ঢাকা, বৃহস্পতিবার,১৪ ডিসেম্বর ২০১৭

উপসম্পাদকীয়

রোহিঙ্গাবিহীন রাখাইন এবং বাঙালিবিহীন পার্বত্য চট্টগ্রাম

সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম, বীর প্রতীক

১০ অক্টোবর ২০১৭,মঙ্গলবার, ২০:৩৩


সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম

সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম

প্রিন্ট

গত সপ্তাহ থেকে ধারাবাহিকতা
বুধবার ৪ অক্টোবর ২০১৭ তারিখের কলামে (অর্থাৎ গত সপ্তাহে) আমরা আলোচনাটি শুরু করেছিলাম কিন্তু শেষ করতে পারিনি। রাখাইন এবং রোহিঙ্গা নিয়ে কিছুটা আলোচনা করেছি। আরো কিছু আলোচনা বাকি আছে। পার্বত্য চট্টগ্রাম নিয়ে মাত্র দশ-বিশটা লাইন লিখেছি; এটা নিয়ে আরো একটু লিখতে হবে। গত সপ্তাহে পার্বত্য চট্টগ্রাম নিয়ে যতটুকু লিখেছিলাম, তা আসলেই অতি সংক্ষিপ্ত। সেটা হুবহু এখানে উদ্ধৃত করলাম। অর্থাৎ পরের অনুচ্ছেদটি পুরোটাই উদ্ধৃতি।
পার্বত্য চট্টগ্রাম প্রসঙ্গ (৪ অক্টোবর ২০১৭)

ছলে-বলে-কৌশলে, সময় নিয়ে পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে বাঙালিদের বহিষ্কার করা হবে বলে আশঙ্কা বিশদভাবে ও বিস্তৃতভাবে বদ্ধমূল হয়েছে। বিশেষত ওই বাঙালি যারা ১৯৭৮ থেকে ১৯৮২ সাল পর্যন্ত সময়ে বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থান থেকে পার্বত্য চট্টগ্রামে গিয়ে বসতি স্থাপন করেন। তবে এই প্রসঙ্গে ভালো-মন্দ আলোচনা আজকে করব না। একটু আগেই প্রসিদ্ধ বাংলা শব্দগুলো লিখেছি ছল-বল-কৌশল। এরূপ ছল-বল ও কৌশল অবলম্বন ও প্রয়োগ করছে বাংলাদেশ সরকার, পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি এবং বাংলাদেশের কিছু এনজিও, বুদ্ধিজীবী এবং বাংলাদেশের মিডিয়ার একটি অংশ। এরূপ ছল-বল ও কৌশল প্রয়োগের অনেক উদাহরণের মধ্যে একটি উদাহরণ হলো ভূমিবিরোধ নিষ্পত্তি কমিশন। আলোচনাটি আগামী সপ্তাহে থাকবে। উদ্ধৃতি শেষ।
পার্বত্য চট্টগ্রামে বাঙালিদের অবস্থান বা উপস্থিতি কেন?

এ প্রসঙ্গে দীর্ঘ আলোচনা অতীতে অনেকবার করেছি, অনেক কলাম লিখেছি। একাধিক লেখকের বই পাবেন পড়ার জন্য। আমি আজকে দু’টি বইয়ের রেফারেন্স উল্লেখ করছি। এক. বইয়ের নাম : ‘পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিপ্রক্রিয়া ও পরিবেশ পরিস্থিতির মূল্যায়ন’। বইয়ের লেখক : মেজর জেনারেল অব: সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বীর প্রতীক। বইয়ের প্রকাশক মওলা ব্রাদার্স, ফোন নম্বর : ৭১৭৫২২৭ অথবা ৭১১৯৪৬৩। বইটির প্রাপ্তিস্থান : যেকোনো বড় বই বিক্রয়ের দোকানে অথবা চট্টগ্রাম মহানগর প্রেসক্লাব বিল্ডিংয়ে বাতিঘর অথবা ঢাকা মহানগর বেইলী রোডে সাগর পাবলিশার্স অথবা প্রকাশকের স্টক থেকে অথবা রকমারিডটকম নামক অনলাইন বই বিক্রেতা। দুই. বইয়ের নাম : ‘চাকমা জাতির ইতিহাস বিচার : অখণ্ড সংস্করণ’। বইয়ের লেখক : অশোক কুমার দেওয়ান। প্রকাশক শিকড়। ফোন নম্বর : ৪৭১১৬০৫৪। এই বইগুলোতে বাঙালি এবং চাকমা প্রসঙ্গ বিস্তারিতভাবে আলোচিত। তারপরেও কিছু উল্লেখ করছি। ঠিক পরবর্তী অনুচ্ছেদ দ্রষ্টব্য।

শান্তিবাহিনীর বিদ্রোহের কারণেই বাঙালি বসতি স্থাপন
পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি নামক গোপন রাজনৈতিক দলটির জন্ম হয় ১৯৭২ সালে। এই দলটির গোপন সশস্ত্র শাখা সৃষ্টি হয় ১৯৭৩ সালে; যদিও প্রশিক্ষণের জন্য প্রথম ব্যাচ ভারতে গিয়েছিল ১৯৭২ সালের শেষে। এই সশস্ত্র গোষ্ঠীর নাম ছিল শান্তিবাহিনী। এরা বিদ্রোহ শুরু করে ১৯৭৫-এর ডিসেম্বর থেকে। ডেপুটি চিফ মার্শাল ল অ্যাডমিনিস্ট্রেটর মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমান ১৯৭৬ সালে একাধিকবার পার্বত্য চট্টগ্রাম সফর করেন ও উপজাতীয় জনগণের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে আলাপ করেন।

পার্বত্য চট্টগ্রামের অর্থনৈতিক ও অবকাঠামোগত উন্নয়নপ্রক্রিয়াকে আনুষ্ঠানিকভাবে তদারকি ও উৎসাহ দেয়ার জন্য, সবার পরামর্শ নিয়েই তিনি পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড প্রতিষ্ঠা করেন। তিনি বিদ্রোহীগোষ্ঠীর সঙ্গে সংলাপের জন্য বিভিন্ন মাধ্যম সন্ধান করেন ও সক্রিয় করেন। কোনো চেষ্টাতেই কিছু হয়নি। হওয়ার কথাও নয়। কারণ শান্তিবাহিনী বা জনসংহতি সমিতি ছিল চরম বামপন্থী সংগঠন। তাদের লক্ষ্যবস্তু ছিল দীর্ঘমেয়াদি গেরিলা যুদ্ধের মাধ্যমে, পার্বত্য চট্টগ্রামের সমাজব্যবস্থা থেকে সামন্ততন্ত্র বা ফিউডালিজম তথা রাজা-দেওয়ান-খিসা-তালুকদার-হেডম্যান ইত্যাদির শাসন থেকে উপজাতীয় সমাজকে মুক্ত করা এবং পার্বত্য চট্টগ্রামকে বাংলাদেশ থেকে বিচ্ছিন্ন করা। ওইরূপ একটি গোষ্ঠী, বিদ্রোহ শুরু করার দু-তিন বছর বা তিন-চার বছরের মাথাতেই বাংলাদেশের সরকারের সঙ্গে আলোচনার টেবিলে বসবে, এরূপ আশা করাটাই অস্বাভাবিক। কারণ আলোচনার টেবিলে বসলে সমাধানের আলো দেখা যায়। কিন্তু বামপন্থী গেরিলা গোষ্ঠীগুলো আলোচনার মাধ্যমে সমাধানে আগ্রহী নয়, তারা তাদের মনমতো সমাধানে আগ্রহী, যার মানে হলো সশস্ত্র যুদ্ধের মাধ্যমে সমাধান অর্জন করা। সম্মানিত পাঠক, মেহেরবানি করে খেয়াল করুন, আমরা আলোচনা করছি ১৯৭০-এর দশকের কথা, যেই সময় দক্ষিণ এশিয়াতেই অন্তত ১৬টি এইরূপ বিদ্রোহ সচল ছিল এবং পৃথিবীব্যাপী অন্তত অর্ধশত এরূপ বিদ্রোহ সচল ছিল। কোনো মতেই ২০১৭ সালের বাস্তবতা দিয়ে ১৯৭৭ বা ১৯৭৯কে বিচার করলে চলবে না। সেই সময় মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমান এবং পরে প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান অনেকবার স্পষ্ট করেই আওয়াজ দেন, আহ্বান জানান যেন শান্তিবাহিনী আলোচনার টেবিলে আসে। এইরূপ আহ্বানের অন্যতম মাধ্যম ছিল তৎকালীন অন্যতম ব্রিগেড কমান্ডার, ব্রিগেডিয়ার এ এস এম হান্নান শাহ (এক বছর আগে মরহুম)। প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান এটা জানিয়ে দিয়েছিলেন যে, যদি শান্তিবাহিনী আলোচনার টেবিলে না আসে সমাধানের প্রয়োজনে, তাহলে সরকার একতরফাভাবেই বিভিন্ন পদক্ষেপ নিতে থাকবে। অর্থাৎ তিন-চার বছর পুরনো শান্তিবাহিনীকে অঘোষিত যুদ্ধ চালিয়ে যেতে দেয়া হবে না।

তিনটি কথা
এই স্থানে আমি সুস্পষ্ট ভাষায় বলতে চাই তিনটি কথা। প্রথম কথা এই যে, পার্বত্য চট্টগ্রামে শান্তিবাহিনী ১৯৭৫-এর ডিসেম্বরে সশস্ত্র বিদ্রোহ শুরু করেছিল এবং যে কারণেই সশস্ত্র বিদ্রোহ শুরু করুক না কেন, সেই কারণগুলো অবশ্যই ১৯৭৫ সালের ডিসেম্বরের আগেকার সময়ের বা আগের বছরগুলোর। এ রকমও বলা যায় যে, ১৯৪৭ থেকে শুরু করে ১৯৭৫ পর্যন্ত সময়ে, পার্বত্য জনগোষ্ঠীর ওপর যেসব অবিচার বা অন্যায় করা হয়েছিল, সেগুলোর প্রতিক্রিয়ায় বা সেগুলোর প্রতিবাদে, নিজের উদ্যোগে বা প্রতিবেশীর উৎসাহে বা উভয়ের মিশ্রিত প্রভাবে, শান্তিবাহিনী বিদ্রোহ শুরু করেছিল বাংলাদেশের বিরুদ্ধে। দ্বিতীয় কথা এই যে, শান্তিবাহিনীর সশস্ত্র বিদ্রোহের প্রস্তুতি ১৯৭৫ সালের ডিসেম্বর থেকে পেছন দিকে অন্ততপক্ষে তিন বছর ধরেই নেয়া হচ্ছিল, ভারতের মাটিতে এবং বাংলাদেশের মাটিতে। তৃতীয় এবং শেষ কথা এই যে, সশস্ত্র বিদ্রোহীরা যেমন বিভিন্ন কৌশল ও পদক্ষেপ গ্রহণ করে তাদের উদ্দেশ্য সফল করার জন্য, তেমনি বিভিন্ন দেশের সরকারগুলোও নিজ নিজ দেশে বিদ্রোহ দমনের জন্য বিভিন্ন কৌশল ও পদক্ষেপ গ্রহণ করে থাকে, সরকারের উদ্দেশ্য সফল করার জন্য।

বাংলাদেশের ক্ষেত্রে ১৯৭৬-৭৭-৭৮ সালের কথা বলছি। ওই সময় প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের আগ্রহে পার্বত্য চট্টগ্রামে ভৌত কাঠামো উন্নয়নের জন্য ইনটেনসিভ বা নিবিড় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়। এসব করতে গেলে অনেক কনস্ট্রাকশন বা নির্মাণকাজের প্রয়োজন পড়ে যেমন রাস্তা নির্মাণ, বিল্ডিং নির্মাণ ইত্যাদি। ওই সময় পর্যন্ত পার্বত্য চট্টগ্রামের সাধারণ মানুষের অভ্যাসই ছিল না এই ধরনের কায়িক শ্রম করার। ফলে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডের জন্য শ্রমিক প্রয়োজন হয়ে পড়ে। যখন বিভিন্ন নির্মাণকাজ ও ভৌত কাঠামো কাজ চালু করা হলো, তখন শান্তিবাহিনী কন্ট্রাক্টরের মানুষগুলোকে এবং যৎকিঞ্চিৎ প্রাপ্ত পাহাড়ি শ্রমিকদের আক্রমণ করে হত্যা করা শুরু করল। শ্রমিকদের আবাসিক শেড বা বেড়ার ঘরগুলোতে আগুন দিয়ে মেরে ফেলা হলো। শান্তিবাহিনী প্রচার করল যে, এসব উন্নয়ন কর্মকাণ্ড করা হচ্ছে জুম্মু জাতিকে ধ্বংস করার জন্য। একই সাথে সেনাবাহিনীর উপস্থিতি বৃদ্ধি পেল। সেনাবাহিনীর কর্মকাণ্ডে লজিস্টিকস সহযোগিতার জন্য স্থানীয় পাহাড়ি জনসাধারণ এগিয়ে আসতে চাইলেও, শান্তিবাহিনীর আক্রমণের কারণে আসতে পারত না। ফলে অন্য প্রকৃতির জনসাধারণ বা জনগোষ্ঠী বা জনবসতি প্রয়োজন আবশ্যক হয়ে পড়ল। এই হলো অতি সংক্ষেপে, পুনশ্চ অতি সংক্ষেপে, বাঙালিদেরকে বসতি স্থাপনের জন্য অনুমতি প্রদানের প্রেক্ষাপট। বাঙালিরা সেখানে যাওয়ার পর অনেক অনাবাদি জায়গা আবাদ করার উদ্যোগ হলো, ধানচাষ বৃদ্ধি পেল, সবজিচাষ বৃদ্ধি পেল, অর্গানাইজড মার্কেটিং শুরু হলো, নির্মাণকাজের জন্য শ্রমিক পাওয়া গেল। বাঙালিরা বসতি স্থাপন শুরু করার পর নতুন নতুন সমস্যারও উদ্ভব হলো যেমন সামাজিক, অর্থনৈতিক, সাংস্কৃতিক এবং পরিবেশ রক্ষার ক্ষেত্রে। বসতি স্থাপনের সময় তদারকি ও পরিকল্পনায় দুর্বলতা ছিল; অভিজ্ঞতার অভাবে এটাও সত্য। যা হোক, সার্বিকভাবে পুরনো সমস্যার কিছুটা সমাধান আবার নতুন সমস্যার নতুন সমাধান হয়ে উঠল দৈনন্দিন কাজ; ইংরেজি পরিভাষায় অর্ডার অব দি ডে। বাঙালিদেরকে বসতি স্থাপন করতে দেয়ার প্রতিবাদে বা প্রতিক্রিয়ায়, উত্তেজিত হয়ে, শান্তিবাহিনী বাঙালি বসতিগুলোতে আক্রমণ করতেই থাকল এবং হাজারে হাজার বাঙালি মরতেই থাকল। বাঙালি মরার সাথে সাথে, বাঙালিরা পাহাড়িদের গ্রামে আক্রমণ করতে শুরু করল, আক্রমণের ফলে পাহাড়িরা মারা গেল এবং পাহাড়িরা শরণার্থী হয়ে ভারতে গেল। বহু বছর এই প্রক্রিয়া বা এই সাইকেল বা আক্রমণাত্মক চক্র চলেছে। একপর্যায়ে কৌশলগুলো পুরনো হয়ে আসে।

বাঙালি বহিষ্কারের চিন্তা
অতএব বাঙালিদেরকে পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে বহিষ্কার করার নতুন নতুন পন্থা বা ধান্ধা সন্ধান শুরু হলো। ১৯৮২-৮৩, ১৯৮৭-৮৮ বা ১৯৯২-৯৩ বা ১৯৯৬-৯৭ সালে শান্তিবাহিনী অবশ্যই সরকারের কাছে আবেদন করেছে, দাবি দিয়েছে বাঙালিদেরকে প্রত্যাহার করে নেয়ার জন্য। উত্তর-পশ্চিম ইউরোপের কিছু সরকার এবং এনজিও এই দাবি দিয়েছে। উত্তর হয়েছে: না, প্রত্যাহার হবে না। কিন্তু ১৯৯৭-এর ডিসেম্বরের শান্তিচুক্তির মাধ্যমে এমন একটি ছদ্মবেশী বন্দোবস্ত করা হয়েছে যেন ক্রমান্বয়ে বাঙালিরা ফেরত আসতে বাধ্য হবে। শান্তিচুক্তির মাধ্যমে, পার্বত্য চট্টগ্রামের জন্য দু’টি ভোটার তালিকার কথা তৎকালীন ও বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার স্বীকার করে নিয়েছে। তৎকালীন ও বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার স্বীকার করে নিয়েছে যে, পার্বত্য চট্টগ্রামে স্থানীয় রাজনৈতিক প্রশাসনে ও নেতৃত্বে বাঙালিরা থাকবে না। বাঙালিরা এর প্রতিবাদ করেছে, আমরাও প্রতিবাদ করছি। ভূমি নিষ্পত্তি কমিশনের মাধ্যমে, মিষ্টি প্রলেপ দিয়ে তিতা ট্যাবলেট খাওয়ানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। বৃহত্তর বাংলাদেশের জনগণ, বৃহত্তর বাংলাদেশের বুদ্ধিজীবী, পার্বত্য চট্টগ্রামে জান-প্রাণ, রক্ত ঘাম দিয়েছেন এমন ব্যক্তিরা যেহেতু বিষয়টিতে মনোযোগ দেয়ার সময় পান না সেহেতু পার্বত্য চট্টগ্রামের বাঙালিরা এতিমের মতো লড়াই করে যাচ্ছেন; বেঁচে থাকার লড়াই।

অসাধারণদের অসাধারণ চেষ্টা
বাংলাদেশের সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা ইচ্ছাকৃতভাবে প্রক্রিয়ায় হস্তক্ষেপ করে কিছু মামলার এমন রায় দিয়েছেন, যেই রায়গুলোর কারণে পার্বত্য চট্টগ্রামের শান্তি বিঘিœত হওয়ার সম্ভাবনা উজ্জ্বল; যেই রায়গুলোর কারণে পার্বত্য চট্টগ্রামে বাঙালিরা দ্বিতীয় শ্রেণীর নাগরিক হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা উজ্জ্বল; যেই রায়গুলোর কারণে আইনি প্রক্রিয়ার দুয়ার চার ভাগের তিন ভাগ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। অতএব, অশান্তি আনার রাস্তা খুলে দেয়া হয়েছে। বাংলাদেশের শ্রদ্ধেয় চিন্তাশীল আইনজীবীরা স্বপ্রণোদিত হয়ে এ বিষয়ে মনোযোগ দেবেন এরূপ বিনীত আশা করি। পার্বত্য চট্টগ্রাম মন্ত্রণালয় থাকা সত্ত্বেও পার্বত্য চট্টগ্রামের ভূমি নিষ্পত্তি কার্যকলাপের তদারকিতে তথা ভূমি নিষ্পত্তি কমিশনের বিরোধিতাকারীদের মোকাবেলা করার কাজে, প্রধানমন্ত্রীর আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপদেষ্টা জড়িত হওয়ার বিষয়টিও রহস্যজনক। পার্বত্য চট্টগ্রামের ভেতরে এই মুহূর্তে বিরাজমান সমস্যা বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ সমস্যা।

মানচিত্র থাকলে বিষয়টি বুঝতে সুবিধা
এই কলামের সচেতন জ্ঞানী-গুণী পাঠকের সমীপে আমার বিনীত নিবেদন তথা আবেদন, আপনারা মেহেরবানি করে উত্তর-পূর্ব ভারত, পূর্ব ও দক্ষিণ-পূর্ব বাংলাদেশ এবং এতদসংলগ্ন মিয়ানমার দেখা যায় এই রকম একটি মানচিত্র সামনে নিয়ে, আলোচ্য বিষয়গুলোকে নিয়ে চিন্তা করুন। আরাকান নামক প্রদেশকে রাখাইন প্রদেশ বানানো হয়েছে। আকিয়াব নামক বন্দরনগরীকে সিতুওয়ে বানানো হয়েছে। আরাকান থেকে রোহিঙ্গাদের বিতাড়িত করা হচ্ছে। অতএব আরাকানের পাহাড়ি ভূমিতে ও জঙ্গলে যদি বাংলাদেশের কোনো বিদ্রোহী সশস্ত্রগোষ্ঠী বা ভারতের মনিপুর নাগাল্যান্ড ইত্যাদির বিদ্রোহীগোষ্ঠী আশ্রয় নিতে চায়, তাহলে তারা নিতেই পারে। ভারতের বিরুদ্ধে মিয়ানমার কাউকে আশ্রয় দেবে না। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে কাউকে আশ্রয় দিতেও পারে। বিপরীত বক্তব্যটিও প্রণিধানযোগ্য। পার্বত্য চট্টগ্রামের পাহাড় ও জঙ্গলের ভেতরে প্রতিবেশী রাষ্ট্রের বিদ্রোহীগোষ্ঠী তাদের আশ্রয়স্থল বা ক্যাম্প বানাতেও পারে। আমরা এই ধরনের সব কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে। আমরা সচেতন থাকতে চাই। আরাকানের মাটির নিচে গ্যাস ও খনিজসম্পদ আছে এবং আরাকানের পশ্চিমে বঙ্গোপসাগরের পানির নিচে গ্যাস ও তেল আছে। মিয়ানমার সরকার সেগুলো উত্তোলনের বন্দোবস্ত করছে।

তা ছাড়া আরাকানের সমুদ্রতটে চীনের ব্যবহারের জন্য এবং ভারতের ব্যবহারের জন্য বন্দর নির্মিত হচ্ছে; ওইসব বন্দর থেকে তেল গ্যাস ও মালামাল চীন ও ভারতে যাওয়ার জন্য আলাদা পাইপলাইন ও আলাদা সড়ক নির্মিত হচ্ছে। এরূপ পরিস্থিতিতে মিয়ানমার সরকার চায় আরাকানে যেন কোনো অশান্ত পরিবেশ না থাকে। যদি রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী আরাকানে থাকে এবং যদি কোনো দিন রোহিঙ্গারা সশস্ত্র সংগ্রামে লিপ্ত হয় তাহলে তারা স্থানীয়দের কাছ থেকে সহায়তা পেতে পারে। এরূপ সহায়তার ভবিষ্যৎ সম্ভাবনা নির্মূল করার জন্য মিয়ানমার যাবতীয় বন্দোবস্ত গ্রহণ করছে। আমরা মিয়ানমারের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে নাক গলাতে চাই না। মিয়ানমার তাদের জনগোষ্ঠীকে আমাদের দেশে পাঠিয়ে আমাদের ওপর আক্রমণ পরিচালনা করছে। মিয়ানমারকে এই কাজ করতে দেয়া যায় না। আমরা মানবিক দৃষ্টিভঙ্গিতে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে স্বাগত জানিয়েছি এবং জানাতেই থাকব। কিন্তু রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে আমরা চিরদিনের জন্য বাংলাদেশে রাখতে পারব না। জাতিসঙ্ঘ অথবা বহুজাতিক সংস্থার তত্ত্বাবধানে ও সংশ্লিষ্টতায় মিয়ানমারকে বাধ্য করতে হবে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে পুনর্বাসন করতে সসম্মানে ও নাগরিক অধিকারসহ। এটা বাংলাদেশের নিরাপত্তার জন্য অতি প্রয়োজন।

বাঙালিরা না থাকলে কী হতে পারে?
যদি পার্বত্য চট্টগ্রামে বাঙালিরা না থাকে তাহলে, কৌশলগতভাবে সেখানে বাংলাদেশ সরকারের বা বাংলাদেশের প্রতিরক্ষার বা বাংলাদেশের নিরাপত্তার বিশদ ক্ষতি হতেই পারে এতে আমার কোনো সন্দেহ নেই। বাঙালিবিহীন পার্বত্য চট্টগ্রামে, প্রতিবেশী রাষ্ট্র বা রাষ্ট্রগুলো থেকে বসতি স্থাপন করার জন্য অন্য ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর বা উপজাতীয় গোষ্ঠীর মানুষ যে আসবে না তার কোনো গ্যারান্টি নেই। বাঙালিবিহীন পার্বত্য চট্টগ্রামে, প্রতিবেশী রাষ্ট্রগুলোর সরকারগুলোর বিরুদ্ধে সশস্ত্র বিদ্রোহ বা ইনসার্জেন্সিতে লিপ্ত গোষ্ঠী বা সম্প্রদায় বা সংগঠনগুলো যে প্রশিক্ষণের জন্য ক্যাম্প বানাবে না বা আশ্রয় নেবে না তার কোনো গ্যারান্টি নেই। বাঙালিবিহীন পার্বত্য চট্টগ্রামে, সাবেক শান্তিবাহিনী বা তাদের নতুন কোনো রূপের বা নতুন কোনো আকারের সংগঠন যে নতুন করে তৎপরতা শুরু করবে না তার কোনো গ্যারান্টি নেই। বাঙালিবিহীন পার্বত্য চট্টগ্রামে, যেকোনো প্রয়োজনে সামরিকবাহিনী চলাচলের সময় লজিস্টিক সহযোগিতা পাওয়ার ক্ষেত্রে ভীষণ শূন্যতার সৃষ্টি হবে না তার কোনো গ্যারান্টি নেই। বাঙালিবিহীন পার্বত্য চট্টগ্রামে মিয়ানমারের আগ্রাসী ছদ্মবেশী সরকার যে সন্ত্রাসী তৎপরতায় উসকানি দেবে না তার কোনো গ্যারান্টি নেই। বাঙালিবিহীন পার্বত্য চট্টগ্রামে ১৯৭১ সালের শেষের দিকের মতো, ওই আমলের ভারতীয় মেজর জেনারেল এস এস উবানের মতো অন্য কোনো জেনারেলের নেতৃত্বে যে একটি গেরিলা সামরিকবাহিনী গঠিত হয়ে চট্টগ্রামকে বিচ্ছিন্ন করার তৎপরতা সৃষ্টি করবে না বা নিদেনপক্ষে চট্টগ্রাম বন্দরকে অচল করার চেষ্টা করবে না তার কোনো গ্যারান্টি নেই।

১৯৭১ সালে উবানের কৌশলগত যুদ্ধ ছিল তৎকালীন পাকিস্তানের বিরুদ্ধে, কিন্তু মাটিটা ছিল চট্টগ্রাম ও বাংলাদেশের। এখন মাটি চট্টগ্রামের ও বাংলাদেশের, বন্দর চট্টগ্রামের ও বাংলাদেশের কিন্তু নতুন উবান সাহেব বাংলাদেশের বন্ধু হবে তার কোনো গ্যারান্টি আছে কি? বাঙালিবিহীন পার্বত্য চট্টগ্রামে সন্ত্রাসীরা যে কাপ্তাই জলবিদ্যুৎ প্রকল্পকে হুমকির সামনে রাখবে না তার কোনো গ্যারান্টি নেই। কাপ্তাই বাঁধের ষোলোটি পানি নিষ্কাশন গেট যদি কোনো সময় একসঙ্গে ছেড়ে দেয় তাহলে কর্ণফুলী নদীর দুই তীরের উভয় দিকে আট থেকে দশ মাইলব্যাপী এলাকা প্লাবিত হয় এবং চট্টগ্রাম বন্দর সাময়িকভাবে ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে পড়ে। (দ্রষ্টব্য: ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে, বিশেষত মুক্তিযুদ্ধের শেষাংশে নভেম্বর ও ডিসেম্বরে, পার্বত্য চট্টগ্রাম ও চট্টগ্রামে, বাংলাদেশী গেরিলা মুক্তিযোদ্ধাদের তৎপরতা সম্বন্ধে এবং ভারতীয় সেনাবাহিনীর মেজর জেনারেল উবানের নেতৃত্বাধীন ‘ফ্যানটম’ বাহিনীর তৎপরতা সম্বন্ধে যেসব পাঠকের সম্যক ধারণা নেই, তাদের জন্য, এই অনুচ্ছেদের শেষাংশ বোঝা একটু কষ্টকর হতেই পারে। তার জন্য আমি দুঃখিত)।

রোহিঙ্গা আশ্রয়শিবির সফর
আজ বুধবার ১১ অক্টোবর ২০১৭ তারিখে আপনারা এই কলাম পড়ছেন। চার দিন আগে, ৭ অক্টোবর তারিখে ভোরে কক্সবাজার জেলায় গেলাম এবং ৮ অক্টোবর তারিখ রাত পর্যন্ত ছিলাম। দু’দিন এবং এক রাত এই সময়টি ব্যয় করেছি সরেজমিনে সীমান্তের নিকটবর্তী দু-একটি জায়গা দেখা, দু-একটি ক্যাম্প দেখা এবং ব্যাপকভাবে সংশ্লিষ্ট মানুষের সঙ্গে কথা বলা। এ প্রসঙ্গে আগামী বুধবার ১৮ অক্টোবর তারিখ ইনশাআল্লাহ আপনারা পড়বেন। আজকে এই অনুচ্ছেদে আমি গত সপ্তাহের কলাম এবং আজকের কলামের উসংহার টানছি।

সাবধানতা অবলম্বনের আহ্বান
রোহিঙ্গা (মুসলমান)বিহীন রাখাইন প্রদেশ সৃষ্টির প্রক্রিয়া অনেক দূর অগ্রগতি হয়েছে। এই বিষয়ে বাংলাদেশের মানুষকে আর ব্যাখ্যা দিয়ে বোঝাতে হবে না। কিন্তু বাঙালিবিহীন পার্বত্য চট্টগ্রাম আগামীকাল বৃহস্পতিবারই সৃষ্টি হবে, আগামী নভেম্বরেই সৃষ্টি হবে বা আগামী ২০১৮ সালেই সৃষ্টি হবে আমি এমনটি কোনো মতেই বলছি না। আমি বলতে চাচ্ছি, এই প্রসঙ্গে বাংলাদেশের সচেতন জনগণের পক্ষ থেকে, বুদ্ধিবৃত্তির জগতে, রাজনীতির জগতে, নিরাপত্তার জগতে সোচ্চার হওয়া প্রয়োজন। প্রয়োজনীয়তা : বাংলাদেশের জাতীয় নিরাপত্তার স্বার্থে। আমরা অবশ্যই চাই, পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিপূর্ণ থাকুক। আমরা অবশ্যই চাই বাংলাদেশের সংবিধান মোতাবেক, পার্বত্য চট্টগ্রামের উপজাতীয় জনগোষ্ঠী বা ক্ষুদ্র নৃতাত্ত্বিক জনগোষ্ঠী শান্তিপূর্ণ ও গতিশীল জীবনযাপন করুক। বাংলাদেশ যেমন আমার, তেমনি বাংলাদেশ আপনারও, সবার। পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসরত ক্ষুদ্র নৃতাত্ত্বিক গোষ্ঠীর আবাল-বৃদ্ধ মানুষের জন্মভূমি ও মাতৃভূমি এই বাংলাদেশ। সুতরাং বাঙালি এবং পাহাড়ি সবাই মিলেমিশে পাহাড়ে থাকবেন এটাই লক্ষ্য। 

লেখক : মেজর জেনারেল (অব:);
চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি
mgsmibrahim@gmail.com

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫