ঢাকা, শুক্রবার,১৮ আগস্ট ২০১৭

এশিয়া

বোতলে বাতাস! সাফল্যের ব্যবসায়ীরাই স্তম্ভিত!

ডয়েচে ভেলে

১৩ আগস্ট ২০১৭,রবিবার, ১৬:৪৮ | আপডেট: ১৩ আগস্ট ২০১৭,রবিবার, ১৬:৫৭


প্রিন্ট
বোতলে বাতাস! সাফল্যের ব্যবসায়ীরাই স্তম্ভিত!

বোতলে বাতাস! সাফল্যের ব্যবসায়ীরাই স্তম্ভিত!

বায়ু দূষণ বাড়ছে, আর সে সুযোগ কাজে লাগিয়ে বিশুদ্ধ বাতাস বোতলে ভরে বিক্রির ধান্দা শুরু করেছেন কিছু চতুর ব্যবসায়ী৷ বড় বড় শহরে, স্যুভেনির হিসেবে বা হাসপাতালে বিক্রি হচ্ছে এই বাতাস৷ কেউ কেউ নিজেদের সাফল্যের নিজেরাই স্তম্ভিত!

জার্মানির অন্যতম গবেষণা প্রতিষ্ঠান মাক্স প্লাঙ্ক-এর একটি পরিসংখ্যান বলছে, চীনে বায়ু দূষণের কারণে ১০ লাখেরও বেশি মানুষ মারা যায়৷ ফসলের ক্ষতি, বিমান ও গাড়ি চলাচলে নিষেধাজ্ঞার মতো আরো কিছু ক্ষতিকর প্রভাবও রয়েছে৷

বেইজিং এবং সাংহাইয়ের মতো শহরে ধোঁয়াশা এমন অবস্থায় পৌঁছেছে যে, শহরের বাসিন্দারা এখন ২০ ডলার করে অক্সিজেন বোতল আমদানি করা শুরু করেছেন৷ কানাডিয়ান উৎপাদনকারীরা বলছে এক লিটার অক্সিজেন দিয়ে কম-বেশি ১৫০ বার নিঃশ্বাস নেয়া যায়৷

নিজের সাফল্যে চমৎকৃত ক্যানাডার এডমন্টনের ভাইটালিটি এয়ারের সহপ্রতিষ্ঠাতা মোজেস লাম৷ টেলিভিশন চ্যানেল সিবিসির সাথে এক সাক্ষাৎকারে তিনি স্বীকার করেন, পুরোটাই শুরু হয়েছিল একটা রসিকতার অংশ হিসেবে৷ কিন্তু প্রথম উৎপাদনের ১০০ বোতল যখন চার দিনেই শেষ হয়ে যায়, তখন তিনি বিষয়টাকে পেশাগত রূপ দেয়া শুরু করেন৷

ভাইটালিটি এয়ার এখন শুধু চীন না, ভারত, কোরীয়া এবং ভিয়েতনামেও ব্যবসা চালাচ্ছে৷ দুই সপ্তাহ পরপর ২০ জন কর্মী ক্যানাডার রকি মাউন্টেইন থেকে কয়েক লাখ লিটার বাতাস সংগ্রহ করেন৷ ‘‘বানফ ন্যাশনাল পার্ক থেকে সংগ্রহ করা বাতাস এখন বিক্রির শীর্ষে'', বলেন মোজেস লাম৷
বিশুদ্ধ বাতাস উৎপাদন বেশ জটিল৷ সংগৃহীত বাতাসের মাত্র ২০ ভাগ থাকে বিশুদ্ধ অক্সিজেন৷ ফলে বাতাসকে শোধন ও সংকুচিত করে বোতলে ঢোকাতে হয়৷ মূল্যবান এই পণ্যের স্থায়ীত্বও খুব কম৷ লাম বলছেন, ‘‘এক থেকে দু'বছরের মধ্যে এই বোতল ব্যবহার করে ফেলা উচিত৷''

সিডনির গ্রিন অ্যান্ড ক্লিন ২০১৫ সাল থেকে অস্ট্রেলিয়ার বাতাস সরবরাহ করছে৷ ব্লু মাউন্টেন, গোল্ড কোস্ট, এমনকি গ্রেট ব্যারিয়ার রিফের বাতাসও বিক্রি করে এই কোম্পানি৷ তবে অর্ডার করতে হবে ন্যূনতম চার হাজার বোতল৷ প্রতি বছরই লাখ লাখ ডলার আয় করছে প্রতিষ্ঠানটি৷ কোম্পানির ক্রেতারা বেশিরভাগই আসছেন এশিয়ার বিভিন্ন দেশ থেকে৷

বায়ুদূষণ রোধে গাড়ি উৎপাদক এবং বিভিন্ন শহর কর্তৃপক্ষের উদ্যোগ কোনো কাজে না আসায় জার্মানিকেও ভবিষ্যত বাজার হিসেবে দেখছে গ্রিন অ্যান্ড ক্লিন৷ ডিজেল সম্মেলন তেমনই এক ভবিষ্যতের ইঙ্গিত দেয়৷

কেউ কেউ স্মারক হিসেবে বাড়িতে সাজিয়ে রাখছেন এই বোতলজাত বায়ু৷ এখন পর্যন্ত ব্ল্যাক ফরেস্ট এবং কাক্কু ক্লকস আছে পছন্দের শীর্ষে৷ ঐতিহ্যের বিপরীতে গিয়ে এলকে ওট অ্যালুমিনিয়ামে ক্যানে করে বিক্রি করছেন ব্ল্যাক ফরেস্টের বাতাস৷

২০০৬ সালে একই ধরনের বিষয় একবার চেষ্টা করা হয়েছিল৷ তখন ‘বার্লিনের আসল বাতাস' কিনতে পাওয়া যেত৷ ইউরোপীয় ইউনিয়ন সতর্ক করে দিয়েছিল যে, এই বাতাসে ৩০ শতাংশ ভাসমান বস্তুকণা থাকতে পারে৷ কিন্তু তাও বন্ধ হয়নি উৎপাদন ও বিপণন৷

তবে এ নিয়ে যতই হাসিঠাট্টা হোক না কেন, পরিবেশ উন্নয়নে কার্যকর উদ্যোগ নেয়ার প্রয়োজনীয়তা চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়েছে এই বোতলজাত বাতাস৷

বাতাস বিশুদ্ধ করতে না পেরে বিজ্ঞানীরা এখন মানুষের অক্সিজেনের চাহিদা কীভাবে কমিয়ে ফেলা যায়, সে গবেষণা করছেন৷ বার্লিনের মাক্স ডেলব্র্যুক সেন্টার ফর মলিকিউলার মেডিসিনের বিজ্ঞানীরা আবিষ্কার করেছেন নেকেড মোল ইঁদুর তাদের মাটির তলার গর্তে খুব অল্প অক্সিজেন নিয়ে দিনের পর দিন বাঁচতে পারে৷ পরীক্ষাগারে এরা শেকড় থেকে ফ্রুকটোজ শুষে প্রায় পাঁচ ঘণ্টা টিকে ছিল৷ যেখানে স্বাভাবিক নাড়ির স্বাভাবিক গতি মিনিটে ২০০ বার, সেখানে এই ইঁদুর নাড়ি মিনিটে ৫০-এ নামিয়ে আনতে পারে৷

এই আবিষ্কার কীভাবে মানুষের জীবনে কাজে লাগানো যায়, তা বের করার চেষ্টা করছেন বিজ্ঞানীরা৷ এবং তারা সবাইকে আশ্বস্ত করছেন, গাড়ি শিল্পের সাথে তাদের কোনো সম্পর্ক নেই৷

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫