ঢাকা, সোমবার,১১ ডিসেম্বর ২০১৭

ইউরোপ

উত্তর কোরিয়ার সাথে যুদ্ধের প্রস্তুতি নিচ্ছে ব্রিটেন

নয়া দিগন্ত অনলাইন

০৯ অক্টোবর ২০১৭,সোমবার, ১৯:৪৩


প্রিন্ট
উত্তর কোরিয়ার সাথে যুদ্ধের প্রস্তুতি নিচ্ছে ব্রিটেন

উত্তর কোরিয়ার সাথে যুদ্ধের প্রস্তুতি নিচ্ছে ব্রিটেন

যুদ্ধের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে ব্রিটেন। যুক্তরাষ্ট্র ও উত্তর কোরিয়ার মধ্যে যে কোনো সময় যুদ্ধ হতে পারে, এ আশঙ্কায় নিজেদের প্রস্তুত করছে তারা। সোমবার ব্রিটেনের মিডিয়া রিপোর্টে একথা উল্লেখ করা হয়েছে।

জানা গেছে, ব্রিটেন এয়ারক্রাফট কেরিয়ার এইচএমএস কুইন এলিজাবেথ মোতায়েন করছে। মাঝ সমুদ্রে পাঠাচ্ছে টাইপ-৪৫ ডেসট্রয়ার, টাইপ-২৩ ফ্রিগেট। চলতি বছরেই নৌবাহিনীর হাতে তুলে দেয়া হবে নতুন এয়ারক্রাফট কেরিয়ার।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প কিংবা উত্তর কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট কিম জং উন, কেউই নিজেদের অবস্থান থেকে এতটুকু নড়তে রাজি নন। তাই যুদ্ধের আশঙ্কায় দ্রুত প্রস্তুতি নিচ্ছে ব্রিটেন।

ইতোপূর্বে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প টুইটবার্তায় বলেছেন, বছরের পর বছর পিয়ংইয়ংয়ের সাথে কথা বলে কোন ফল আসেনি "শুধু একটি জিনিসেই কাজ হবে। এর আগে বলেছিলেন, যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় স্বার্থ এবং ঐ অঞ্চলে তাদের মিত্রদের রক্ষা করতে যুক্তরাষ্ট্র উত্তর কোরিয়াকে ধ্বংস করে দিতে পারে। উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক কর্মসূচির বিষয়ে তাদের সঙ্গে আলোচনা করার অর্থ হলো সময় নষ্ট করা। তোমার শক্তি সঞ্চয় করে রাখো রেক্স, যা করা প্রয়োজন আমরা সেটাই করবো।’

গত মাসেই জাতিসংঘে দেয়া বক্তব্যে মি. ট্রাম্প উত্তর কোরিয়াকে নিশ্চিহ্ন করে দেয়ার হুমকি দিয়ে দেশটির নেতা কিম জং উন "একটি আত্মঘাতী অভিযানে আছে" বলে মন্তব্য করেন। জবাবে কিম প্রতিশ্রুতি দেন যে "তিনি আগুনের মাধ্যমে এই মানসিক বিকারগ্রস্ত এবং ভীমরতিগ্রস্ত মার্কিন বৃদ্ধকে বশে আনবেন"।

সূত্র : বিবিসি ও দি ইন্ডিপেন্ডেন্ট

যুক্তরাষ্ট্রকে তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের দিকে ঠেলে দিচ্ছেন ট্রাম্প

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রকে তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের দিকে ঠেলে দিচ্ছেন বলে দাবি করেছেন দেশটির রিপাবলিকান সিনেটর বব করকার। সিনেটের বৈদেশিক সম্পর্কবিষয়ক কমিটির চেয়ারম্যান প্রভাবশালী এই সিনেটর রবিবার নিউইয়র্ক টাইমসকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এমন হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন।

করকার বলেছেন, আমি এই প্রেসিডেন্টকে নিয়ে শঙ্কিত। কারণ প্রেসিডেন্ট এমনভাবে কাজ করছেন, যেন তিনি ‘দি অ্যাপ্রেন্টিস’  বা এমন কিছু। তিনি আমাকে উদ্বিগ্ন করেছেন। যারা আমাদের দেশ নিয়ে ভাবেন, তাদের সবাইকে তিনি উদ্বেগে ফেলতে পারেন।

করকার সম্পর্কে ট্রাম্প বলেছেন, সিনেটর বব করকার পুনর্নির্বাচন করতে আমার সমর্থন ভিক্ষা চেয়েছিলেন। আমি বলেছিলাম- না এবং তিনি সরে দাঁড়ান। তিনি পররাষ্ট্রমন্ত্রীও হতে চেয়েছিলেন, আমি বলেছিলাম- না ধন্যবাদ। ইরানের সঙ্গে ভয়ংকর চুক্তির জন্যও তিনি অনেকাংশে দায়ী।

উল্লেখ্য ২০১৬ সালে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনী ক্যাম্পেইনে ট্রাম্পের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা ছিলেন করকার। ভাইস প্রেসিডেন্ট ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী বাছাইয়ের সময় ট্রাম্পের সংক্ষিপ্ত তালিকায় তার নাম ছিল। দু’জনের মধ্যে ভালো সম্পর্কও ছিল। কিন্তু সেই সম্পর্কের চরম অবনতি হয়েছে এখন।

 সূত্র : নিউইয়র্ক টাইমস

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫