ঢাকা, শনিবার,২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭

মোবাইল

আইফোনের মেমোরি বাড়ানোর কয়েকটি উপায়

নয়া দিগন্ত অনলাইন

১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭,বৃহস্পতিবার, ১৪:৫৫ | আপডেট: ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭,বৃহস্পতিবার, ১৫:৪২


প্রিন্ট
আইফোনের মেমোরি বাড়ানোর কয়েকটি উপায়

আইফোনের মেমোরি বাড়ানোর কয়েকটি উপায়

আইফোন বাজারে আসার পর থেকেই এর ফিচারে নানা ধরনের পরবির্তন এসেছে। কিন্তু আইফোন ব্যবহারকারীদের একটি সমস্যা থেকেই গেছে, তা হলো এক্সপেন্ডেবল স্টোরেজ।

তবে এই সমস্যারও সমাধান আছে। এক্সপেন্ডেবল স্টোরেজ ছাড়াও আইফোনের মেমোরি বাড়ানোর কয়েকটি উপায় আছে। চলুন জেনে নেই সেগুলো সম্পর্কে।

ডকুমেন্ট ও পিডিএফ রিডার
এই অ্যাপটি আইটিউন, ওয়াইফাই নেটওয়ার্কের পাশাপাশি উইন্ডোজ এক্সপ্লোরার ও ফাইন্ডারের ব্যবহার করা যাবে। অ্যাপটির সবচেয়ে বড় সীমাবদ্ধতা হলো এর স্টোরেজ। এতে ২০০ মেগাবাইটের বেশি জায়গা ব্যবহার করা যায় না। তবে আনলিমিটেড স্টোরেজ পেতে হলে কিনতে হবে প্রো ভার্সন। আর এর প্রিমিয়াম ভার্সন কিনলে ব্যবহার করা যাবে ড্রপবক্স, গুগল ড্রাইভ, বক্স ও ওয়ানড্রাইভ ব্যবহার করা যাবে।

ফাইল ম্যানেজার
এটি শুধু ফাইল ম্যানেজ করতেই সাহায্য করে না বরং ভার্চুয়াল ইউএসবি ড্রাইভ হিসেবেও কাজ করে। আইফোন বা আইপ্যাডে এটি ইন্সটল করার পর দু’টি উপায়ে এতে ফাইল রাখা যায়। এক, আইফোনটি কম্পিউটারের সঙ্গে যুক্ত করে আইটিউনসে থাকা ফাইল ম্যানেজার খুঁজে বের করুন। এরপর কম্পিউটারে থাকা ফাইলগুলো ডকুমেন্ট সেকশনে কপি পেস্ট করুন।

দ্বিতীয়ত সেটিংসে গিয়ে আপলোড ভিয়া ওয়াইফাই সিঙ্ক সিলেক্ট করুন। এরপর এটি আপনাকে একটি আইপি অ্যাড্রেস দিবে। এই অ্যাড্রেস একটি ব্রাউজারে পেস্ট করুন। এতে ফাইল ম্যানেজার অ্যাপটি ডক ফাইল,পিডিএফ ও অ্যাপল আইওয়ার্ক ফাইলগুলো গ্রহণ করতে পারবে।

স্যানডিস্ক আইএক্সপান্ড ফ্ল্যাশ ড্রাইভ
ফাইল ট্রান্সফার করার জন্য সবচেয়ে কার্যকর ডিভাইস হলো স্যানডিস্ক আইএক্সপান্ড ফ্ল্যাশ ড্রাইভ। এটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে ফোনে থাকা ছবিগুলোর ব্যাকআপ রাখবে। এতে একটি ইউএসবি পোর্ট আছে। আপনার কাছে ইউএসবি ক্যাবল থাকলে ফ্ল্যাশ ড্রাইভ থেকে যেকোনো ডিভাইসে ফাইল আদান প্র্রদান করা যাবে। ফ্ল্যাশ ড্রাইভটি ৩২ জিবি, ৬৪ জিবি ও ১২৮ জিবিতে কিনতে পাওয়া যাবে।

আইটিউনস
থার্ড পার্টির তৈরি কোনো অ্যাপ বা ডিভাইস তৈরি করতে না চাইলে আইটিউনে ব্যবহার করাই ভালো। দুটি উপায়ে এটি ব্যবহার করা যায়। ফোন থেকে অন্য কোথাও ফাইল পাঠাতে ফাইলটির ওপরে ক্লিক করে নির্ধারিত ফোল্ডারে সেভ করতে হবে। আবার অন্য কোনো জায়গা থেকে ফোনে ফাইল ট্রান্সফার করতে হলে অ্যাড অপশনটি সিলেক্ট করতে হবে। এরপর যে ফাইলটি ফোনে ট্রান্সফার করতে চান তা ওপেন করতে হবে।

আইমার্ট ইউএসবি ফ্ল্যাশ ড্রাইভ
ইমার্ট দেখতে খুব একটা আকর্ষণীয় না হলেও দামে এটি স্যানডিস্কের অর্ধেক। এতে লাইটনিং,ইউএসবি ২.০ ও মাইক্রো ইউএসবি কানেক্টর রয়েছে। এটি বেশিরভাগ অ্যান্ড্রয়েড ফোনেই কাজ করে।

আইম্যাজিং
আইম্যাজিং ফোনে ইন্সটল না করেই ব্যবহার করা যায়। এটি আসলে একটি ডেক্সটপ অ্যাপ যা আইটিউনের রিপ্লেসমেন্ট হিসেবে কাজ করে। এতে ফাইল ট্রান্সফারের পাশাপাশি আরও অনেক ধরনের ফিচার রয়েছে যেমন, ফটো অর্গানাইজেশন, ব্যাক আপ ক্রিয়েশন ও অ্যাডভান্স আইওওস ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম।
সূত্র : ডিএমপি নিউজ

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫