ঢাকা, শুক্রবার,২২ সেপ্টেম্বর ২০১৭

অপরাধ

মিরপুরে উগ্রবাদী আস্তানার অভিযান সমাপ্ত ঘোষণা

নিজস্ব প্রতিবেদক

০৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭,শুক্রবার, ২০:৩৯ | আপডেট: ০৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭,শুক্রবার, ২০:৪২


প্রিন্ট

রাজধানীর মিরপুর দারুসসালামের বর্ধণবাড়ি ‘কমল প্রভা’ বাড়ির উগ্রবাদী আস্তানায় অভিযান শেষ করেছে র‌্যাব।

টানা ৮৭ ঘণ্টাব্যাপী অভিযানে আজ শুক্রবার বিকেল ৪টায় আনুষ্ঠানিকভাবে সমাপ্ত ঘোষণা করা হয়।

এর আগে, গত সোমবার রাত একটা থেকে উগ্রবাদী আস্তানায় অভিযান শুরু করে র‌্যাব।

আজ অভিযান শেষে এসব কথা জানান র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার মুফতি মাহমুদ খান।

তিনি বলেন, জঙ্গি আস্তানা থেকে ১৭টি শক্তিশালী বোমা, ৩০টি ইম্প্রোভাইজ হ্যান্ড গ্রেনেড, কেমিক্যাল বোমা ৫০টি, এক কন্টেইনার এসিড, ১০ কেজি গান পাউডার, তিন কেজি সালফার, ১১ কন্টেনারে দাহ্য পদার্থ, স্প্লিন্টার ১৫ কেজি, ৬১টি ধারালো অস্ত্রসহ চারকোল, ইগনাইটিং কর্ড, সার্কিট ও মাস্ক উদ্ধার করা হয়েছে। ভবনটি এখন বিস্ফোরকমুক্ত। তবে চতুর্থ ও পঞ্চম তলা র‌্যাবের নিয়ন্ত্রণে থাকবে।

বাড়িটি বসবাসের উপযোগী কি না জানতে চাইলে র‌্যাবের এ মুখপাত্র বলেন, সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলার পর তা জানানো যাবে। বাসিন্দাদের অপেক্ষা করতে হবে। বিস্ফোরণে দু’টি ফ্লোর ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। ফলে সেটা টেকনিক্যালি পরীক্ষা ছাড়া বসবাসের জন্য কতটুকু নিরাপদ তা বলা যাচ্ছে না। উগ্রবাদী আব্দুল্লাহর লাশ নিতে তার পরিবার অস্বীকার করেছে। বাকি দুই সহযোগীর পরিচয় এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

ওই বাসায় উগ্রবাদী আব্দুল্লাহর সাথে আরো ৫-৬ জনের যাতায়াত ছিল। বিস্ফোরণে দু’জন সহযোগী মারা গেছে। বাকিদের ব্যাপারে তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। যেহেতু লাশগুলো একেবারেই পুড়ে গেছে সেজন্য তাদের ডিএনএ টেস্ট করে শনাক্ত করতে হবে। এছাড়া ছয়তলা থেকে কিছু গুরুত্বপূর্ণ ডকুমেন্ট পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার রাতের বিরতির পর আজ সকাল পৌনে ৯টার দিকে ফের অভিযান শুরু করে র‌্যাব।

র‌্যাব, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স এবং বোম ডিসপোজাল ইউনিটের সদস্যরা বাড়িটিতে প্রবেশ করে তল্লাশি শুরু করে। ওই বাড়ির উগ্রবাদী আস্তানায় একটি ফ্ল্যাটের তল্লাশি অভিযান বাকি ছিল, আজ সেখানে অভিযান চালিয়ে প্রচুর ক্যাচিং ও কার্টন পাওয়া গেছে। এছাড়া বোমার তৈরির প্রচুর বিস্ফোরক ও সরঞ্জামাদি উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানান র‌্যাব মুখপাত্র মুফতি মাহমুদ খান।

টাঙ্গাইলের এলেঙ্গার একটি বাড়ি থেকে গত সোমবার রাতে উগ্রবাদি সন্দেহে দুই ভাইকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। তাদের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতেই ‘ফলোআপ’ হিসেবে বর্ধণবাড়ি এলাকার ২/৩-বি ‘কমল প্রভা’ বাড়িটি ঘেরাও করে র‌্যাব। বাড়িটির মালিক সাবেক টিঅ্যান্ডটির কর্মকর্তা হাবিবুল্লাহ বাহার আজাদ।

গত মঙ্গলবার দিনভর আব্দুল্লাহকে আত্মসমর্পণের আহ্বান জানানো হয়। দুপুরে আব্দুল্লাহর বোন মেহেরুন্নেসা মেরিন বাড়ি থেকে বেরিয়ে এসে র‌্যাবের কাছে আত্মসমর্পণ করেন। তাকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করে র‌্যাব। এ সময় ওই বাড়ির ২৪টি ফ্ল্যাটের মধ্যে ২৩টি ফ্ল্যাট থেকে ৬৫ বাসিন্দাকে সরিয়ে নেয়া হয়। ওইদিন সন্ধ্যায় আব্দুল্লাহ আত্মসমর্পণে রাজি হন। কিন্তু রাত পৌনে ১০টার দিকে বাড়িটিতে পরপর তিনটি বড় ধরনের বিস্ফোরণ হয়। বাড়ি থেকে আগুন ও ধোঁয়ার কুণ্ডলী বের হয়।

বিস্ফোরণের পর র‌্যাবের কর্মকর্তারা বলেন, বাড়ির ভেতরে থাকা উগ্রবাদীরা নিজেরা বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আত্মঘাতী হয়েছেন। এতে পাঁচ র‌্যাব সদস্য আহত হন। আব্দুল্লাহ জেএমবির সারোয়ার-তামিম গ্রুপের আল-আনসার সদস্য ছিলেন বলে দাবি র‌্যাবের।

গত বুধবার আস্তানা থেকে থেকে সাতজনের মাথার খুলিসহ দেহাবশেষ উদ্ধার করা হয়। নিহতদের মধ্যে উগ্রবাদী আব্দুল্লাহ, তার দুই স্ত্রী নাসরিন ও ফাতেমা, দুই ছেলে ওমর ও ওসামা এবং বাকি দু’জন আব্দুল্লাহর কর্মচারী বলে জানায় র‌্যাব। দুই কর্মচারীর মধ্যে একজন কামাল হোসেন বলে দাবি করেন তার বাবা-মা। উগ্রবাদী সম্পৃক্ততার অভিযোগে ভবনটির মালিক আজাদ ও নৈশপ্রহরী সিরাজুল ইসলামকে সাভারের একটি মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে রিমান্ডে নেয় র‌্যাব।

র‌্যাব বলছে, আজ সকাল ৯টা থেকে ওই বাড়ির উগ্রবাদী আস্তানায় অভিযান শুরু করা হয়। বৃহস্পতিবার ছয়তলার একটি অংশে তল্লাশি চালানো হয়। আরেকটি অংশে, যেখানে ফ্রিজ রয়েছে সেগুলো আমরা সাবধানতার সাথে খুলছি। দুটি ফ্রিজের সাথে ইম্প্রোভাইজড বোমার সংযোগ ছিল। ওখান থেকে আরো কিছু বোমা তৈরির সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়েছে।
ছয়তলা ওই বাড়ির প্রতিটি তলায় চারটি করে ইউনিট। তার মধ্যে পাঁচতলার দু’টি ইউনিটে সন্দেহভাজন উগ্রবাদী আব্দুল্লাহ পরিবার নিয়ে থাকতেন। ছয়তলার অর্ধেক অংশে তিনি কবুতর পুষতেন। বাকি খোলা জায়গাও কবুতর রাখতে ব্যবহার করা হতো। আব্দুল্লাহ ২০০৫ সাল থেকে উগ্রবাদী কার্যাক্রমের সাথে সম্পৃক্ত হয় বলে জানিয়েছে র‌্যাব। র‌্যাবের দাবি, তার বাসায় সারোয়ার, তামিম, মাহফুজসহ জঙ্গি নেতাদের যাতায়াত ছিল।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫