ঢাকা, বুধবার,২৩ আগস্ট ২০১৭

রংপুর

বালিয়াডাঙ্গীতে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত কয়েক হাজার মানুষ

বিএনপির উদ্যোগে শুকনা খাদ্যসামগ্রী বিতরণ

বালিয়াডাঙ্গী (ঠাকুরগাঁও) সংবাদদাতা

১৩ আগস্ট ২০১৭,রবিবার, ১৭:২৪


প্রিন্ট

ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গীতে গত ৩ দিনের টানা ভারী বর্ষণ ও উজান থেকে বয়ে আসা বন্যার পানিতে উপজেলার বড়পলাশবাড়ী ও আমজানখোর ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এতে প্রায় কয়েক হাজার মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আ: মান্নান ও উপজেলা বিএনপির একটি টিম পৃথকভাবে বন্যা কবলিত এলাকায় পরিদর্শনকালে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আশ্রয় নেওয়া মানুষগুলোর মাঝে শুকনা খাবার বিতরন করেন।

এলাকার পানিবন্দী মানুষগুলো আশ্রয় হিসাবে বেছে নিয়েছেন পার্শ্ববর্তী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো। আকস্মিক বন্যার ফলে দুই ইউনিয়নের কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছুটির ঘোষণা করা হয়েছে। পানিবন্দী বড়পলাশবাড়ী ইউনিয়নের গ্রামগুলো হচ্ছে কাশুয়া খাদেমগঞ্জ, নয়াবস্তী, বিহারী কলোনী, খেরবাড়ী ও আমজানখোর ইউনিয়নের চুড়ইগদি, বেউরঝাড়ী, থুকরাবাড়ীসহ আরও কয়েকটি গ্রাম, দুওসুও ইউনিয়নের পূর্ব কাদুকা, মধ্যে কাদশুকা, কালমেঘ, লালাপুর, ছোটপলাশবাড়ীসহ বেশ কয়েকটি গ্রামের শত শত ঘরবাড়ি, কালভাট, ব্রিজ, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান নষ্ট হয়ে গেছে।

পানিবন্দী পরিবারগুলোকে সহযোগিতা করার জন্য বেসরকারী কোনো এনজিও এগিয়ে আসেনি। আজ রোববার বিকালে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আ: মান্নান ও উপজেলা বিএনপির একটি টিম পৃথকভাবে বড়পলাশবাড়ী ও আমজানখোর ইউনিয়নের পানিবন্দী হয়ে পড়া এলাকা পরিদর্শন করেন।

অপরদিকে, আজ রোববার বিকালে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা বিএনপির পক্ষ থেকে আমজানখোর ও বড়পলাশবাড়ী ইউনিয়নের পানিবন্দী হয়ে পড়া এলাকা পরিদর্শনকালে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা বিএনপির সভাপতি রাজিউর রহমান চৌধুরী রাজু ও তার সঙ্গীয় শীর্ষ নেতৃবৃন্দকে নিয়ে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আশ্রয় নেওয়া মানুষগুলোর মাঝে শুকনা খাবার বিতরণ করেন।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫