ঢাকা, মঙ্গলবার,১৭ অক্টোবর ২০১৭

ফুটবল

হ্যাটট্রিকে নোবলেক্সকেও বাঁচালেন মেসি!

নযা দিগন্ত অনলাইন

১১ অক্টোবর ২০১৭,বুধবার, ১৯:১৪


প্রিন্ট
হ্যাটট্রিকে নোবলেক্সকেও বাঁচালেন মেসি!

হ্যাটট্রিকে নোবলেক্সকেও বাঁচালেন মেসি!

মেসির হাত ধরে আর্জেন্টিনা রাশিয়া বিশ্বকাপের টিকিট নিশ্চিত করায় হাঁফ ছেড়ে বাঁচল নোবলেক্স। যদি আর্জেন্টিনা বাদ পড়ে যেত, তাহলে লোকাসানের টাকা গুণতে গুণতে মাথার চুল খালি হওয়া যাওয়ার আশঙ্কা উড়িয়ে দেয়া যেত না। কারণ আর্জেন্টাইন টেলিভিশন প্রস্তুতকারী এই প্রতিষ্ঠানটি প্রচার করেছিল ‘আর্জেন্টিনা বিশ্বকাপে খেলতে না পারলে টিভির টাকা ফেরত’ দেয়া হবে। শুধু তাই নয়, টিভিটাও ফেরত নেয়া হবে না।

পেরুর ম্যাচের আগে ২৪ আগস্ট থেকে ৩১ আগস্ট পর্যন্ত নোবলেক্স টিভি নতুন এই ‘অফার’ দিয়েছিল আর্জেন্টাইনদের জন্য। তাদের প্রচারণাটা ছিল ২৪ থেকে ৩১ আগস্টের মধ্যে কেউ যদি তাদের কাছ থেকে ৫০ ইঞ্চি ‘ফোর কে’ টিভি কেনেন এবং পরে যদি আর্জেন্টিনা বিশ্বকাপে খেলতে না পারে তাহলে টিভির টাকা ফেরত দেয়া হবে। প্রতিষ্ঠানটি আরো জানিয়েছিল, নোবলেক্স টাকা ফেরত দিলেও টিভি ক্রেতার কাছেই থাকবে।

আর্জেন্টাইন মিডিয়ার খবর, এই ক্যাম্পেইনের সময় প্রায় পাঁচ শ'র বেশি টিভি বিক্রি হয়েছে। কিন্তু আর্জেন্টিনা পেরুর সাথে গোলশূন্য ড্র করায় বিশ্বকাপে খেলা নিয়েই শঙ্কায় পড়ে দেশটি। তাই নোবলেক্স কর্তৃপক্ষ ইতোমধ্যেই ক্রেতাদের টাকা ফেরত দেয়ার হিসাব কষছিল!

কিন্তু শেষ পর্যন্ত অবতারের মতো গোটা আর্জেন্টিনা তো বটেই, বিশাল লোকসান থেকে নোবলেক্সকে বাঁচালেন মেসি। ইকুয়েডরকে ১-৩ গোলে হারিয়ে দিয়েছে আর্জেন্টিনা। মেসি করেছেন হ্যাটট্রিক। দেশের হয়ে এটি পঞ্চম হ্যাটট্রিক হলেও এটিই তার জীবনে সবচেয়ে স্মরনীয় হয়ে থাকবে।


মেসি শুধু বার্সার নয়, আর্জেন্টিনারও
কথায় আছে, সর্বকালে সেরা খেলোয়াড়েরা নিজেরাই নিজেদের জাদু দেখানোর মুহূর্ত বেছে নেন এবং চমকে দেন গোটা বিশ্বকে। ওস্তাদ তার শেষ মারটা শেষ রাতে মারার জন্যই রেখে দেন। লিওনেল মেসি যেন আবারো সেটা প্রমাণ করলেন। ভূপৃষ্ঠ থেকে প্রায় নয় হাজার ফুট উপরে যেন আকাশ ছুঁতেই খেললেন তিনি।। হ্যাটট্রিক তো করলেনই, সাথে একাই দলকে টেনে নিয়ে গেলেন রাশিয়া বিশ্বকাপে।

মেসির সমালোচকেরা প্রায়ই বলে থাকেন, যে মেসি বার্সেলোনার হয়ে খেলতে নেমে অপ্রতিরোধ্য হয়ে যান, একমাত্র ফাউল করা ছাড়া যাকে আটকানোর সাধ্য কারো নেই, সেই মেসিই কিনা আর্জেন্টিনার জার্সিতে একেবারেই নিষ্প্রভ! কিন্তু সর্বকালের সেরাদের এসব কথায় কান দিলে চলে না।

আপন জাদুতে তিনিই এবার দেশের জার্সিতে নিজের পঞ্চম হ্যাটট্রিকটি পূর্ণ করলেন। বার্সেলোনার হয়ে করেছেন ৩৯টি হ্যাটট্রিক। শুধু তাই নয়, এবারের ল্যাটিন আমেরিকান বাছাইপর্বে মেসি গোল করেছেন ২১টি। যা মহাদেশটির বিশ্বকাপ বাছাই পর্বের সর্বোচ্চ গোলদাতার রেকর্ড।

ম্যাচের শুরুতেই মাত্র ৪০ সেকেন্ডে গোল হজম করতে হয় আর্জেন্টিনাকে। একে তো ভূপৃষ্ঠ থেকে নয় হাজার ফুট ওপরে, অক্সিজেনের অভাব, তার ওপর বলের অসংলগ্ন আচরণ। কিন্তু কোনো কিছুরই যেন মেসিকে আটকানো সাধ্য ছিল না।

ম্যাচের ১২ মিনিটে অ্যাঙ্গেল ডি মারিয়ার ক্রস থেকে দুর্দান্ত গোল করে দলকে সমতায় ফেরান এই ফুটবল জাদুকর। ঠিক এর ৮ মিনিট পরেই আবারো ইকুয়েডরের জালে বল জড়ান মেসি। ঠিক তখন শুধু দল নয় গোটা আর্জেন্টিনারই যেন ঘাম দিয়ে জ্বর ছাড়ে। কিন্তু তাতেও যেন সন্তুষ্ট হওয়া যাচ্ছিল না। প্রায় ৪০ গজ দূর থেকে সতীর্থের পাস বুক দিয়ে নামান মেসি। তারপর চিরাচরিত র‌্যাটেল স্নেকের মতো এঁকেবেঁকে চুরমার করেন ইকুডরের রক্ষণভাগ। সবশেষে গোলরক্ষকের মাথার ওপর দিয়ে ‘লব’ শট এবং এবং গোল। গোটা দেশকেই আনন্দে ভাসালেন বর্তমানের সেরা এই ফুটবলার।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫