ঢাকা, শুক্রবার,২০ অক্টোবর ২০১৭

ক্রিকেট

আঁচড়ই কাটতে পারছে না বাংলাদেশের বোলাররা

নযা দিগন্ত অনলাইন

১২ অক্টোবর ২০১৭,বৃহস্পতিবার, ২০:০৬


প্রিন্ট
আঁচড়ই কাটতে পারছে না বাংলাদেশের বোলাররা

আঁচড়ই কাটতে পারছে না বাংলাদেশের বোলাররা

দুর্বল ব্যাটিংয়ের পর এবার বাংলাদেশী বোলাররা বলতে গেলে আঁচড়ই কাটতে পারছে না প্রোটিয়া ব্যাটসম্যানেদের। কিউরেটরা যেখানে বলছেন ব্লুমফন্টেইনের এই পিচে চার শ' রান করাও সম্ভব, সেখানে মাত্র ২৫৫ রানেই থেমে গেছে বাংলাদেশের ইনিংস। কিন্তু দক্ষিণ আফ্রিকার আমন্ত্রিত একাদশের এখন পর্যন্ত মাত্র একটি উইকেট ফেলতে পেরেছেন বাংলাদেশী বোলাররা। দক্ষিণ আফ্রিকান ব্যাটিং দেখে মনে হচ্ছে পিচটি পুরোপুরি বোলারদের বধ্যভূমি।

এখন পর্যন্ত ১ উইকেট হারিয়ে ১৫০ রান করেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। ক্রিজে আছেন ম্যাথু ব্রিজকে ও জেপি ডুমিনি। এর আগে ম্যাচে বাংলাদেশের একমাত্র সফল বোলার নাসির হোসেনের হাতে কট এন্ড বোল্ড হন এইডেন মার্করাম। আউট হওয়ার আগে তিনি করেছেন ৬৮ বলে ৮২ রান। এছাড়াও ম্যাথু ব্রিজকে ৮৭ বলে ৬০ রান করে এখনো অপরাজিত আছেন। ক্রিজের অপর প্রান্ত আগলে রেখেছেন জেপি ডুমিনি। তার সংগ্রহ এখন পর্যন্ত ২ রান।

এদিকে বাংলাদেশী বোলারদের মধ্যে মাশরাফি ৫ ওভার বল করে দিয়েছেন ২৭ রান। মোস্তাফিজ করেছেন ৬ ওভার, দিয়েছেন ৩৩ রান। রাকিব ৫ ওভার বল করে ৩০, মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন ৩ ওভার বল করে ২০ রান দিয়েছেন। এছাড়াও রুবেল হোসেন দিয়েছেন ৫ ওভারে ২২ রান। নাসির করেছেন ৪ ওভার বল করে পেয়েছেন এক উইকেট। দিয়েছেন ২০ রান।

টেস্টের ভূত ছাড়েনি বাংলাদেশকে
ওয়ানডে সিরিজের আগে আজ একমাত্র প্রস্তুতি ম্যাচ খেলছে বাংলাদেশ। দক্ষিণ আফ্রিকার আমন্ত্রিত একাদশের বিপক্ষে টসে জিতেছে বাংলাদেশ। কিন্তু সাকিব আর সাব্বিরের হাফ সেঞ্চুরি ছাড়া আর কেউই ক্রিজে থিতু হতে পারেনি। ফলে ৪৮.১ ওভারে ২৫৫ রানেই থেমে যায় টাইগারদের ইসিংস।
টাইগারদের বডি ল্যাঙ্গুয়েজ বলছে টেস্ট সিরিজে ব্যাটিং বিপর্যয়ের ভূত এখনো মাথা থেকে নামেনি। মাত্র ৬৩ রান তুলতেই সাজঘরে ফিরে যান টপ অর্ডারের ৪ ব্যাটসম্যান।

তামিম ইকবালের অনুপস্থিতিতে ইনিংস উদ্বোধন করেন সৌম্য সরকার আর ইমরুল কায়েস। কিন্তু এবারো ব্যাট হাতে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছেন সৌম্য সরকার। ১৩ বল খেলে তিনি করেছেন মাত্র ৩ রান। ক্রিজের অপর প্রান্তে থাকা ইমরুল করেছেন ৩১ বলে ২৭ রান। কিন্তু ম্যাচের অষ্টম ওভারে রবি ফ্রাইলিঙ্কের দ্বিতীয় শিকার হন ইমরুল। ঠিক এর আগের বলেই আকাশে বল উড়িয়ে আউট হয়েছেন সৌম্য। তিন নম্বরে নেমে লিটন দাসও ইনিংস লম্বা করতে পারেননি। তিনি আউট হয়েছেন ৮ রানে। অন্যদিকে আক্রমণাত্মক ব্যাটিং করতে নেমে ২২ রানেই থেমে যায় মুশফিকের ইনিংস।

পঞ্চম উইকেট জুটিতে সে বিপর্যয় কিছুটা সামলে উঠেছিলেন সাকিব আল হাসান আর মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। এই উইকেটে তারা ৫৭ রান যোগ করেন। কিন্তু মাহমুদুল্লাহ এলবিডব্লিউ আউট হয়ে যান ২১ রানে। তারপর সাব্বিরকে নিয়ে ইনিংস টেনে নেন সাকিব। তিনি করেছেন ৬৭ বলে ৬৮ রান। সাব্বির করেছেন করেছেন ৫৪ বলে ৫২ রান। তিনি সাজঘরে ফেরার পর ১২ রান করে আউট হন নাসির হোসেন। শেষ দিকে মাশরাফি বিন মর্তুজার ১৩ বলে করেন ১৭ রান।


র‌্যাঙ্কিংয়ে ছয়ে ওঠার হাতছানি
আইসিসি ওয়ানডে র‌্যাঙ্কিংয়ে ৯৪ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে বাংলাদেশ বর্তমানে সপ্তম স্থানে রয়েছে। মাত্র এক পয়েন্ট বেশি ৯৫ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে আইসিসি চ্যাম্পিয়নস ট্রফি জয়ী পাকিস্তান রয়েছে ষষ্ঠ স্থানে। ৮৬ পয়েন্ট নিয়ে শ্রীলঙ্কা রয়েছে অষ্টম স্থানে। তিন দলেরই ওয়ানডে সিরিজ চলমান রয়েছে।

ফলে সুযোগ রয়েছে র‌্যাঙ্কিংয়ে ওঠা-নামার। বাংলাদেশের সামনে সুযোগ রয়েছে ওয়ানডে র‌্যাঙ্কিংয়ের ষষ্ঠ স্থানে উঠে আসার। সেক্ষেত্রে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষের তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজ বাংলাদেশের জন্য একটা সুযোগ। সিরিজে বাংলাদেশ স্বাগতিকদের ৩-০ ব্যবধানে হারাতে পারে তাহলে বাংলাদেশের রেটিং পয়েন্ট হবে ১০০। টাইগাররা উঠে যাবে ষষ্ঠ স্থানে। বাংলাদেশ যদি দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে ৩-০ ব্যবধানে হোয়াইটওয়াশ হলে বাংলাদেশের রেটিং পয়েন্ট হবে ৯২। অন্যদিকে শ্রীলঙ্কা যদি পাকিস্তানকে ৫-০ ব্যবধানে হারাতে পারে তাহলে শ্রীলঙ্কার পয়েন্ট হবে ৯১। আর পাকিস্তানের পয়েন্ট হবে ৮৯। এই সমীকরণেও বাংলাদেশ র‌্যাঙ্কিংয়ের ষষ্ঠ স্থানে উঠেতে পারে। তাছাড়া বাংলাদেশ যদি প্রোটিয়াদের কাছে ২-১ ব্যবধানে সিরিজ হারে তাহলে বাংলাদেশের পয়েন্ট হবে ৯৫।

আর যদি কোনোভাবে ২-১ ব্যবধানে মাশরাফি বাহিনী সিরিজ জিতে যায় তাহলে রেটিং পয়েন্ট হবে ৯৭। তাতে পাকিস্তানকে পেছনে ফেলে ছয়ে উঠতে পারবে বাংলাদেশ। তবে পাকিস্তান ষষ্ঠ স্থানেই থাকবে যদি তারা ৫-০ কিংবা ৪-১ ব্যবধানে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজ জিতে যায়। টেস্টে শ্রীলঙ্কা যেভাবে পাকিস্তানকে ধরাশায়ী করেছে তাতে করে ওয়ানডেতে এই ব্যবধানে পাকিস্তানের পক্ষে সিরিজ জেতা সহজ হবে না। ফলে দক্ষিণ আফ্রিকায় মাশরাফিদের সাফল্যের পাশপাশি শ্রীলংকার বিপক্ষে পাকিস্তান বাজে সফল করলে ষষ্ঠ স্থানে ওঠার সুযোগ রয়েছে বাংলাদেশের সামনে।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫