আলি আকবর সালেহি
আলি আকবর সালেহি

‘ট্রাম্প পরমাণু সমঝোতা থেকে সরে গেলে নানা পদক্ষেপ নেয়ার কথা ভাবছে ইরান’

নয়া দিগন্ত অনলাইন

চূড়ান্ত পরমাণু সমঝোতা বা জেসিপিওএ থেকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সরে গেলে তার বিপরীতে নানা পদক্ষেপ নেয়ার কথা ভাবছে ইরান। ইরানের সঙ্গে ছয় জাতিগোষ্ঠী এ পরমাণু সমঝোতা সই করেছিল।

লন্ডনে ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরিস জনসনের সঙ্গে আলাপের পর ইরানের আণবিক শক্তি সংস্থা বা এইওআইয়ের প্রধান আলি আকবর সালেহি জানান, চূড়ান্ত পরমাণু সমঝোতা বা জেসিপিওএ থেকে ট্রাম্প সরে গেলে তার বিপরীতে নানা পদক্ষেপ নেয়ার কথা ভাবছে ইরান।

তিনি বলেন, নানা অবস্থার জন্য ইরান প্রস্তুত রয়েছে এবং নিঃসন্দেহে এর যথাযথ জবাব দেয়া হবে। পরমাণু সমঝোতা বজায় থাকবে এ আশা ব্যক্ত করে তিনি বলেন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন এ পর্যন্ত পরমাণু সমঝোতা বজায় রাখার ইচ্ছা ব্যক্ত করেছে। কিন্তু আমেরিকাকে এ সমঝোতা থেকে বের হয়ে যাওয়া ইউরোপীয় ইউনিয়ন ঠেকাতে পারবে কিনা সে বিষয়ে আগাম কিছু বলা সম্ভব নয় বলেও জানান তিনি।

পরমাণু সমঝোতা টিকে থাকুক ইরান তা চায়। অবশ্য যে কোনো মূল্যে এটি টিকে থাকুক তা ইরান চায় না বলেও জানান তিনি। তিনি বলেন, এ ক্ষেত্র মাত্র দু’টি পথই খোলা আছে। আর তা হলো, সবপক্ষ পরমাণু সমঝোতা থেকে বের হয়ে যাবে বা এর প্রতি প্রতিশ্রুতি বজায় রাখবে। এ ছাড়া তৃতীয় কোনো পথ খোলা নেই বলেও জানান তিনি।

'প্রয়োজনে ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণের সক্ষমতা বাড়িয়ে এক লাখ এসডাব্লিউইউ করবে ইরান'
ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের পরমাণু শক্তি সংস্থার প্রধান আলী আকবর সালেহি বলেছেন, আমেরিকা পরমাণু সমঝোতা লঙ্ঘন করলে ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণের সক্ষমতা এক লাখ এসডাব্লিউইউ-তে উন্নীত করা হবে।

তিনি গত ফেব্রুয়ারিতে কোম প্রদেশে সাংবাদিকদের বলেছেন, "আমরা প্রয়োজন হলে দেড় বছরের মধ্যে ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণের সক্ষমতা এক লাখ এসডাব্লিউইউ-তে উন্নীত করব। পরমাণু সমঝোতা সইয়ের আগে আমাদের এ ক্ষেত্রে সক্ষমতা ছিল মাত্র নয় হাজার এসডাব্লিউইউ।"

সালেহির বক্তব্য অনুযায়ী, এ ধরনের সিদ্ধান্ত নেয়া হলে ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণের সক্ষমতা আগের চেয়ে ৯১ হাজার এসডাব্লিউইউ বাড়বে।

এসডাব্লি্উইউ হচ্ছে ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণ প্রক্রিয়ায় একেকটি সেন্ট্রিফিউজের সক্ষমতা। সালেহি আরও বলেছেন, ইরান সব সময় আন্তর্জাতিক আইন ও চুক্তি মেনে চলেছে এবং আন্তর্জাতিক পরমাণু শক্তি সংস্থা (আইএইএ), জাতিসংঘ ও নিরাপত্তা পরিষদের প্রতিবেদনেও তা স্বীকার করা হয়েছে।

তিনি বলেন, ইরান কারো হুমকিতে ভয় পায় না এবং কারো হাসিতে আশাবাদীও হয়ে উঠে না।

আমেরিকা রাজনৈতিক বিভ্রান্তির মধ্যে রয়েছে উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, দেশটি কি চাচ্ছে তা তাদের নিজেদেরও জানা নেই।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.