ঢাকা, শনিবার,২১ অক্টোবর ২০১৭

ঢাকা

গৃহবধূ ধর্ষণ মামলায় ইউপি চেয়ারম্যান জেলহাজতে

টাঙ্গাইল সংবাদদাতা

১৩ আগস্ট ২০১৭,রবিবার, ১৭:১২


প্রিন্ট
মাকসুদুর রহমান মিল্টন সিদ্দিকী

মাকসুদুর রহমান মিল্টন সিদ্দিকী

টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার নাগবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান মাকসুদুর রহমান মিল্টন সিদ্দিকীকে এক গৃহবধূ ধর্ষণ মামলায় জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

এর আগে শনিবার সন্ধ্যায় তাকে নিজ বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে টাঙ্গাইলের ডিবি পুলিশ। তার পাঁচ দিনের রিমান্ড চাওয়া হয়েছে।

টাঙ্গাইল ডিবি পুলিশের ওসি অশোক কুমার সিংহ বলেন, কালিহাতীর এলেঙ্গা রিসোর্টে এক গৃহবধূকে ধর্ষণের মামলায় নাগবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান মাকসুদুর রহমান মিল্টন সিদ্দিকীকে শনিবার সন্ধ্যায় তার নিজ বাড়ি থেকে গ্রেফতার করা হয়। আজ রোববার দুপুরে তাকে টাঙ্গাইল আদালতে হাজির করে পাঁচদিনের রিমান্ড চাওয়া হয়। আদালত আগামী ১৬ আগস্ট রিমান্ড শুনানীর তারিখ ধার্য করে তাকে জেলহাজতের পাঠানোর নির্দেশ দেন। এখন তার ডিএনএ পরীক্ষা করার জন্য সংশ্লিষ্ট ল্যাবে নিয়ে যাওয়া হবে। হাইকোর্ট থেকে নেয়া জামিনের মেয়াদ শেষ হলেও এই চেয়ারম্যান নিম্ন আদালতে হাজির হননি বিধায় তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, ওই গৃহবধূর বাড়ির সীমানা নিয়ে প্রতিবেশীর সঙ্গে বিরোধ চলছিল। গত ১৪ মার্চ তা নিষ্পত্তি করে দেওয়ার আশ্বাস দিয়ে ইউপি চেয়ারম্যানের এক সহযোগী ওই গৃহবধূকে ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে এলেঙ্গা রিসোর্টে নিয়ে যান। সেখানকার একটি কক্ষে আগে থেকেই চেয়ারম্যান অবস্থান করছিলেন।

সেখানে যাওয়ার পর চেয়ারম্যান গৃহবধূকে ধর্ষণ করেন। পরে ওই সহযোগী মোটরসাইকেলে করে তাকে কালিহাতীর চারান এলাকায় নামিয়ে দিয়ে আসেন।

সেখান থেকে স্বজনেরা তাকে উদ্ধার করে টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। পরে তিনি ইউপি চেয়ারম্যান ও তার সহযোগীকে আসামি করে কালিহাতী থানায় ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন।

পরবর্তীতে ওই মামলায় মিল্টন সিদ্দিকী হাইকোর্টে মামলাটির স্থগিতাদেশ চেয়ে আবেদন করেন। হাইকোর্ট মামলাটি স্থগিত না করে তাকে ছয় মাসের জামিন দেন। ইতিমধ্যেই তার জামিনের মেয়াদ শেষ হয়ে গেলেও তিনি আদালতে হাজির হননি।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫