাণ দাবি করে। এতে স্বেচ্ছাসেবকেরা অস্বীকৃতি জানালে দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়। এ সময় ওই ইউপি সদস্যের দুই পুত্র মুন্না ও আউয়ালের নেতৃত্বে ২২-২৩ জন মানুষ লাঠিসোটা নিয়ে তাদের ওপর আক্রমণ চালিয়ে ৮৩টি পরিবারের জন্য বরাদ্দকৃত ত্রাণ লুট করে।

তিনি জানান, আক্রমণকারীদের লাঠির আঘাতে স্বেচ্ছাসেবকের ৮জন সদস্য গুরুতর আহত হয়। আহতদের নীলফামারী সদর হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়া হয়েছে।

সূত্র মতে, রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির বিতরণকৃত ত্রাণের মধ্যে প্রতি পরিবারের জন্য ১২৫০ টাকা মূল্যের একটি প্যাকেট ছিল। যার মধ্যে ছিল ১৫ কেজি চাল, ২ কেজি ডাল, ১ লিটার তেল, ১ কেজি চিনি, ১ কেজি লবন ও ১ কেজি সুজি। লুট হওয়া মালামালের মূল্য প্রায় ১ লাখ ৩ হাজার ৭৫০ টাকা।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সৈয়দপুর থানার এসআই মো: জাহাঙ্গীর আলম জানান, আসামিরা পলাতক থাকায় গ্রেফতার করা সম্ভব হচ্ছে না। তবে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

সৈয়দপুর উপজেলার কাশিরাম বেলপুকুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এনামুল হক চৌধুরীর সাথে এ বিষয়ে মুঠোফোনে বারবার চেষ্টা করে তাকে পাওয়া না যাওয়ায় তার মন্তব্য জানা সম্ভব হয়নি।

সৈয়দপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শাহ্জাহান পাশা মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫