ঢাকা, বৃহস্পতিবার,১৭ আগস্ট ২০১৭

চট্টগ্রাম

মা কি আসবেন? অপেক্ষায় ছোট্ট মিনহাজ

আরিফুল হক মাহবুব কাউখালী (রাঙ্গামাটি)

১৩ আগস্ট ২০১৭,রবিবার, ১৬:১১ | আপডেট: ১৩ আগস্ট ২০১৭,রবিবার, ১৬:৩০


প্রিন্ট
মিনহাজ

মিনহাজ

রাঙ্গামাটির কাউখালী উপজেলার সুগারমিল এলাকার দিদারুল আলমের ছেলে ছোট্ট মিনহাজ। ক’দিন আগে সাত বছরে পা দিলো। দুই ভাইয়ের মধ্যে সে ছোট। উপজেলার মদিনাতুল উলুম আল ইসলামিয়া মাদরাসার প্রথম শ্রেণীর ছাত্র। থাকে মাদরাসার পাশে খালার বাসায়। বাবা থাকলেও তার দেখাশুনার পাশাপাশি লেখাপড়ার খোঁজখবর রাখতেন মা। প্রতি সপ্তাহে কিছু একটা হাতে নিয়ে তাকে দেখতে মাদরাসায় আসতেন তার মা।

গত ১৩ জুন রাঙ্গামাটিজুড়ে ভয়াবহ পাহাড়ধসে কাউখালীতে মাটিচাপা পড়ে মারা যান ২১ জন। এ মৃত্যুর মিছিলে শামিল হন মিনহাজের মা লায়লা বেগমও। আহত হয়ে পুঙ্গ অবস্থায় ঘরে পড়ে আছেন তার বাবা দিদারুল আলম। গুরুতর আহত হয়েছে মিনহাজের বড় ভাই মহিউদ্দিন। মিনহাজের পরিবারে এখন হাল ধরার আর কেউ নেই।

সপ্তাহ শেষে এখন আর কেউ তাকে দেখতে আসে না। মায়ের প্রতীক্ষায় থেকে থেকে ঈদুল ফিতর গেল। সামনে আসছে ঈদুল আজহা। কিন্তু কেউ তো আসে না। আর আসবেও না। মিনহাজের পরিবারে কী হয়েছে জানে না শুধু ছোট্ট মিনহাজ। খালা তাসলিমা বেগম, তার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, এমনকি প্রতিবেশীরাও মায়ের মৃত্যুর বিষয়টি জানতে দেয়নি।

আত্মীয়স্বজন বুঝতে দেয়নি মায়ের অভাব। মায়ের অভাব কি অন্য কারো দ্বারা পূরণ করা সম্ভব?

কেউ কেউ নিজের অজান্তে তার মায়ের মৃত্যুর কথা মুখফসকে বলে ফেললেও সে জানে না মৃত্যু কী জিনিস। ফ্যাল ফ্যাল করে তাকিয়ে থাকে সবার দিকে। মাদরাসায় আঙিনায় সারাক্ষণ সে হাসছে, খেলছে, ছোটাছুটি করছে। সে শুধু এতটুকু জানে তার মা একদিন তার জন্য অনেক কিছু নিয়ে আসবে। ঈদে তাকে বাড়িতে নিয়ে যাবে।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫