আত্রাই নদীতে পানির বিপদসীমা অতিক্রম

এম এম হারুন আল রশীদ হীরা.মান্দা (নওগাঁ):

নওগাঁর মান্দা উপজেলার উপর দিয়ে প্রবাহিত আত্রাই নদীর পানি গতকাল শনিবার বিপদ সীমার ৫০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে বলে পানি উন্নয়ন র্বোড সুত্রে জানা গেছে। বেশ কয়েক স্থানে ভাঙ্গন দেখা দেয়ায় বন্যা পরিস্থিতির চরম অবনতি ঘটেছে। বন্যার পানি বৃদ্ধি অব্যহত থাকায় নদীপাড়ের মানুষেরা নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছেন। গত বৃহস্পতিবার থেকে আত্রাই নদীর পানি বৃদ্ধি পাচ্ছিল। শুক্রবার সকাল থেকে তা আরো বেড়ে বিকেলের মধ্যেই বিপদ সীমা অতিক্রম করে।
গতকাল শনিবার সকাল ৮টার দিকে আত্রাই নদীর উপজেলার কশব ইউনিয়নের পাজরভাঙ্গা সমির শাহর বাড়ির নিকট বন্যা নিয়ন্ত্রণ বেড়ি বাঁধ ভেঙ্গে ২৭৫টি পরিবার পানির নিচে নিমজ্জিত হয়ে পড়েছে। এছাড়া দক্ষিণ চকবালু হিন্দুপাড়া নামক স্থানে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে গেলে ৫০-৬০টি বাড়ি পানির নিচে তলিয়ে গেছে। এতে প্রায় পাঁচ শতাধিক বিঘা জমির আমন ধানসহ অন্যান্য ফসল ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। বর্তমানে অসহায় পরিবারগুলো বিশ্ববাঁধে আশ্রয় নিয়েছে। এখন পর্যন্ত কোন সরকারী সাহায্য বা ত্রাণ তাদের কাছে না পৌছায় মানবেতন জীবন যাপন করছেন। অপর দিকে ১৪ নং বিষ্ণুপুর ইউনিয়নের চকরামপুর উত্তরপাড়ায় বন্যার কবলে পড়েছে। রাত থেকে সেখানে ১৫-২০জন সেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে গর্ত ও ছোট ছোট ভাঙ্গা স্থান মাটি দিয়ে মেরামতের কাজে ব্যস্ত রয়েছেন যাতে বন্যার কবল থেকে তারা রেহাই পান। তাছাড়া ঘোষপাড়া তালপাতিলা ও বিষ্ণুপুর ইউনিয়নের কয়লাবাড়ি, চকশৈল্যা, ফতেপুর, ভালাইন ইউপি’র আয়াপুর, পাঠাকাঠা, মান্দা ইউপি’র দোসতিনা, কালিকাপুর,দোসতি, গনেশপুর ইউপি’র দক্ষিণ পারইল, প্রসাদপুর ইউপি’র প্রসাদপুর, খুদিয়াডাঙ্গা, দ্বারিয়াপুর, কুশুম্বা ইউপি’র ছোটবেলালদহ, শামুকখোল(বুড়িদহ) গ্রাম বন্যার পানিতে নিমজ্জিত হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এসব গ্রামের অসহায় প্রায় সাড়ে তিনশত বর্ন্যাত পরিবারগুলো স্থানীয় বিভিন্ন আত্মীয়-স্বজন, বিশ্ববাঁধসহ রাস্তায় আশ্রয় নিতে বাধ্য হয়েছেন। বন্যা কবলিত এসব গ্রামের মানুষের এখন খাদ্য ও বিশুদ্ধ পানির চরম সংকট দেখা দিয়েছে। তারা মানবেতর জীবন-যাপন করছেন। খবর পেয়ে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যাপক আব্দুর রশিদ,উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: নুরুজ্জামান সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতা-কর্মীরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এ সময় তারা অসহায় বর্ন্যাতদের সাম্ভাব্য সব রকমের সাহায্যের আশ্বাস দেন।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.