ঢাকা, বৃহস্পতিবার,১৯ অক্টোবর ২০১৭

জবস অ্যান্ড ক্যারিয়ার

ব্যাংকে কর্মকর্তা (সাধারণ) পদে নিয়োগ

মাহমুদা সুলতানা

১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭,শুক্রবার, ১৫:৩১


প্রিন্ট
মোট ৩৪৬৩টি শূন্যপদে নিয়োগ হবে

মোট ৩৪৬৩টি শূন্যপদে নিয়োগ হবে

ব্যাংকার্স সিলেকশন কমিটির সদস্যভুক্ত সোনালী ব্যাংক লিমিটেড, জনতা ব্যাংক লিমিটেড, রূপালী ব্যাংক লিমিটেড, বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক লিমিটেড, বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক, রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক ও ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদেশে (আইসিবি) কর্মকর্তা (সাধারণ) পদে যথাক্রমে ৩৬৩, ১৯০, ৬৯৯, ১৮,১৭২২, ৪৫৫ ও ১৬টিসহ মোট ৩৪৬৩টি শূন্যপদে নিয়োগের নিমিত্তে প্যানেল প্রস্তুতির জন্য নিচের শর্তাধীনে বাংলাদেশী নাগরিকদের কাছ থেকে অনলাইনে আবেদনপত্র আহ্বান করা হয়েছে।

অনলাইনে আবেদনের শেষ তারিখ : ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৭।

শিক্ষাগত যোগ্যতা :
স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অথবা চার বছর মেয়াদি স্নাতক/স্নাতক (সম্মান) বা সমমান ডিগ্রি থাকলে আবেদন করা যাবে। এসএসসি এবং তদূর্ধ্ব পর্যায়ের পরীক্ষাসমূহে ন্যূনতম একটিতে প্রথম বিভাগ বা শ্রেণী কিংবা সমমানের গ্রেড পয়েন্ট থাকতে হবে। কোনো পর্যায়েই তৃতীয় বিভাগ বা সমমানের গ্রেড পয়েন্ট থাকলে গ্রহণযোগ্য হবে না। এসএসসি ও এইচএসসির ফলের ক্ষেত্রে জিপিএ ৩ বা তার বেশি প্রথম বিভাগ, জিপিএ ২ থেকে জিপিএ ৩-এর কম থাকলে দ্বিতীয় বিভাগ ধরা হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের সিজিপিএ’র ক্ষেত্রে ৪ পয়েন্ট স্কেলে ৩ বা তার বেশি প্রথম বিভাগ/শ্রেণী, সিজিপিএ ২.২৫ বা তার বেশি কিন্তু সিজিপিএ ৩-এর কম দ্বিতীয় বিভাগ/শ্রেণী। সিজিপিএ’র ক্ষেত্রে ৫ পয়েন্ট স্কেলে সিজিপিএ ৩.৭৫ বা তার বেশি প্রথম বিভাগ/শ্রেণী, কিন্তু সিজিপিএ ২.৮১৩ বা তার বেশি কিন্তু ৩.৭৫-এর কম দ্বিতীয় বিভাগ/শ্রেণী ধরা হবে। ‘ও’ লেভেল ও ‘এ’ লেভেল পাস হলে দেশীয় সংশ্লিষ্ট শিক্ষা বোর্ড থেকে ইস্যুকৃত সমমানের সার্টিফিকেট এবং বিদেশী বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিগ্রির ক্ষেত্রে দেশীয় সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয় বা বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের ইস্যু করা সমমান সার্টিফিকেট অনুযায়ী ডিগ্রি ও ফলাফলের তথ্য দিতে হবে।

বয়সসীমা :
০১-০৮-২০১৭ তারিখে সাধারণ প্রার্থীদের বয়স সর্বোচ্চ ৩০ বছর। তবে মুক্তিযোদ্ধার সন্তান এবং প্রতিবন্ধী প্রার্থীদের ক্ষেত্রে বয়সসীমা ৩২ বছর।

বেতন স্কেল :
১৬০০০-৩৮৬৪০/-(জাতীয় বেতন স্কেল ২০১৫ অনুযায়ী) ও তার সাথে নিয়মানুযায়ী অন্যান্য সুবিধা দেয়া হবে।

আবেদনের নিয়ম :
অনলাইনে বাংলাদেশ ব্যাংকের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আবেদন করতে হবে। কোনো ফি লাগবে না। আবেদনের আগে একটি ডিজিটাল ছবি অথবা স্ক্যান করা ছবি রাখুন। পাশাপাশি স্ক্যান করে রাখুন আপনার একটি সই। সব ধরনের তথ্য দেয়ার পর সংযুক্ত করতে হবে ছবি ও স্বাক্ষর। ৮০ কিলোবাইটের বেশি ছবি আপলোড করা যাবে না, রেজুলেশন হতে হবে ৬০০x৬০০। স্বাক্ষরের বেলায় রেজুলেশন হতে হবে ৩০০x৮০, সর্বোচ্চ সাইজ হবে ৬০ কিলোবাইট। তথ্য পূরণ করার পর দিতে হবে পাসওয়ার্ড। কোনো কোটার আওতাভুক্ত হলে ফরমে দেয়া অপশনে ক্লিক করতে হবে। সফলভাবে আবেদন ফরম পূরণ করা হলে দেয়া হবে একটি ট্র্যাকিং নম্বরযুক্ত ফরম। ট্র্যাকিং নম্বরযুক্ত ফরমটি সংরক্ষণ করতে হবে। লিখিত পরীক্ষার সময় এটির দরকার হবে। লিখিত পরীক্ষা গ্রহণের পর উত্তীর্ণ প্রার্থীদের কাছ থেকে আবেদনে উল্লিখিত তথ্যাদির সমর্থনে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র চাওয়া হবে। বিবাহিত মহিলা প্রার্থীদের ক্ষেত্রে স্থায়ী ঠিকানা হিসেবে স্বামীর স্থায়ী ঠিকানা ব্যবহার করতে হবে।

নিয়োগ পরীক্ষা :
প্রার্থীদের ১০০ নম্বরের এমসিকিউ, ২০০ নম্বরের লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে। এমসিকিউ ও লিখিত পরীক্ষার সময়সূচি পত্রিকা ও ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হবে। লিখিত পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে তৈরি করা হবে মেধাতালিকা। সেখান থেকে নির্বাচিত প্রার্থীদের ডাকা হবে মৌখিক পরীক্ষায়। সরকারি ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষায় প্রতিযোগিতা বেশি হয়। তাই পরীক্ষার প্রস্তুতি নিতে হবে এখন থেকে। এ জন্য বিগত বছরের সব ধরনের সরকারি ও বেসরকারি ব্যাংক নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নপত্র সমাধান করলে প্রস্তুতির ক্ষেত্রে বেশি সহায়ক হবে।

বিষয়ভিত্তিক প্রস্তুতি :
নিয়োগের ক্ষেত্রে এমসিকিউ পরীক্ষায় বাংলা, ইংরেজি, গণিত, সাধারণজ্ঞান থেকে প্রশ্ন আসতে পারে। লিখিত পরীক্ষায় বাংলা, ইংরেজি ও গণিত এ তিন বিষয়ের ওপর প্রশ্ন আসবে। বাংলা বিষয়ে ভাবসম্প্রসারণ, পত্রলিখন, ইংরেজি থেকে বাংলায় অনুবাদ ও বাংলা ব্যাকরণের সাধারণ বিষয়গুলো থেকে প্রশ্ন থাকতে পারে। ইংরেজিতে গ্রামার, অনুবাদ, বাক্য তৈরি ও শুদ্ধকরণ, প্যারাগ্রাফ, কম্পোজিশন ইত্যাদি থেকে প্রশ্ন আসতে পারে। গণিতে প্রশ্ন আসে পাটীগণিত, বীজগণিত ও জ্যামিতি থেকে। বাংলা, গণিত ও ইংরেজি বিষয়ে প্রস্তুতির জন্য নবম-দশম ও দ্বাদশ শ্রেণীর পাঠ্যবই পড়বেন। সাধারণজ্ঞানের জন্য সাধারণজ্ঞানের বই, দৈনিক পত্রিকা পড়লেই হবে।

মৌখিক পরীক্ষা :
এমসিকিউ এবং লিখিত পরীক্ষায় পাস করার পর প্রার্থীদের মৌখিক পরীক্ষার সময়সূচি জানিয়ে দেয়া হবে। এরপর প্রার্থীদের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিতে হবে। মৌখিক পরীক্ষায় প্রার্থীর বিশ্লেষণী ক্ষমতা, দক্ষতা, উপস্থাপনা, পোশাক দেখা হয়।

অনলাইনে আবেদনপত্র পাঠানোর ঠিকানা :
আগ্রহী প্রার্থীদের বাংলাদেশ ব্যাংকের ওয়েবসাইট www.erecruitment.bb.org.bd-এ অনলাইন আবেদন ফরম পূরণের মাধ্যমে দরখাস্ত করতে হবে।

 

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগে ৩০৪ জন প্রকৌশলী নিয়োগ
স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের নিয়ন্ত্রণাধীন দেশের বিভিন্ন পৌরসভায় নিচে বর্ণিত ৩০৪টি শূন্যপদে নিয়োগের জন্য বাংলাদেশী নাগরিকদের কাছ থেকে দরখাস্ত আহ্বান করা হয়েছে।

পদের নাম : সহকারী প্রকৌশলী (সিভিল)।
পদের সংখ্যা : ৫৩টি।
বেতন স্কেল : ২২০০০-৫৩০৬০/-
আবেদনের যোগ্যতা : প্রকৌশলীতে স্নাতক ডিগ্রি অথবা এএমআইইএ ও (পুর) সেকসান পাস হতে হবে।

পদের নাম : উপ-সহকারী প্রকৌশলী (সিভিল)।
পদের সংখ্যা : ২৫১টি।
বেতন স্কেল : ১৬০০০-৩৮৬৪০/-

আবেদনের যোগ্যতা : পুর প্রকৌশলে ডিপ্লোমা অথবা সমমান পাস হতে হবে।

বয়সসীমা : ০২-১০-২০১৭ তারিখে সাধারণ প্রার্থীদের বয়স সর্বোচ্চ ১৮-৩০ বছর। তবে মুক্তিযোদ্ধার/শহীদ মুক্তিযোদ্ধার সন্তান এবং প্রতিবন্ধী প্রার্থীদের ক্ষেত্রে বয়সসীমা ৩২ বছর।

আবেদনের নির্ধারিত ফরম সংগ্রহ : আবেদনকারীকে নির্ধারিত ফরমে আবেদন করতে হবে। স্থানীয় সরকার বিভাগের ওয়েবসাইট www.lgd.gov.bd থেকে ফরম ডাউনলোড করা যাবে।

আবেদনপত্র জমা দেয়ার শেষ তারিখ : ২ অক্টোবর, ২০১৭ অফিস সময়ের মধ্যে জমা দিতে হবে।

আবেদনপত্র পাঠানোর ঠিকানা : সচিব, স্থানীয় সরকার বিভাগের অনুকূলে ১-৩৭০১-০০০১-২০৩১ কোড নম্বরে পরীক্ষার ফি বাবদ উভয় পদের জন্য ২০০ টাকার ট্রেজারি চালানের মূল কপি, ৪ কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি, ১০ টাকা মূল্যমানের ডাকটিকিটযুক্ত ফেরত খামসহ আবেদনপত্র উপসচিব, স্থানীয় সরকার বিভাগ, বাংলাদেশ সচিবালয়, ঢাকা বরাবরে ডাকযোগে পাঠাতে হবে।

জেনে রাখুন :
লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের মৌখিক পরীক্ষার সময় শিক্ষাগত যোগ্যতার সব মূল সনদপত্র, জাতীয় পরিচয়পত্র, প্রথম শ্রেণী গেজেটেড কর্মকর্তা কর্তৃক প্রদত্ত চারিত্রিক সনদপত্র, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান/সিটি করপোরেশনের ওয়ার্ড কাউন্সিলর/পৌরসভার মেয়র/কাউন্সিলর কর্তৃক প্রদত্ত নাগরিকত্ব সনদপত্র, মুক্তিযোদ্ধা/শহীদ মুক্তিযোদ্ধার পুত্র-কন্যার পুত্র-কন্যা সন্তানের ক্ষেত্রে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান/পৌরসভার মেয়র/সিটি করপোরেশনের ওয়ার্ড কাউন্সিলর কর্তৃক প্রদত্ত প্রার্থীর সাথে মুক্তিযোদ্ধার সম্পর্কসংক্রান্ত মূল প্রত্যয়নপত্র, এতিম ও শারীরিক প্রতিবন্ধী ও অন্যান্য কোটার প্রার্থীদের ক্ষেত্রে উপযুক্ত কর্তৃপক্ষ কর্তৃক প্রদত্ত মূল সনদপত্র জমা দিতে হবে।
সূত্র : দৈনিক ইত্তেফাক, ৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭

 

অগ্রণী ব্যাংক ও বাংলাদেশ হাউস বিল্ডিং ফাইন্যান্স করপোরেশনে সিনিয়র অফিসার/আইন অফিসার নিয়োগ
ব্যাংকার্স সিলেকশন কমিটির সদস্যভুক্ত অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেড ও বাংলাদেশ হাউস বিল্ডিং ফাইন্যান্স করপোরেশনে সিনিয়র অফিসার/আইন অফিসার পদে যথাক্রমে ৫০টি ও চারটিসহ মোট ৫৪টি শূন্যপদে নিয়োগের নিমিত্তে প্যানেল প্রস্তুতির জন্য নিচের শর্তাধীনে বাংলাদেশী নাগরিকদের কাছ থেকে অনলাইনে আবেদনপত্র আহ্বান করা হয়েছে। অনলাইনে আবেদনের শেষ তারিখ : ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৭। লিখেছেন মোশাররফ হোসেন

শিক্ষাগত যোগ্যতা : এলএলবিসহ (সম্মান) এলএলএম ডিগ্রিধারী হতে হবে। একাডেমিক পরীক্ষায় অন্যূন দুটিতে প্রথম বিভাগ বা শ্রেণী কিংবা সমমানের গ্রেড পয়েন্ট থাকতে হবে। কোনো পর্যায়েই তৃতীয় বিভাগ বা সমমানের গ্রেড পয়েন্ট থাকলে গ্রহণযোগ্য হবে না। এসএসসি ও এইচএসসির ফলের ক্ষেত্রে জিপিএ ৩ বা তার বেশি প্রথম বিভাগ, জিপিএ ২ থেকে জিপিএ ৩-এর কম থাকলে দ্বিতীয় বিভাগ ধরা হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের সিজিপিএ’র ক্ষেত্রে ৪ পয়েন্ট স্কেলে ৩ বা তার বেশি প্রথম বিভাগ/শ্রেণী, সিজিপিএ ২.২৫ বা তার বেশি কিন্তু সিজিপিএ ৩-এর কম দ্বিতীয় বিভাগ/শ্রেণী। সিজিপিএ’র ক্ষেত্রে ৫ পয়েন্ট স্কেলে সিজিপিএ ৩.৭৫ বা তার বেশি প্রথম বিভাগ/শ্রেণী, কিন্তু সিজিপিএ ২.৮১৩ বা তার বেশি কিন্তু ৩.৭৫-এর কম দ্বিতীয় বিভাগ/শ্রেণী ধরা হবে। ‘ও’ লেভেল ও ‘এ’ লেভেল পাস হলে দেশীয় সংশ্লিষ্ট শিক্ষা বোর্ড থেকে ইস্যুকৃত সমমানের সার্টিফিকেট এবং বিদেশী বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিগ্রির ক্ষেত্রে দেশীয় সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয় বা বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের ইস্যু করা সমমান সার্টিফিকেট অনুযায়ী ডিগ্রি ও ফলাফলের তথ্য দিতে হবে।

বয়সসীমা : ০১-০৮-২০১৭ তারিখে সাধারণ প্রার্থীদের বয়স সর্বোচ্চ ৩০ বছর। তবে মুক্তিযোদ্ধার সন্তান এবং প্রতিবন্ধী প্রার্থীদের ক্ষেত্রে বয়সসীমা ৩২ বছর।

বেতন স্কেল : ২২০০০-৫৩০৬০/- (জাতীয় বেতন স্কেল ২০১৫ অনুযায়ী) ও তার সাথে নিয়মানুযায়ী অন্যান্য সুবিধা দেয়া হবে।

আবেদনের নিয়ম :
অনলাইনে বাংলাদেশ ব্যাংকের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটের (www.erecruitment.bb.org.bd) মাধ্যমে আবেদন করতে হবে। আবেদনের আগে একটি ডিজিটাল ছবি অথবা স্ক্যান করা ছবি রাখুন। পাশাপাশি স্ক্যান করে রাখুন আপনার একটি সই। সব ধরনের তথ্য দেয়ার পর সংযুক্ত করতে হবে ছবি ও স্বাক্ষর। ৮০ কিলোবাইটের বেশি ছবি আপলোড করা যাবে না, রেজুলেশন হতে হবে ৬০০x৬০০। স্বাক্ষরের বেলায় রেজুলেশন হতে হবে ৩০০x৮০, সর্বোচ্চ সাইজ হবে ৬০ কিলোবাইট। তথ্য পূরণ করার পর দিতে হবে পাসওয়ার্ড। কোনো কোটার আওতাভুক্ত হলে ফরমে দেয়া অপশনে ক্লিক করতে হবে। সফলভাবে আবেদন ফরম পূরণ করা হলে দেয়া হবে একটি ট্র্যাকিং নম্বরযুক্ত ফরম। ট্র্যাকিং নম্বরযুক্ত ফরমটি সংরক্ষণ করতে হবে। লিখিত পরীক্ষার সময় এটির দরকার হবে। লিখিত পরীক্ষা গ্রহণের পর উত্তীর্ণ প্রার্থীদের কাছ থেকে আবেদনে উল্লিখিত তথ্যাদির সমর্থনে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র চাওয়া হবে। বিবাহিত মহিলা প্রার্থীদের ক্ষেত্রে স্থায়ী ঠিকানা হিসেবে স্বামীর স্থায়ী ঠিকানা ব্যবহার করতে হবে। চাকরিরত প্রার্থীরা তাদের নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষের পূর্বানুমোদনক্রমে আবেদন করতে পারবেন।

নিয়োগ পরীক্ষা :
প্রার্থীদের ১০০ নম্বরের এমসিকিউ, ২০০ নম্বরের লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে। এমসিকিউ ও লিখিত পরীক্ষার সময়সূচি পত্রিকা ও ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হবে। লিখিত পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে তৈরি করা হবে মেধাতালিকা। সেখান থেকে নির্বাচিত প্রার্থীদের ডাকা হবে মৌখিক পরীক্ষায়। সরকারি ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষায় প্রতিযোগিতা বেশি হয়। তাই পরীক্ষার প্রস্তুতি নিতে হবে এখন থেকে। এ জন্য বিগত বছরের সব ধরনের সরকারি ও বেসরকারি ব্যাংক নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নপত্র সমাধান করলে প্রস্তুতির ক্ষেত্রে বেশি সহায়ক হবে।

মৌখিক পরীক্ষা :
এমসিকিউ এবং লিখিত পরীক্ষায় পাস করার পর প্রার্থীদের মৌখিক পরীক্ষার সময়সূচি জানিয়ে দেয়া হবে। এরপর প্রার্থীদের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিতে হবে। মৌখিক পরীক্ষায় প্রার্থীর বিশ্লেষণী ক্ষমতা, দক্ষতা, উপস্থাপনা দেখা হয়।

অনলাইনে আবেদনপত্র পাঠানোর ঠিকানা :
আগ্রহী প্রার্থীদের বাংলাদেশ ব্যাংকের ওয়েবসাইট www.erecruitment.bb.org.bd--এ অনলাইন আবেদন ফরম পূরণের মাধ্যমে দরখাস্ত করতে হবে।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫