ঢাকা, বৃহস্পতিবার,২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭

প্রশাসন

দুদকের ফোর্স হিসেবে পুলিশের ২০ সদস্যের যোগদান

নিজস্ব প্রতিবেদক

০৭ সেপ্টেম্বর ২০১৭,বৃহস্পতিবার, ১৯:৪৯


প্রিন্ট

দুর্নীতি দমন কমিশনের আর্মড ইউনিটের সদস্য হিসেবে পুলিশের ২০ জন সশস্ত্র সদস্য যোগদান করেছেন।

আজ বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় কমিশনের মহাপরিচালক (প্রশাসন) মোহাম্মদ মুনীর চৌধুরী পুলিশ সদস্যদের কমিশনে স্বাগত জানান।

কমিশনের প্রধান কার্যালয়ের সামনে দুদক মহাপরিচালক মোহাম্মদ মুনীর চৌধুরী বলেন, আজ থেকে দুর্নীতি দমন কমিশনের দুর্নীতিবিরোধী কার্যক্রমে নতুন মাত্রার সংযোজন হলো।

তিনি বলেন, কমিশনের মামলার আসামি গ্রেফতার, তল্লাশি, আলামত জব্দকরণ, আসামি আদালতে সোপর্দ এবং সর্বোপরি দুদকের দুর্নীতি বিরোধী অভিযানে নিয়োজিত টিমের সার্বিক নিরাপত্তা বিধানে এই ইউনিটের সদস্যরা দায়িত্বপালন করবেন।

তিনি বলেন, দুর্নীতি করে কেউ যাতে পালিয়ে যেতে না পারে, সেজন্য কমিশনের দুর্নীতিবিরোধী কার্যক্রম আরো জোরদার করা হবে এবং দুর্নীতিবাজদের কঠোরভাবে প্রতিরোধ করা হবে।

তিনি বলেন, নিজস্ব বাহিনীর মতোই এফবিআই এবং সিবিআই স্টাইলে দুদকের কার্যক্রম পরিচালিত হবে বলে আমরা আশা করছি।

মহাপরিচালক সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, কমিশনের আর্মড ইউনিটের সদস্যরা মামলার অনুসন্ধান বা তদন্ত কাজে অংশগ্রহণ করবেন না। তারা শুধু দুর্নীতিবিরোধী অভিযানে সম্পৃক্ত থাকবেন।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, দুদক আইন অনুসারে কমিশনের কার্যক্রমে সব বাহিনী এবং কর্তৃপক্ষের দুদককে সহযোগিতা করার আইনি বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালে দুর্নীতি দমন কমিশনের চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ চেয়ারম্যান হিসেবে যোগদান করে পাঁচ বছর মেয়াদি কৌশলগত কর্মপরিকল্পনা প্রণয়নের লক্ষে বিভিন্ন স্টেকহোল্ডারদের সাথে ধারাবাহিকবাবে মতবিনিময় করেন। এ মতবিনিময়ের আলোকে কমিশন পাঁচ বছর মেয়াদি কৌশলগত কর্মপরিকল্পনার অংশ হিসেবে এক বছর মেয়াদী কৌশলগত কর্মপরিকল্পনা, ২০১৭ এর অনুমোদন দেয়। এ বছরেই কমিশনের আর্মড ইউনিট গঠনের বিধিমালা প্রণয়ন করা হয়। কর্মপরিকল্পনা অনুসারে এবছরেই আর্মড ইউনিট গঠনের অঙ্গীকার করেছিল কমিশন। আজ কমিশনের এ অঙ্গীকার বাস্তবায়িত হলো।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫