ঢাকা, মঙ্গলবার,১৭ অক্টোবর ২০১৭

উপমহাদেশ

সহকর্মীর স্ত্রীর সাথে অবৈধ সম্পর্ক : জ্যেষ্ঠতা হারালেন ব্রিগেডিয়ার

নয়া দিগন্ত অনলাইন

১২ অক্টোবর ২০১৭,বৃহস্পতিবার, ১৩:৫৬ | আপডেট: ১২ অক্টোবর ২০১৭,বৃহস্পতিবার, ১৪:২৮


প্রিন্ট
প্রতিকী ছবি

প্রতিকী ছবি

এক সহকর্মীর স্ত্রীর সাথে অবৈধ সম্পর্কের কারণে ১০ বছরের জ্যেষ্ঠতা হারানোর পাশাপাশি জেনারেল কোর্ট মার্শালের তীব্র তিরষ্কারের মুখোমুখি হলেন ভারতের সেনাবাহিনীর ব্রিগেডিয়ার র‌্যাঙ্কের এক কর্মকর্তা। তবে তিনি নিজের অপরাধ স্বীকার করে নেওয়ায় তার শাস্তির পরিমাণ তুলনামূলকভাবে কমই রাখা হয়েছে।

চীনের বিরুদ্ধে ভারতীয় সেনার যে ইনফ্যাট্রি ব্রিগেড ছিল তারই দায়িত্বে ছিলেন এই কর্মকর্তা। তবে এই শাস্তি ঘোষণার পরেও যদি তিনি আগামীদিনে চাকরি করতে চান, তাহলে মেজর জেনারেলের র‌্যাঙ্কে কোনোদিন পদোন্নতি পাবেন না।

দেশটির সেনাবাহিনীর এক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ‘ভাইয়ের মতো কোনো সহকর্মীর স্ত্রীর সঙ্গে অবৈধ সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে সহকর্মীর বিশ্বাস ভাঙাকে সেনাবাহিনীতে অত্যন্ত গুরুতর অপরাধ এবং অপ্রত্যাশিত আচরণ বলেই ধরে নেওয়া হয়। এই অপরাধ প্রমাণিত হলে নির্দিষ্ট কর্মকর্তাকে সাধারণত চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়। কখনও কখনও পেনশন এবং অন্যান্য সুযোগ সুবিধেও বন্ধ করে দেওয়া হয়। কিন্তু এক্ষেত্রে যেহেতু নিজেই দোষ স্বীকার করে নিয়েছেন তিনি তাই শাস্তি তুলনামূলকভাবে কমই পাচ্ছেন।’

ব্রিগেডিয়ারের বিরুদ্ধে ১৩টি অভিযোগ আনা হয়েছিল। পরস্ত্রীর সঙ্গে অবৈধ সম্পর্ক স্থাপন ছাড়াও সেনাবাহিনীর সুনাম ও শৃঙ্খলা নষ্ট করার মতো গুরুতর সব অভিযোগ। কলকাতা স্থিত ইস্টার্ন আর্মি কমান্ডের অধীনে থাকা বিনাগুরিতে তার কোর্ট মার্শাল হয়। কোর্ট মার্শলে উপস্থিত ছিলেন একজন মেজর জেনারেল(মাউন্টেন ডিভিশনের দায়িত্বে থাকা) এবং ৬ জন ব্রিগেডিয়ার। সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া

বাড়িতে ঢুকে মহিলাকে একা পেয়ে ধর্ষণ ‘স্পাইডারম্যান’ চোরের
কোনো বিল্ডিংয়ের কয়েক তলা দেওয়াল বেয়ে উঠে পড়ত সে। এরপর লুঠপাঠ করে চম্পট দিত ‘স্পাইডারম্যান’ চোর। গত মঙ্গলবার তাকে গ্রেফতার করে ভারতীয় পুলিশ। জেরার সময় সে স্বীকার করেছে যে, গত মে মাসে একটি ব্যবসায়ীর বাড়িতে ঢুকে পড়েছিল। সেই সময় এক মহিলাকে বাড়িতে একা পেয়ে সে ধর্ষণ করেছিল। নির্যাতিতা চুরির অভিযোগ করলেও যৌন নিগ্রহের কথা পুলিশকে জানাননি।

চোরের কাছ থেকে ঘটনার কথা জানতে পেরে কাউন্সিলরসহ পুলিশের একটি দল ওই ব্যবসায়ীর বাড়িতে যায়। নির্যাতিতা বলেন, কলঙ্কের ভয়েই তিনি ওই কথা গোপন করেছিলেন। পুলিশের দল তাকে বুঝিয়ে তার বক্তব্য রেকর্ড করেছে পুলিশ। জয় প্রকাশ নামে ওই চোরের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগও দায়ের করা হয়েছে।

প্রকাশ পুলিশকে জানিয়েছে, সে দেওয়াল ভেঙে কোনো বাড়ির বারান্দায় উঠে পড়ত। এরপর সে স্ক্রু ড্রাইভার দিয়ে দরজার তালা খুলে বাড়িতে ঢুকে পড়ত। গত মে মাসে উত্তরপশ্চিম দিল্লির ওই ব্যবসায়ীর বাড়িতে এভাবেই ঢুকে পড়ে। প্রথমে সে বাড়িতে কাউকে দেখতে পায়নি। এরপর বেডরুমে ঢুকে বছর ৩০-এর এক মহিলাকে ঘুমিয়ে থাকতে দেখে। তখন সে তার মুখ চেপে ধর্ষণ। এবিপি আনন্দ।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫