কিচেন মেকওভার

মাহজাবীন রহমান

রান্নাঘর বাড়ির সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জায়গা। কারণ এখানেই সবচেয়ে বেশি কাজ হয় এবং এই ঘরে বাড়ির লোকজনদের যাতায়াতও বেশি থাকে। তাই পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন হওয়ার সাথে সাথে রান্নাঘরের ডেকোরেশন সুন্দর হওয়াও প্রয়োজন। আধুনিক সাজে ইন্টেরিয়র করতে গেলে, সেটি ব্যয়বহুল একটি বিষয় হয়ে দাঁড়ায়। তবে অল্প খরচেও আপনি আপনার রান্নাঘরটি সাজিয়ে নিতে পারেন। জেনে নিন তারই কয়েকটি উপায়।
ষ কেবিনেট করার সময় কাঠের বদলে বোর্ড দিয়ে করুন এবং অনেক ছোট ছোট কেবিনেট না করে বরং বড় বড় কয়েকটা করে নিন। রান্নাঘরে যদি র‌্যাক বা তাক থাকে তা হলে শুধু সামনে দরজা বসিয়ে নিন। খরচ কমে যাবে। আবার ঘরের পুরনো ফার্নিচার কেটেও কেবিনেট করে নিতে পারেন। এতে খরচ প্রায় অর্ধেক কমে আসবে। একইভাবে বাজার ঘুরে পুরনো কিছু সেলফ কিনেও আপনার রান্নাঘরে সেট করে নিতে পারেন। এতে আপনার কস্টিং আরো কমে যাবে। তবে এ ক্ষেত্রে নতুন করে অবশ্যই বার্নিশ করিয়ে নেবেন। তা হলেই পুরনো ম্যাটেরিয়ালে চলে আসবে নতুনের চমক।
ষ শুধু কেবিনেট দিয়ে রান্নাঘর ভরে না ফেলে কিছু কিছু সিস্টেম রাখুন। এ জন্য কয়েকটি হ্যাংয়িং র‌্যাক লাগিয়ে নিতে পারেন। যেন আপনি কিছু জিনিস ঝুলিয়ে রাখতে পারেন। এতেও আপনার কেবিনেটের খরচ কমে যাবে। একই সাথে রান্নাঘরটিও থাকবে বেশ খোলামেলা।

টাইলস ব্যবহার করুন
কাউন্টার টপে মার্বেল পাথরের বদলে টাইলস ব্যবহার করুন। তাতে খরচ অনেকটাই কমে আসবে। তবে টাইলস গাঢ় রঙের হলে ভালো হয়। রান্নাঘরের কালি, দাগ সহজে বোঝা যাবে না।

দেয়ালে টাইলস লাগান
রান্নাঘরের দেয়ালে রঙ না করে বরং টাইলস লাগিয়ে নিন। এতে খরচ কিছুটা বেশি হলেও পরে রঙ করার ঝামেলা কমে যাবে। তা ছাড়া এতে করে দেয়ালে তেল, ময়লা বসে যাওয়ার ভয়ও নেই। সাবান-পানিতে ধুয়ে নিলেই রান্নাঘরের দেয়াল আবার ঝকঝকে হয়ে যাবে।
ষ রান্নাঘরের সিঙ্কের জন্য দামি কলের বদলে কম দামি কল লাগান। একটু যত্ন নিয়ে ব্যবহার করলে এগুলোও অনেক দিন টেকসই হয়। আজকাল বাজারে বেশ ভালো ভালো প্লাস্টিকের কল পাওয়া যায়, যেগুলো দামে বেশ সাশ্রয়ী। এগুলোও ব্যবহার করতে পারেন।
এভাবে একটু চিন্তাভাবনা করে ডেকোরেশন করলে খুব কম বাজেটেই আপনার রান্নাঘরটি সাজিয়ে নিতে পারবেন। তবে যাই করুন নিয়মিত পরিষ্কার অবশ্যই করবেন। পরিচ্ছন্ন রান্নাঘরেই ফুটে ওঠে অন্দরের আসল সৌন্দর্য।

 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.