‘ভাসান পানি’তে মাছ ধরার অধিকারে সরকারের উদ্যোগ নেই : সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এমিরিটাস অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেছেন, ‘ভাসান পানি’তে মাছ ধরার অবাধ অধিকারের ব্যাপারে সরকারের পক্ষ থেকে উদ্যোগ লক্ষ করা যায়নি।
‘হাওরের পাশে বাংলাদেশ’-এর উদ্যোগে গতকাল জাতীয় প্রেস কাবের সামনের মানববন্ধন ও সমাবেশে তিনি এ কথা বলেন।
তিনি বলেন, এ বছরের বোরো মওসুমে অকাল বন্যায় হাওর এলাকার ধান ডুবে ব্যাপক ক্ষতি হয়। এই ক্ষতিগ্রস্ত কৃষককে বাঁচিয়ে রাখতে দাবি উঠেছিল, আগামী বোরো মওসুমে ধান কাটার পূর্ব পর্যন্ত পর্যাপ্ত খাদ্যসহায়তা প্রদান করতে হবে। সর্বপ্রকার ঋণের সুদ মওকুফ করতে হবে, ভাসান পানিতে মাছ ধরার অবাধ অধিকার দিতে হবে, জলমহালের ইজারা প্রথা বাতিল করতে হবে। এই সব পদক্ষেপ না নিলে কৃষক বাঁচবে না।
নেতৃবৃন্দ বলেন, ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা আজ মহাসঙ্কটে দিনাতিপাত করছে। তাদের হাতে কোনো খাদ্য নেইÑ বাজারে চালের মূল্য কেজিপ্রতি ১০ থেকে ১৫ টাকা করে বেড়েছে। সরকার বাজার নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে। তারা জনগণের নয়Ñ ব্যবসায়ী ও চাতাল মালিকের স্বার্থ রক্ষা করে চলছে। খোলাবাজারে সরকারের উদ্যোগে যে চাল বিক্রি করছে তার দামও দ্বিগুণ বৃদ্ধি করা হয়েছে। ফলে কৃষক-শ্রমিক অবর্ণনীয় দুর্ভোগে পড়েছে।
নেতৃবৃন্দ সমাবেশে দাবি করেন, বন্যায় হাওরে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষককে বাঁচিয়ে রাখতে আগামী বোরো মওসুমে ধান কাটার পূর্ব পর্যন্ত পর্যাপ্ত খাদ্যসহায়তা প্রদান করতে হবে, সর্বপ্রকার ঋণের সুদ মওকুফ করতে হবে, ভাসান পানিতে মাছ ধরার অবাধ অধিকার দিতে হবে, জলমহালের ইজারা প্রথা বাতিল করতে হবে।
অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর সভাপতিত্বে সমাবেশে আরো বক্তৃতা করেন : প্রকৌশলী ম. এনামুল হক, সমাজতান্ত্রিক ক্ষেতমজুর ও কৃষক ফ্রন্টের সাধারণ সম্পাদক বজলুর রশীদ ফিরোজ, বাংলাদেশ কৃষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ জহির চন্দন, বাংলাদেশ ক্ষেতমজুর সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আনোয়ার হোসেন, হাওরের পাশে বাংলাদেশ-এর সদস্যসচিব অ্যাডভোকেট হাসনাত কাইয়ুম, ড. হালিম দাদ খান, জাকিয়া শিশির, জাকির হোসেন ও সভা পরিচালনা করেন বাসদ ঢাকা মহানগরের সদস্যসচিব জুলফিকার আলী।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.