ঢাকা, রবিবার,১৯ নভেম্বর ২০১৭

প্রিয়জন

প্রি য় জ ন পং ক্তি মা লা

১২ আগস্ট ২০১৭,শনিবার, ০০:০০


প্রিন্ট

আব্দুস সালাম
মেঘের কান্না

ফসলের মাঠ ফেটে চৌচির
বুকফাটা মাটির আর্তনাদে
তপ্তমলয় থমকে দাঁড়ায়
মেঘের আড়ালে লুকায় দিনের সূর্য
আর মমতার বাঁধ ভেঙে
নেমে আসে মেঘের কান্না
অতঃপর শীতল হয় ধরণী।
প্রাণ ফিরে পায় বৃক্ষ, তৃণলতা
যৌবন ফিরে আসে নদীর বুকে,
ঢেউয়ের স্পর্শে হেসে ওঠে
বিলের শাপলা-শালুক,
আর ব্যস্ততা বাড়ে কোলা ব্যাঙের
টিনের চালে বর্ষার নৃত্যছন্দ
উদাসী মনকে ব্যাকুল করে।
কদম কেশরের পুচ্ছ বেয়ে
নেমে আসে বর্ষার জল
টুপ টাপ ঝম ঝম রিমঝিম
দিনভর রাত ভোর
বাংলাদেশ সচিবালয়, ঢাকা

 

হাসান সাইদুল
থাকবে তুমি আছো তুমি

এই জীবনে দুজনাতে আর হবে কি দেখা?
দেখাদেখি চোখাচোখি,নতুন স্বপ্ন আঁকা!
স্বপ্ন বোনা হবে কি গো আমায় তোমায় নিয়ে-
কান্না-হাসি পাশাপাশি মিলবে কি গো গিয়ে?
স্বপ্ন ছিল দুজন মিলে- এক থালাতে খাওয়া
একই ঝরনায় পাশাপাশি দুজন মিলে নাওয়া?
পুরনো সেই স্বপ্ন বুকে, যাচ্ছি কষ্ট পেয়ে
পথে পানে অধির চোখে থাকবে তুমি চেয়ে?
আমার যত স্বপ্ন ছিল শুধু তোমায় ঘিরে
অভিমানের সময়গুলো আসবে কি আর ফিরে?
পড়বে কি গো আমার কথা ব্যস্ত তোমার মনে?
থাকবে তুমি আছো তুমি- আমাতে সব ক্ষণে।
গুলশান, ঢাকা


মনিবুল হক বসুনিয়া
ভালোবাসি

ভালোবাসি মাঠ, নদী খেয়াঘাট
মাটির সোঁদা গন্ধ
ভালোবাসি ফুল, চম্পা বকুল
ভালোবাসায় নেই দ্বন্দ্ব।
ভালোবাসি হাসি, রাখালের বাঁশি
নীলাচলের নীল
ভালোবাসি মেঘ, মায়ের আবেগ
উড়ে চলা গাঙচিল।

ভালোবাসি জল, সাগর অতল
বাবার সেই শাসন
ভালোবাসি দেশ, পুঁথি গানের রেশ
চালায় মাটির আসন।
ভালোবাসি সবই দেশ-মাটি, কবি,
গাঁয়ের মেঠো পথ
ভালোবাসি বাতাস, রোদেলা আকাশ
জীবনের জয়রথ।
রাজারহাট, কুড়িগ্রাম


তাসনীম মোহাম্মাদ
কামনার রোদ্দুর

আঁতুড়ঘর ছেড়ে এসে রোদ্দুর
পরিপূর্ণ যুবক এখন !
জ্বলুক হৃদপিণ্ডÑ পৃথিবীর
জ্বলুক ঘামে ভেজা লাঙলের ফলা।...
জ্বলে উঠুক ভোরের শিশির
জ্বলে উঠুক ধুলোমাটি।
জ্বলে উঠুক কাস্তে-সাবল-কুড়াল
জ্বলে উঠুক তরুণ-তাজা প্রাণ!
জ্বলন্ত বাষ্প-রোদ্দুরে যুদ্ধ হোক
বিদ্যুৎ জ্বলুক মেঘ ডাকুক বৃষ্টি নামুক !
ধুয়ে যাক কাল-কালান্তরে জমাট
ঘন অন্যায় কালো অভিশাপ।...

লুৎফর রহমান ঝিনুক
সেই প্রভাত

পড়ে কি তোমার মনে
সেই প্রভাতগুলো?
হাতে রেখে হাত বকুলের বনে
ঝরানো বকুল কুড়াতাম দু’জনে
রঙিন সুতোয় গেঁথে মালা তুমি
দিতে পরিয়ে আমায় মিলন ক্ষণে।
পড়ে কি তোমার মনে
কুয়াশা ঘেরা ভোরে
শিশির সিক্ত দূর্বা ঘাসে
পা ভেজাতাম দু’জনে?
পড়ে কি তোমার মনে
আঙিনার গোলাপ কুঞ্জ হতে
তপ্ত গোলাপ দিতে তুলে
কভু আনমনে।
হারালো কোথায় সেই সব দিন
স্মৃতির দহন চুমি
সুখেই আছো তুমি নতুনের মাঝে
ধূষর এ হৃদয় ভূমি ।
ঢাকা


মিলন সরকার
বাবুই পাখি

বাবুই পাখি বাসা বানায়
তালগাছের মাথায়
কী অপূর্ব বিণুনি তার
চিকন চিকন পাতায়।
রাতে তাতে থাকে না বাবুই
যদি আসে ঝড়
ঝড়ের কবলে পড়ে যদি
ভেঙে যায় ঘর।
বাসার সাথে যাবে তখন
নিজের দেহ-প্রাণ
সোনার স্বপ্ন ভেঙে হায়!
হবে খান খান।
তাই বাবুই রাতের বেলা
থাকে ঘরের বাইরে
তার মতো এমন দুঃখী
জগতে আর নাইরে।
প্রিয়জন-১৬২৬

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫