শুরুতেই ভারতীয় দলকে শোচনীয়ভাবে হারাল ভারত
শুরুতেই ভারতীয় দলকে শোচনীয়ভাবে হারাল ভারত

শুরুতেই ভারতীয় দলকে শোচনীয়ভাবে হারাল অস্ট্রেলিয়া

নয়া দিগন্ত অনলাইন

ভারতের বিপক্ষে পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে ও তিন ম্যাচের টুয়েন্টি টুয়েন্টি সিরিজের আগে একমাত্র প্রস্তুতি ম্যাচে বড় জয় পেয়েছে সফরকারী অস্ট্রেলিয়া। আজ সফরের একমাত্র প্রস্তুতি ম্যাচে ভারতীয় বোর্ড প্রেসিডেন্ট একাদশকে ১০৩ রানের বড় ব্যবধানে হারায় অসিরা।

চেন্নাইয়ে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিং করার সিদ্বান্ত নেয় অস্ট্রেলিয়া। মার্কাস স্টোয়নিসের ৬০ বলে ৭৬, ট্রাভিস হেডের ৬৩ বলে ৬৫, ডেভিড ওয়ার্নারের ৪৮ বলে ৬৪, অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথের ৬৮ বলে ৫৫ ও উইকেটরক্ষক ম্যাথু ওয়েডের ২৪ বলে ৪৫ রানের কল্যাণে ৫০ ওভারে ৭ উইকেটে ৩৭৩ রানের বিশাল সংগ্রহ পায় অস্ট্রেলিয়া।

জবাবে ২৪৪ রানেই গুটিয়ে যায় ভারতীয় বোর্ড প্রেসিডেন্ট একাদশ। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪৩ রান করেন শ্রিবাস গোস্বামী। অস্ট্রেলিয়ার অ্যাস্টন আগার ৪টি ও কেন রিচার্ডসন ২টি উইকেট নেন।
আগামী ১৭ সেপ্টেম্বর থেকে ওয়ানডে সিরিজ শুরু করবে ভারত- অস্ট্রেলিয়া। ওয়ানডে সিরিজ শেষে ৭ অক্টোবর থেকে তিন ম্যাচের টি-২০ সিরিজ শুরু করবে দু’দল।

ভারতীয় ক্রিকেটের সবচেয়ে দুরবস্থা ছিল ২০০৭ বিশ্বকাপে
২০০৭ ওয়ানডে বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নেয়াটা ভারতীয় ক্রিকেটের সবচেয়ে দুরবস্থা বলে মনে করেন দেশটির সাবেক মাস্টার ব্লাস্টার ব্যাটসম্যান শচিন টেন্ডুলকার। বাংলাদেশ ও শ্রীলংকার কাছে হেরে ওয়েস্ট ইন্ডিজে ২০০৭ বিশ্বকাপের প্রথম রাউন্ড থেকে বিদায় নিয়েছিলো টিম ইন্ডিয়া। আর সেটি ভারতীয় ক্রিকেট ইতিহাসে সবচেয়ে শোচনীয় অবস্থা ছিলো জানিয়ে টেন্ডুলকার বলেন, ‘আমার মনে হয় ২০০৬-০৭ মৌসুমে সবচেয়ে শোচনীয় পর্যায়ে পৌঁছে গিয়েছিল আমাদের ক্রিকেট। ২০০৭ বিশ্বকাপের সুপার এইটে খেলার যোগ্যতা অর্জন করতে পারিনি। কিন্তু সেখান থেকে আমরা ফিরে ভালোভাবে শুরু করেছিলাম এবং নতুন লক্ষ্য নিয়ে যাত্রা শুরু করেছিলাম।’

২০০৭ বিশ্বকাপে ‘বি’ গ্রুপে ছিলো বাংলাদেশ-ভারত-শ্রীলংকা ও বারমুডা। ঐ আসরে গ্রুপ পর্বে নিজেদের প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশের কাছে অসহায় আত্মসমর্পণ করে ভারত। এরপর নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে বারমুডার বিপক্ষে জয় পেলেও, শ্রীলংকার কাছে হার মানে টিম ইন্ডিয়া। ফলে এক জয় নিয়েই গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নেয় ভারত। ঐ বিদায়ই ভারতীয় ক্রিকেটের শোচনীয় পর্যায় বলে জানান টেন্ডুলকার। তিনি বলেন, ‘বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নেয়ার পর আমরা দলে অনেক পরিবর্তন এনেছিলাম এবং আমরা পরিকল্পনা করেছিলাম দল হিসেবে আমরা কি অর্জন করতে পারি। এরপর আমরা ভালো ফল করার জন্য অঙ্গীকার করেছিলাম।’

নিজেদের অঙ্গীকার পরে রাখতে পেরেছিলেন বলে জানান টেন্ডুলকার। এজন্য কিছুটা সময়ও লেগেছে বলেন মনে করেন তিনি, ‘পুরো দলে আমাদের বেশ কিছু পরিবর্তন করতে হয়েছিলো। সেই পরিবর্তনগুলো সঠিক বা ভুল কি-না তা আমরা জানতাম না। পরিবর্তন রাতারাতি ঘটে না। আমরা ফলাফলের জন্য অপেক্ষা করেছি। শেষ পর্যন্ত আমার ২১ বছরের ক্যারিয়ারে ২০১১ সালে বিশ্বকাপের শিরোপা জয় করতে পারি।’

২০১১ সালে দেশের মাটিতে মহেন্দ্র সিং ধোনির নেতৃত্বে ওয়ানডে বিশ্বকাপের শিরোপা জয় করে ভারত।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.