ঢাকা, শনিবার,২১ অক্টোবর ২০১৭

রংপুর

অবিরাম বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে দিনাজপুরের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত

দিনাজপুর সংবাদদাতা

১২ আগস্ট ২০১৭,শনিবার, ১৯:৫০


প্রিন্ট

দু’দিনের ভারী বর্ষণ এবং উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে দিনাজপুরে নিম্নাঞ্চলগুলো প্লাবিত হয়ে পড়েছে। এমন বর্ষণ চলতে থাকলে বন্যার আশংকা করা হচ্ছে।

বর্ষণে ডুবে গেছে, রাস্তা-ঘাট, পুকুর, জলাশয় ও ফসলী জমি। এতে ব্যাপক ক্ষতির আশংকা দেখা দিয়েছে।

পূণর্ভবা ও আত্রাই নদীর পানি বিপদসীমার মাত্র এক সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে জেলার বেশ কিছু এলাকায় পানি ঢুকেছে।

আজ শনিবার শহরের বালুয়াডাঙ্গা, হঠাৎপাড়া, চাউলিয়াপট্টি, লালবাগ, রামনগরসহ বিভিন্ন এলাকাগুলো প্লাবিত হয়েছে। বসতবাড়িতে পানি ঢুকে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। অনেকের শোয়ার ঘরেও পানি ঢুকে পড়েছে। জরুরি কাজ ছাড়া আজ কেউই বানি থেকে বের হননি।

শহরের ড্রেনেজ ব্যবস্থার সংস্কার না করায় এমন জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছে।

২নং ওয়ার্ডের চাউলিয়াপট্টি এলাকার বাসিন্দা মোঃ ইউসুফ আলী জানান, চাউলিয়াপট্টি মোড় থেকে সাধুর ঘাট পর্যন্ত ড্রেনেজ ব্যবস্থা নেই বললেই চলে।

বালুবাড়ি এলাকার বাসিন্দা আবুল কাশেম বলেন, বালুবাড়ির ড্রেনগুলো দীর্ঘদিন ধরে মাটি দিয়ে ভরে গেলে তা সংস্কারের উদ্যোগ নেয়া হয়নি। ফলে জলাবদ্ধতা তীব্র আকার ধারণ করেছে।

শহরের সব প্রান্তে প্রায় একই অবস্থা।

প্রাইমারি টিচার্স ট্রেনিং সেন্টারের পাশের সুইহারী এলাকার রাস্তার পাশে বড় বড় ড্রেন নির্মাণ করা হলেও তা মাটিতে ভরে গেছে। ফলে ড্রেন ও রাস্তায় এখন ময়লা ও কাদা পানিতে থৈ থৈ করছে। অনেক বাসা-বাড়িতে এ নোংরা পানি ও পোকা-মাকড় ঢুকতে দেখা গেছে।

দিনাজপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী আনোয়ার হোসেন জানান, জেলার প্রধান নদী আত্রাইয়ে ৩৯ দশমিক ৬০ সেন্টিমিটার বিপদসীমা, বর্তমানে ৩৯ দশমিক ৫০ সেন্টিমিটার পানি প্রবাহিত হচ্ছে। পূণর্ভবা নদীতে ৩৩ দশমিক ৫০ সেন্টিমিটার বিপদসীমা, বর্তমানে ৩২ দশমিক ১ সেন্টিমিটার পানি প্রবাহিত হচ্ছে।

তিনি বলেন, অন্যান্য নদীর পানিও পর্যবেক্ষণ চলছে। নদীগুলোর পানি আরো বাড়তে পারে বলেও তিনি জানিয়েছেন।
দিনাজপুর আবহাওয়া অধিদপ্তরের উচ্চ পর্যবেক্ষক সহিদুল ইসলাম জানান, এ মৌসুমে সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত হয়েছে দু’দিনে। দিনাজপুরে শুক্রবার সকাল ৯টা থেকে শনিবার সকাল ৯টা পর্যন্ত ২১৬ দশমিক এক মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। এ পরিস্থিতি আরো দু’একদিন অব্যাহত থাকতে পারে বলে তিনি জানান।

 

 

অন্যান্য সংবাদ

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫