ঢাকা, বুধবার,২০ সেপ্টেম্বর ২০১৭

অন্যদিগন্ত

চার বিমানে ৩৪ টন ত্রাণ পাঠাল ইন্দোনেশিয়া

এপি

১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭,বৃহস্পতিবার, ০০:০০


প্রিন্ট

রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জন্য দু’টি ভাড়া করা পরিবহন বিমানে করে বাংলাদেশে ত্রাণ পৌঁছে দেয়ার তথ্য দিয়েছেন জাতিসঙ্ঘ মহাসচিব অ্যান্থনিও গুয়েতেরেজের মুখপাত্র স্টিফেন দুজারিক। জাতিসঙ্ঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআরের সহায়তায় পাঠানো প্রথম বিমানে রয়েছে স্লিপিং ম্যাট, বাড়ি তৈরির জিনিসপত্রসহ আরো কিছু জিনিসপত্র। বিমানটি বাংলাদেশে পৌঁছানোর পর এরই মধ্যে বিমান থেকে এগুলো ট্রাকে নেয়া হয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি। দ্বিতীয় বিমানটি আরব আমিরাতের আর্থিক সহায়তার ত্রাণে পূর্ণ ছিল। সেখানে দুই হাজার তাঁবু রয়েছে। দুজারিক জানান, ‘এই ত্রাণে ২৫ হাজার রোহিঙ্গাকে সহায়তা করা সম্ভব হবে। এ ছাড়া আরো ত্রাণ আসছে যা দিয়ে এক লাখ ২০ হাজার রোহিঙ্গাকে সাহায্য করা সম্ভব।’ এদিকে মালদ্বীপের একটি টিভি রোহিঙ্গা উদ্বাস্তুদের জন্য ২১৪ কোটি টাকা সংগ্রহ করেছে।
বার্তা সংস্থা এপি বলছে, বুধবার বাংলাদেশের উদ্দেশে ছেড়ে আসা চারটি বিমানকে বিদায় জানান ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট জোকো উইডোডো। প্রথমবারে পাঠানো এসব ত্রাণের মধ্যে রয়েছে তাঁবু, চাল, চিনি, কম্বল, পানির ট্যাংক, তাৎণিক খাওয়ার মতো খাদ্য, স্যানিটেশনে ব্যবহৃত সরঞ্জাম। পূর্ব জাকার্তায় হালিম পরদানাকুসুমাহ বিমান ঘাঁটি থেকে এ বিমানগুলো ছেড়ে আচেহ প্রদেশে থামার কথা। সেখান থেকে নতুন করে জ্বালানি নিয়ে উড়বে চট্টগ্রামের উদ্দেশে। এসব বিমানে রয়েছেন ১৮ জন স্বেচ্ছাসেবক। তারা ইন্দোনেশিয়া থেকে আসছেন। কক্সবাজারে শরণার্থী শিবিরগুলোতে এসব ত্রাণ বিতরণে সহায়তা করবেন তারা। প্রেসিডেন্ট উইডোডো বলেছেন, হারকিউলিস বিমানগুলো সেনাবাহিনীর। তাদের দ্বারা এটি পরিচালিত হয়। দ্রুততার সাথে যাতে ত্রাণ পৌঁছে যায় তা নিশ্চিত করতে এই বিমান ব্যবহার করা হয়েছে। তার ভাষায়, ‘কনটেইনারে করে যদি আমরা এসব ত্রাণ পাঠাতাম তাহলে তা বাংলাদেশে পৌঁছতে অনেক দীর্ঘ সময় লেগে যেত।’ মঙ্গলবার নিউ ইয়র্কে জাতিসঙ্ঘ সদর দফতরে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে স্টিফেন দুজারিক জানান, ২৫ আগস্টের পর তিন লাখ ৭০ হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছেন। তাদের সর্বোচ্চ সহায়তা করছে স্থানীয় লোকজন। নতুনদের আশ্রয় দিতে বাংলাদেশ সরকার জাতিসঙ্ঘের কাছে সহায়তা চেয়েছে।
মালদ্বীপের টিভি চ্যানেলের সংগ্রহ
আলজাজিরা জানায়, মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সহিংসতা থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জন্য দুই লাখ ৬০ হাজার মার্কিন ডলারের সাহায্য সংগ্রহ করেছে মালদ্বীপের শীর্ষস্থানীয় বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল রাজি টিভি। সাউথ এশিয়ান মনিটরের এক খবরে থেকে এই ত্রাণ সংগ্রহের কথা জানা গেছে।
সাউথ এশিয়ান মনিটর জানায়, চ্যানেলের আয়োজিত ‘রোহিঙ্গাদের পাশে মালদ্বীপ’ শীর্ষক একটি কর্মসূচি থেকে দুই লাখ ৬০ হাজার মার্কিন ডলারের সমপরিমাণ এ অর্থ সংগ্রহ করা হয়। এ জন্য চ্যানেলটি ৩০ ঘণ্টাব্যাপী টেলিথন (টেলিফোনে অনুদান সংগ্রহ) কর্মসূচির আয়োজন করে।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫