ঢাকা, শুক্রবার,২২ সেপ্টেম্বর ২০১৭

আরো খবর

দৌলতদিয়া ঘাটে ৪ কিলোমিটার যানজট

রাজবাড়ী সংবাদদাতা

১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭,বৃহস্পতিবার, ০০:০০


প্রিন্ট

ঈদের ছুটি কয়েকদিন আগে শেষ হলেও রাজবাড়ীর গোয়ালন্দের দৌলতদিয়া ঘাটে ঢাকামুখী যাত্রীদের চাপ অব্যাহত রয়েছে। তবে তীব্র যানজট পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হলেও সোমবারও নদী পারের অপোয় আটকা পড়েছে বিভিন্ন ধরনের কয়েক শ’ যানবাহন। এর মধ্যে যাত্রীবাহী বাসের সংখ্যা কম থাকলেও তৈরি হয়েছে ট্রাকের দীর্ঘ সারি।
বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপরে (বিআইডব্লিউটিএ) পরিবহন পরিদর্শক ফরিদুল ইসলাম জানান, ভারী বৃষ্টিপাত হলেও ঝড়ো বাতাস না থাকায় এ রুটে লঞ্চ চালু রয়েছে। তবে আবহাওয়া বিভাগের কোনো জরুরি নির্দেশনা পেলে সাথে সাথে লঞ্চ চলাচল বন্ধ রাখা হবে।
বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন সংস্থা (বিআইডব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া কার্যালয় জানায়, গত পাঁচ দিনে দৌলতদিয়া ঘাট দিয়ে ১৯ হাজার ৪৯৩টি যানবাহন নদী পারাপার হয়েছে; যা অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়েছে। দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুট দিয়ে নদী পারাপার হতে আসা যানবাহনের চাপ বিবেচনা করে গত ৪ সেপ্টেম্বর শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুট থেকে রো রো ফেরি এনায়েতপুরী ও কে-টাইপ ফেরি ক্যামেলিয়া নিয়ে আসা হয়েছিল। সোমবার ফেরি দু’টি আবার ফিরে গেছে ওই রুটে। এ ছাড়া যান্ত্রিক ত্রুটিতে বিকল হওয়ার পর এই রুটের ফেরিবহরের কে-টাইপ ফেরি কপোতী ও কুমারী পাটুরিয়ার ভাসমান কারখানা মধুমতিতে মেরামতে রয়েছে। তাছাড়া রো রো ফেরি বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান ও ইউটিলিটি ফেরি চন্দ্রমল্লিকা বেশ কিছু দিন ধরে বিকল পড়ে রয়েছে। এ ফেরি দু’টি মেরামতে সময় লাগবে বলে জানিয়েছে কর্তৃপ।
সংশ্লিষ্টরা আরো জানায়, দৌলতদিয়ায় পাঁচটি ঘাটের মধ্যে চারটি চালু রয়েছে। ৫ নম্বর ঘাট পন্টুনে তীব্র স্রোতের কারণে ফেরি ভিড়তে পারছে না। এ অবস্থায় ওই পন্টুনটি স্থানান্তরের জন্য বন্ধ রেখে আগের ২ নম্বর ঘাট এলাকায় স্থাপনের কাজ চলছে।
দৌলতদিয়া ঘাটে কর্মরত বিআইডব্লিউটিসির ব্যবস্থাপক শফিকুল ইসলাম সমকালকে জানান, দৌলতদিয়া ঘাট পরিস্থিতি অনেকটা স্বাভাবিক হওয়া ও যানবাহনের চাপ কমে যাওয়ায় শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌরুট থেকে আনা ফেরি দু’টি সোমবার ফিরে গেছে। কিছু যানবাহন নদী পারাপারের জন্য সিরিয়ালে আটকা পড়েছে। তবে দ্রুততম সময়ের মধ্যে সেগুলো পার করা সম্ভব হবে।
এদিকে লঞ্চঘাটে গিয়ে দেখা যায়, দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া উপো করে শত শত মানুষ দ্রুত গন্তব্যে পৌঁছাতে লঞ্চে নদী পারাপার হচ্ছে।
পাটুরিয়ায় যানবাহন চাপে মহাসড়কে দীর্ঘ জট
শিবালয় (মানিকগঞ্জ) সংবাদদাতা জানান, পদ্মায় প্রবল স্র্রোত এবং কয়েক যুগের পুরনো ফেরির কারণে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে পারাপারের জন্য আসা যানবাহনের চাপ আবারো বৃদ্ধি পেয়েছে। গতকাল উভয়ঘাটে পারের অপেক্ষায় সহস্র্রাধিক যানবাহন আটকে পড়ে। এতে প্রায় ১০ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। দুর্ভোগ লাগবে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ফেরিতে যাত্রীবাহী পরিবহন পারাপার হলেও ৫-৭ ঘণ্টা ঘাটে অপেক্ষা করতে হচ্ছে। অপেক্ষায় থাকা যানবাহনের যাত্রীসাধারণ পরিবহন শ্রমিকসহ ঘাট সংশ্লিষ্টরা চরম দুর্ভোগ পোহায়। এদের মধ্যে নারী-শিশুরা বেশি বিপাকে পড়ে।
ফেরি সেক্টর বিআইডব্লিউটিসি আরিচা আঞ্চলিক অফিস সূত্রে জানা গেছে, এ রুটে যানবাহন পারাপারে জন্য বর্তমানে বহরের ছোট-বড় ১৯টি ফেরি রয়েছে। এর মধ্যে যান্ত্রিক ত্রুটিতে দু’টি সাময়িক বন্ধ থাকায় ১৭টি ফেরিযোগে যানবাহন পারাপার হচ্ছে। এ ছাড়া বহরের বেশির ভাগ ফেরি দীর্ঘ দিনের পুরনো হওয়ায় নদীর প্রবল স্র্রোত ও বাতাসে সৃষ্ট ঢেউ এড়িয়ে তা পরিচালনায় মারাত্মক বিঘœ ঘটছে। দৌলতদিয়া প্রান্তে প্রবল স্র্রোতে ১ নম্বর পন্টুন স্থির না থাকায় ফেরি ভিড়াতে ও যানবাহন লোড-আনলোডে বেগ পোহাতে হচ্ছে। সব মিলিয়ে এ রুটে ফেরির ট্রিপ সংখ্যার পাশাপাশি যানবাহন পারাপারের সংখ্যাও হ্রাস পেয়েছে।
পাটুরিয়া ফেরি ঘাট ব্যবস্থাপক সালাউদ্দিন জানান, স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে চলতি সপ্তাহজুড়ে এ রুটে যানবাহন পারাপারের সংখ্যা রেকর্ড পরিমাণ বৃদ্ধি পেয়েছে, যা মোকাবেলা করতে সংশ্লিষ্ট বিভাগ নিয়মিত হিমশিম খাচ্ছে। দুর্ভোগ লাগবে অতীতের মতো যাত্রীবাহী বাস কোচ, মাইক্রো, প্রাইভেট কার অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পারাপার করা হচ্ছে।
অন্য দিকে, পারের অপেক্ষায় থাকা পণ্যবাহী ট্রাক-লরির সংখ্যা ক্রমে বৃদ্ধি পেয়ে উভয়পারের ট্রাক টার্মিনাল উপচে মহাসড়কের বিভিন্ন পয়েন্টে দাঁড়িয়ে থাকায় প্রায় ১০ কিলোমিটার দীর্ঘ জটের সৃষ্টি হয়।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫