ঢাকা, রবিবার,১৭ ডিসেম্বর ২০১৭

এশিয়া

‘রকেট ম্যান' বনাম ‘কুকুর' : কে জিতবে!

নয়া দিগন্ত অনলাইন

২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭,বৃহস্পতিবার, ১৫:৩৭


প্রিন্ট
‘রকেট ম্যান' বনাম ‘কুকুর' : কে জিতবে!

‘রকেট ম্যান' বনাম ‘কুকুর' : কে জিতবে!

কোরীয় সংকটে বাকযুদ্ধ নতুন মাত্রা পাচ্ছে৷ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন-কে ‘রকেট ম্যান' বলার পর সে দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী তাকে ‘বার্কিং ডগ' হিসেবে বর্ণনা করেছেন৷

জাতিসঙ্ঘ সাধারণ পরিষদের ৭৮তম অধিবেশনে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও উত্তর কোরিয়ার আস্ফালন নতুন মাত্রা পাচ্ছে৷ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তার ভাষণে উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনকে ‘রকেট ম্যান' হিসেবে বর্ণনা করে সে দেশকে নিশ্চিহ্ন করে দেবার যে হুমকি দিয়েছিলেন, তার জবাবে উত্তর কোরিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী রি ইয়ং হো ট্রাম্পকে ‘বার্কিং ডগ' (ঘেউ ঘেউ করা কুকুর) হিসেবে উল্লেখ করে তাচ্ছিল্য দেখালেন৷ তিনি বলেন, ‘‘ট্রাম্প যদি মনে করে থাকেন যে, কুকুরের মতো ঘেউঘেউ করে তিনি আমাদের অবাক করে দেবেন, তাহলে তিনি অবশ্যই স্বপ্ন দেখছেন৷''

এমন পরিস্থিতিতে চীনের উদ্বেগ বেড়ে চলেছে৷ সে দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই বলেন, কোরীয় উপদ্বীপের পরিস্থিতি প্রতিদিন আরো উদ্বেগজনক হয়ে উঠছে৷ সেই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যেতে দেয়া যায় না৷ তিনি আবার সব পক্ষের উদ্দেশ্যে সংযমের ডাক দিয়েছেন৷ সেইসঙ্গে দক্ষিণ কোরিয়ায় মার্কিন ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরোধ ব্যবস্থা সরিয়ে ফেলার ডাক দিয়েছেন তিনি৷

দক্ষিণ কোরিয়া মৈত্রীর হাত বাড়িয়ে দিতে উত্তর কোরিয়ার জন্য প্রায় ৮০ লক্ষ ডলার মূল্যের ত্রাণ পাঠাতে চলেছে৷ বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচি ও ইউনিসেফের মাধ্যমে এই মানবিক সাহায্য পাঠানো হবে৷ সংকট সত্ত্বেও মানবিক সাহায্য চালিয়ে যেতে চায় সে দেশ৷ উল্লেখ্য, আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞার ফলে একঘরে হয়ে থাকা দেশ উত্তর কোরিয়ায় শিশুদের অবস্থা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ইউনিসেফ৷

কোরীয় সংকটের শান্তিপূর্ণ সমাধানের লক্ষ্যে জার্মানি সক্রিয় ভূমিকা নেবার ইঙ্গিত দিয়েছে৷ ডয়চে ভেলের সঙ্গে একান্ত সাক্ষাৎকারে জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল এ ক্ষেত্রে ইরানের সঙ্গে পরমাণু চুক্তির দৃষ্টান্তের উল্লেখ করেন৷

কিন্তু ট্রাম্প প্রশাসন সেই চুক্তি বাতিল করার যে ইঙ্গিত দিচ্ছে, তা নিয়ে জার্মানিসহ একাধিক দেশ উদ্বেগ প্রকাশ করেছে৷ ইরান চুক্তি বাতিল হলে একই লক্ষ্যে উত্তর কোরিয়ার আস্থা অর্জন করা কঠিন হবে বলে মন্তব্য করেছেন জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী সিগমার গাব্রিয়েল৷

কোনো নিষেধাজ্ঞাই থামাতে পারবে না : কিম
বিবিসি

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও বিশ্বনেতাদের সতর্ক করে দিয়ে কিম জং উন বলেছেন, কোনো নিষেধাজ্ঞাই উত্তর কোরিয়াকে থামাতে পারবে না; বরং এ ধরনের নিষেধাজ্ঞা ও চাপ তাদের পারমাণবিক কর্মসূচিকে আরো গতিশীল করবে।

মঙ্গলবার পিয়ংইয়ং এক বিবৃতিতে দৃঢ়ভাবে জানিয়ে দিয়েছে, নতুন করে জাতিসঙ্ঘের নিষেধাজ্ঞা আরোপের বিষয়টি আক্রোশপূর্ণ, অনৈতিক ও অমানবিক। এদিকে জাতিসঙ্ঘে জোরালো প্রস্তাব উত্থাপনের মাধ্যমে উত্তর কোরিয়ার ওপর চাপ আরো বাড়াতে যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের প্রেসিডেন্ট সম্মত হয়েছেন। এর আগে যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়া যৌথ সামরিক মহড়া চালিয়েছে।

গত শুক্রবার উত্তর কোরিয়া জাপানের ওপর দিয়ে তাদের সর্বশেষ ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করে। এটি তিন হাজার ৭০০ কিলোমিটার (দুই হাজার ২৯৯ মাইল) পরিভ্রমণ করেছে। পরে যুক্তরাষ্ট্রের প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের গুয়ামে ক্ষেপণাস্ত্রটি রাখা হয়েছে, যা লক্ষ্যমাত্রার নাগালের মধ্যে রয়েছে বলে জানিয়েছে উত্তর কোরিয়া। এ ঘটনাকে অত্যন্ত উত্তেজনাপূর্ণ ও আপত্তিকর উল্লেখ করে জাতিসঙ্ঘ নিরাপত্তা পরিষদে সর্বসম্মতিক্রমে নিন্দা প্রস্তাব করা হয়।

উত্তর কোরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতির বরাত দিয়ে দেশটির সরকারি সংবাদ সংস্থা কেসিএনএ জানিয়েছে, ডিপিআরকের (ডেমোক্র্যাটিক পিপলস রিপাবলিক অব কোরিয়া) ওপর যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্রদের নিষেধাজ্ঞা এবং চাপ প্রয়োগ যত বাড়বে, আমাদের রাষ্ট্রীয় পারমাণবিক শক্তি ততই গতিশীল হবে। এই মাসের শুরুতে পিয়ংইয়ং ষষ্ঠবারের মতো সবচেয়ে শক্তিশালী পারমাণবিক ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালায়। এরপর থেকেই উত্তর কোরিয়ার সাথে যুক্তরাষ্ট্রের স্নায়ুবিক লড়াই ভিন্নমাত্রা লাভ করে। উভয়পক্ষে ক্রমেই উত্তেজনা বাড়ছে।

 

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫