ঢাকা, শুক্রবার,২০ অক্টোবর ২০১৭

বিবিধ

মুকুট কেড়ে নেয়ার পর বিস্ফোরক তথ্য এভ্রিলের

নয়া দিগন্ত অনলাইন

০৫ অক্টোবর ২০১৭,বৃহস্পতিবার, ০৫:৫১ | আপডেট: ০৫ অক্টোবর ২০১৭,বৃহস্পতিবার, ০৯:০৬


প্রিন্ট
মুকুট কেড়ে নেয়ার পর বিস্ফোরক তথ্য এভ্রিলের

মুকুট কেড়ে নেয়ার পর বিস্ফোরক তথ্য এভ্রিলের

তথ্য গোপন করার অভিযোগে সুন্দরী প্রতিযোগিতা মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ-এর শিরোপা হারানোর পর জান্নাতুল নাঈম এভ্রিল মন্তব্য করেছেন যে এতে তিনি হেরে যাননি, বরং এই ঘটনায় পরাজয় হয়েছে বাংলাদেশের আইনের।
বিবিসির সাথে এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, বিয়ে নিয়ে তিনি কোনো তথ্য গোপন করেননি।

নিজের বিয়ে সম্পর্কে যে তথ্য পাওয়া যাচ্ছে, সে ব্যাপারে তিনি বলেন, ১৬ বছর বয়সী কোনো মেয়েকে জোর করে বিয়ে দেয়া হলে তাকে বিয়ে বলে গণ্য করা যায় না।
এর আগে অনেক বিতর্কের পর আয়োজকরা ওই প্রতিযোগিতায় এভ্রিলের শিরোপা বাতিল করেন।
ঢাকায় এক সংবাদ সম্মেলনে আয়োজকরা জানান, জান্নাতুল নাঈম তার বিয়ে নিয়ে প্রতিযোগিতার আগে মিথ্যে তথ্য দিয়েছিলেন, আর সেজন্যেই তার শিরোপা কেড়ে নেয়া হয়েছে।

তার জায়গায় জেসিয়া ইসলামকে নতুন মিস বাংলাদেশ ঘোষণা করা হয়েছে। তিনি এখন মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করবেন। বিবিসির সাথে জান্নাতুল নাঈমের পুরো সাক্ষাৎকারটি রয়েছে এখানে :

আয়োজকরা বলছেন, জান্নাতুল নাঈম এভ্রিলের বিষয়টি 'মিস্ ওয়ার্ল্ড' কর্তৃপক্ষকে জানানোর পর তারা মতামত দেয় যে মিথ্যে তথ্য দানকারী এমন কাউকে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করতে দেয়া উচিত হবে না।
তার বিয়ের তথ্য নিয়ে যে বিভ্রান্তি তৈরি হয়েছে সে প্রসঙ্গে জান্নাতুল নাঈম বলেন, "এসএসসি পরীক্ষা দেয়ার একমাসের মধ্যে যে মেয়ের বিয়ে হয়ে যায়, তার বয়স কিভাবে ২৩ বছর হয়?"
তার বয়স প্রমাণের জন্য কাগজপত্র তিনি দেখাতে পারবেন বলে উল্লেখ করেন।

জেসিয়াকে ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’ ঘোষণা

বিয়ের তথ্য গোপন রাখার জন্য বাতিল করা হলো জান্নাতুল নাঈম এভ্রিলের 'মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’ খেতাব। তার জায়গায় নির্বাচিত হয়েছেন জেসিয়া ইসলাম।
বুধবার রাজধানীর হোটেল ওয়েস্টিন-এ আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেয়া হয়। বহু নাটক আর সাংবাদিকদের সঙ্গে নানা তর্ক-বিতর্কের পর জেসিয়া ইসলামের নাম ঘোষণা করেন আয়োজনের বিচারক বিবি রাসেল।

সংবাদ সম্মেলন আয়োজন করে প্রতিযোগিতার আয়োজক প্রতিষ্ঠান অন্তর শোবিজ। এখানে উপস্থিত ছিলেন অন্তর শোবিজের চেয়ারম্যান স্বপন চৌধুরী ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাসরীন চৌধুরী, প্রতিযোগিতার বিচারক বিবি রাসেল, শম্পা রেজা ও চঞ্চল মাহমুদ।

আয়োজকরা জানান, জেসিয়া ইসলাম মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ হিসেবে চীনে অনুষ্ঠিত হওয়া মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতার মূল পর্বে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করবেন।

 

লাইভে যা বললেন 'মিস ওয়ার্ল্ড' থেকে বাদ পড়া এভ্রিল (ভিডিও)

অবশেষে বিয়ে ও ডিভোর্সের কথা স্বীকার করেছেন ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’ জান্নাতুল নাঈম এভ্রিল। সবার উদ্দেশে তিনি কিছু কথা বলেছেন। কেন বিয়ের কথা গোপন করেছিলেন, কেনই-বা প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছিলেন, এমন সব প্রশ্নের জবাব দিয়েছেন তিনি।

এভ্রিল বলেন, ‘আমি ছোটবেলা থেকে কোনো বাধা-বিপত্তিতে মাথা নত করিনি।…একটা ১৬ বছরের মেয়েকে তার বাবা জোর করে বিয়ে দিচ্ছে, সেই মেয়ে বিয়ের আসর থেকে পালিয়ে এসেছে। সেই মেয়ে এখন সাকসেসফুল। সে তার সমাজের কোনো কথা শোনেনি। আশপাশের কারো কথা কানে নেয়নি। তার একটাই উদ্দেশ্য ছিলো, যেখানে ২০ কোটি মানুষের বাংলাদেশে বাল্যবিবাহ একটি দৈনদিন্দন ঘটনা, সেখানে বাল্যবিবাহ আমি মানতে পারিনি।’
৩ অক্টোবর দুপুরে ফেসবুক লাইভে এসে এসব বলতে বলতে কেঁদেছেন তিনি। বলেছেন- কিভাবে তার বাল্যবিবাহ হয়েছিল। তার বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও লেখিকা বেগম রোকেয়ার উদারহরণ টেনে এভ্রিল বলেন, ‘মেয়েরা চাইলে অনেক কিছু করতে পারে।’

কেঁদে কেঁদে তিনি আরো বলেন- ‘আমি ডিভোর্সি, ফাইন, আমি একটা মেয়ে। অ্যাজ এ হিউম্যান আমার রাইট আছে, একটা ইন্টারন্যাশনাল প্ল্যাটফর্মে গিয়ে নিজেকে প্রেজেন্ট করার। কই আমি তো নিজের জন্য কিছু চাইনি! আমি চেয়েছিলাম আপনাদের দেশের মেয়েগুলাকে জাস্ট দেখিয়ে দিতে যে, একটা মেয়ে চাইলে কী কী পারে।’
‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’ নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে আলোচনা-সমালোচনা চলছে জান্নাতুল নাঈম এভ্রিলকে নিয়ে। বিয়ে ও ডিভোর্সের কথা গোপন করে প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছিলেন তিনি। গণমাধ্যমে এখন পর্যন্ত বিয়ে বা ডিভোর্সের কথা স্বীকার না করলেও নিজের ফেসবুক প্রোফাইলে লাইভ ভিডিওতে স্বীকার করেছেন এভ্রিল।

৬৭তম ‘মিস ওয়ার্ল্ড’ প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ার জন্য প্রথমবারের মতো বাংলাদেশে আয়োজন করা হয় ‘লাভেলো মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’ শিরোনামের একটি প্রতিযোগিতা।

প্রায় দেড় মাস যাচাই-বাছাইয়ের পর গত শুক্রবার ঘোষণা করা হয় প্রতিযোগীর নাম। বিজয়ী হন চট্টগ্রামের মেয়ে জান্নাতুল নাঈম এভ্রিল। তবে প্রথমে জান্নাতুল সুমাইয়া হিমিকে বিজয়ী ঘোষণা করা হলেও তাৎক্ষণিকভাবে আয়োজকদের পক্ষ থেকে জানানো হয়, হিমি নন, বিজয়ী হয়েছেন এভ্রিল। আর হিমি হয়েছেন দ্বিতীয় রানারআপ। তবে এই বিতর্ককে ছাপিয়ে ওঠে এভ্রিলের বিয়ের খবর। নিয়ম অনুযায়ী এ প্রতিযোগিতার অংশগ্রহণকারীকে হতে হবে অবিবাহিত। বিয়ের খবর গোপন রাখার খবরটি প্রকাশ হওয়ার পর গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে আলোচনার ঝড় ওঠে।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫