মারধরের শিকার মজিবর
মারধরের শিকার মজিবর

হাসপাতালের জরুরি বিভাগে ডাক্তারদের আটকে রেখে রোগীর উপর সন্ত্রাসীদের হামলা

ঠাকুরগাঁও সংবাদদাতা

ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের ডাক্তাদেরকে ঘরে তালা বন্ধ করে দিয়ে জরুরী বিভাগের ভিতরে চিকিৎসারত মজিবর রহমান (২৫) নামে এক রোগীকে মারধরে করেছে কয়েকজন সন্ত্রাসী। এতে রোগীকে বাঁচাতে গিয়ে হামিদুর রহমান (৩৫) নামে এক ব্যক্তি গুরুতর আহত হয়েছেন।

বুধবার রাত ১০টার সময় বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এ ঘটনা ঘটে। মজিবর রহমান বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার দুওসুও পেট্রোলপাম্প এলাকার সাহির উদ্দীনের ছেলে।

জানা গেছে, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মজিবর ও তার ভাই খলিলুর রহমান বালিয়াডাঙ্গী বাজারে একটি মোবাইলের দোকানের সামনে দাঁড়িয়ে ছিল। এসময় মহিষমারী গ্রামের পজির উদ্দীন খলিলুরের হাতে থাকা মোবাইল ফোনটি ছিনতাই করার সময় ধরা পড়ে। পরে ছিনতাইয়ের বিষয়টি বুধবার বিকাল ৫টার সময় বড়বাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের ইউপি সদস্য ইসরাইলের নিকট সমঝোতার কথা থাকলেও পজির ও তার লোকজন হাজির হয়নি।

আহত মজিবর বলেন, সন্ধ্যায় আমি হোটেল আগমণীতে নাস্তা খাওয়ার জন্য গেলে পজির ও তার লোকজন আমার উপর অতর্কিত হামলা চালিয়ে আমার মাথা ফাটিয়ে দেয়। স্থানীয় লোকজন আমাকে উদ্ধার করে বালিয়াডাঙ্গী হাসপাতালের জরুরী বিভাগে নিয়ে যায় এবং আমার বড় ভাই খলিলুর রহমান ও লতিফুর রহমানকে খবর দেয়।

রোগীকে বাঁচাতে গিয়ে আহত হওয়া হামিদুর রহমান বলেন, আমি হাসপাতালের উপর থেকে ওষুধ নেওয়ার জন্য নিচে নামার সময় দেখি যে, ৫ জন সন্ত্রাসী জরুরি বিভাগের ভিতরে একজন রোগীকে লোহার রড ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে বেধড়ক মারপিট করছে। আমি বাঁচাতে গেলে সন্ত্রাসীদের আঘাতে আমার ডান হাত ভেঙ্গে গেছে।

বালিয়াডাঙ্গী হাসপাতালের কর্তব্যরত আরএমও আবুল কাসেম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এ রকম ঘটনা ইতিপূর্বে হাসপাতালে কোনোদিন ঘটেনি। সন্ত্রাসীরা ফিল্মি স্টাইলে এসে ডাক্তাদেরকে জিম্মি করে রোগীকে মারপিট করে গেছে। বিষয়টি দুঃখজনক। পরে গুরুতর আহত মজিবর রহমানকে ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাৎক্ষণিক বিষয়টি থানায় খবর দিলে বালিয়াডাঙ্গী থানার এসআই আজিজুল হক ঘটনাস্থলে আসেন।

বালিয়াডাঙ্গী থানার ওসি মোস্তাফিজার রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এ ঘটনায় আজ বৃহস্পতিবার একটি মামলা হয়েছে। জড়িতদের গ্রেফতার করার চেষ্টা চলছে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.