ঢাকা, সোমবার,১১ ডিসেম্বর ২০১৭

মধ্যপ্রাচ্য

পাল্টা ব্যবস্থা গ্রহণের হুমকি ইরানের

প্রেস টিভি

১১ অক্টোবর ২০১৭,বুধবার, ০৭:০৬


প্রিন্ট
পাল্টা ব্যবস্থা গ্রহণের হুমকি ইরানের

পাল্টা ব্যবস্থা গ্রহণের হুমকি ইরানের

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প শিগগির ইরানের ব্যাপারে তার সরকারের অবস্থান ঘোষণা করতে পারেন। তাছাড়া ইরানের বিপ্লবী গার্ড বাহিনী বা আইআরজিসিকে সন্ত্রাসী সংগঠন বলেও আখ্যা দিতে পারেন। সে ক্ষেত্রে পাল্টা ব্যবস্থার হুমকি দিয়েছে ইরান। তেহরান বলেছে, এ ক্ষেত্রে সব বিকল্পই নিয়ে আলোচনা হতে পারে।


মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প আগামী ১৫ অক্টোবর সম্ভাব্য ওই ঘোষণায় ইরানের সাথে ছয় জাতিগোষ্ঠীর স্বাক্ষরিত পরমাণু সমঝোতা থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে একতরফাভাবে বের করে নেবেন বলে খবর বেরিয়েছে। পরমাণু সমঝোতা যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় স্বার্থ রক্ষা করছে না- এমন অজুহাত দেখিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ওই ঘোষণা করবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।


তিনি সত্যি সত্যি এ ঘোষণা দিলে তার পরবর্তী ৯০ দিনের মধ্যে এ সমঝোতায় থাকা না থাকার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবে মার্কিন কংগ্রেস। ১৫ অক্টোবরের ঘোষণায় ট্রাম্প আইআরজিসিকে একটি সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে ঘোষণা করার কথাও বলবেন বলে জানিয়েছে মার্কিন গণমাধ্যম।
ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মাদ জাওয়াদ জারিফ বলেছেন, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প যদি ইরানের বিপ্লবী গার্ড বাহিনী বা আইআরজিসিকে সন্ত্রাসী সংগঠন বলার মতো ‘কৌশলগত ভুল’ করে তাহলে তেহরান পাল্টা ব্যবস্থা নেবে।


তিনি বলেন, ‘যদি মার্কিন কর্মকর্তারা এ ধরনের কৌশলগত ভুল করে তাহলে ইরান পাল্টা ব্যবস্থা নেবে। জারিফ আরো বলেন, ‘এ ব্যাপারে কিছু ব্যবস্থা নেয়ার কথা বিবেচনা করা হচ্ছে এবং তা সময়মতো বাস্তবায়ন করা হবে।’


ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রী এ খবরের ব্যাপারে সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, ট্রাম্প এ ধরনের পদক্ষেপ নিলে ইরানি জনগণের কাছে যুক্তরাষ্ট্র আরো বেশি ঘৃণিত ও নিন্দিত দেশে পরিণত হবে। এর আগে রোববার আইআরজিসির কমান্ডার মেজর জেনারেল মোহাম্মাদ আলী জাফারি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেছিলেন, যুক্তরাষ্ট্র যদি তার বাহিনীকে ‘সন্ত্রাসী’ আখ্যা দেয় তাহলে আইএসের সাথে ইরান যে আচরণ করেছে, মধ্যপ্রাচ্যে মোতায়েন মার্কিন সেনাদের সাথেও সেই একই আচরণ করবে আইআরজিসি।

মস্কোয় মিডিয়া অফিস খুলবে সৌদি আরব

সৌদি গেজেট

সৌদি আরবের সংস্কৃতি ও তথ্যমন্ত্রী ড. আওয়াদ আল আওয়াদ এক ঘোষণায় জানিয়েছেন, মস্কোতে একটি মিডিয়া অফিস খোলা হবে। এর মাধ্যমে রাশিয়া ও সৌদির মধ্যে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক এবং আলোচনার সাথে সাথে যোগাযোগ ও সংস্কৃতির অগ্রগতি হবে।

২০১৮ সালের জানুয়ারির শেষ দিকে এই অফিস চালু করা হবে। এই অফিস দ্বিভাষিক হবে যা আরবি ভাষাকে বিশ্বের দরবারে নিয়ে যাওয়ার জন্য সেতু হিসেবে কাজ করবে। বর্তমানে রাশিয়ায় সফর করছেন সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজ। সেখানে তিনি রুশ প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন ও প্রধানমন্ত্রী দিমিত্রি মেদভেদেভের সাথে সাক্ষাৎ করেছেন। তার এই সফরকালেই দেশটির সংস্কৃতি ও তথ্যমন্ত্রীর কাছ থেকে নতুন এই ঘোষণা এলো।

আল আওয়াদ জানান, লোকজনের অংশগ্রহণ বাড়াতে, একাডেমিক আলোচনা সৌদি সংস্কৃতি বিশেষ করে আর্ট গ্যালারি, সঙ্গীত গবেষণা ও সহযোগিতা প্রসারণ, সংস্কৃতি আদান-প্রদান এবং বিভিন্ন দেশের সংস্কৃতি ও গবেষণা কেন্দ্রের মধ্যে যোগাযোগ তৈরির জন্য কাজ করবে এই মিডিয়া অফিস। সৌদির ভিশন ২০৩০ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে বেশ কিছু আধুনিক পরিকল্পনা হাতে নেয়া হয়েছে। এর আগে যেসব বিষয় দেশটিতে নিষিদ্ধ ছিল সেসব বিষয়েও সরকার কিছুটা নমনীয় হয়েছে।

মিসরে হামাস ফাতাহ সংলাপ শুরু

আনাদোলু

ফিলিস্তিনের জাতীয় ঐক্যের লক্ষ্যে মিসরের রাজধানী কায়রোতে বৈঠকে বসেছে ফিলিস্তিনের মুক্তি আন্দোলন হামাস ও ফাতাহ নেতারা। দল দু’টির মধ্যে মতপার্থক্য দূর করতে সাম্প্রতিক উদ্যোগের অংশ হিসেবেই গতকাল এই সংলাপ শুরু হয়েছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একটি কূটনৈতিক সূত্র জানিয়েছে, আলোচনা সফল করার বিষয়ে উভয় পক্ষই আন্তরিক। 


মিসরীয় কর্তৃপক্ষ এখনো আলোচনার বিষয়বস্তু বা আলোচ্যসূচি নিয়ে কিছু বিস্তারিত জানায়নি। গাজাভিত্তিক হামাস ও পশ্চিম তীরভিত্তিক ফাতাহ আন্দোলনের মধ্যে মতবিরোধ দূর করতে সাম্প্রতিক এই উদ্যোগে নেতৃত্ব দিচ্ছে কায়রো। গত সপ্তাহে ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট রামি হামাদাল্লাহ গাজায় মন্ত্রিসভার বৈঠক করেছেন। ২০১৪ সালে ঐক্য সরকার গঠিত হওয়ার পর এটি ছিল এ ধরনের প্রথম ঘটনা।


২০০৭ সাল থেকেই গাজা ও পশ্চিম তীর রাজনৈতিক ও প্রশাসনিকভাবে বিভক্ত। সে সময় হামাস গাজার ওপর নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করে। দুই সপ্তাহ আগে পশ্চিম তীরের ক্ষমতাসীন দল ফাতাহের সাথে সমঝোতার লক্ষ্যে গাজার শাসন ক্ষমতা ছেড়ে দেয় হামাস।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫