ঢাকা, রবিবার,১৯ নভেম্বর ২০১৭

টেলিভিশন

মিথিলা ইরেশের পাঞ্চ ক্লিপ

আলমগীর কবির

২৯ আগস্ট ২০১৭,মঙ্গলবার, ১৬:৪২


প্রিন্ট
মিথিলা ইরেশের পাঞ্চ ক্লিপ

মিথিলা ইরেশের পাঞ্চ ক্লিপ

প্রতিবারের মতো দেশের সেরা তারকাদের অভিনয়ে ও সেরা নির্মাতাদের পরিচালনায় দর্শকদের জন্য থাকছে লাক্স ভালোবাসার সৌরভের গল্পের সাতটি নাটক। এর মধ্যে পাঞ্চ ক্লিপ নামে একটি পরিচালনা করেছেন রেদওয়ান রনি। গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করেছেন মিথিলা, ইশের যাকের উর্মিলা শ্রাবন্তী কর প্রমুখ।

নাটকটি প্রসঙ্গে মিথিলা বলেন, পাঞ্চ ক্লিপ চলমান সময়ের ব্যক্তি জীবনের কথা বলেছে। নাটকটিতে ভালোবাসার অনুভূতিগুলোকে উপস্থাপন করা হয়েছে বেশ ইতিবাচকভাবে। চ্যালেঞ্জের মধ্যেও যে মানুষকে এগোতে হয় সে কথাই নাটকের মূল উপজীব্য। এরকম একটি নাটকে কাজ করতে পারা খুবই আনন্দের।’

নাটক সম্পর্কে ইরেশ যাকের বলেন, ‘সম্পর্ক যে কখনো মন থেকে চিরতরে মুছে যায় না সেটাই বলার চেষ্টা করা হয়েছে পাঞ্চ ক্লিপ নাটকে। নাটকটিতে সহশিল্পী হিসেবে মিথিলাকে পাওয়া বিষয়বস্তু উপস্থাপন অনেক সহজ হয়েছে। আশাকরি সবার কাছে নাটকটি ভালো লাগবে।’

ভালোবাসার অনুভূতি একদমই চলমান একটি প্রক্রিয়া যেটাই নাটকের বার্তা। অনেকটা রবি ঠাকুরের ছোট গল্পের মতো ‘শেষ হইয়াও হইল না শেষ’। সম্পর্কটা শেষ হয়ে যায়; কিন্তু রেশ রয়ে যায়।

শাহেদ ও মিথিলার দাম্পত্য জীবন প্রায় ২ বছর হলেও এখনো বেশ নতুন, দুইজনের মজার খুনসুটি আর ভালোবাসাবাসিতে বেশ আনন্দেই কাটছিল দিন। গল্পটা শুরু হয় শাহেদের সাবেক প্রেমিকা যখন ঠিক সামনের বাসায় ভাড়াটিয়া হয়ে আসে। রাহার সাথে সম্পর্কটা হয়ত নষ্ট হয়ে গিয়েছিল কিন্তু অনুভূতির রেশটা একেবারে ফিকে হয়ে যায়নি। এর রেশটার সূত্রই দুইজনকে কাছে টানতে থাকে অবাদ। একসময় হুশ হয় শাহেদের যখন বুঝতে পারে ভুলটা করে ফেলেছে সে।

একটা তীব্র অপরাধবোধ তাড়া করতে থাকে। দ্বিতীয় বিবাহ বার্ষিকীর রাতে নিজেই কনফেস করে ফেলে বিবেকের তাড়নায়। মিথিলা কিভাবে মেনে নেবে এই কষ্টকে। শাহেদের কনফেসানের সততাকে সম্মান করে একসাথে কিছুদিন থাকলে শেষ পর্যন্ত হাঁপিয়ে উঠে সে। সুন্দর একটি সম্পর্কের ইতি টানতে হয় তাদের। পাঁচ বছর পর আবার হঠাৎ দেখা। সম্পর্ক নেই; কিন্তু ভালোবাসার রেশটা কি এখন টানছে না তাদের? আমার কি ইচ্ছে করছে না অল্প একটু সময়ের জন্য দুইজনের একটু কাছাকাছি আসার? প্রশ্নের উত্তর পাওয়া যাবে ঈদ অনুষ্ঠানমালায় পাঞ্চ ক্লিপ দেখলেই।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫